কামাল নৌকা থেকে নেমে খুনিদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন: প্রধানমন্ত্রী
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম
অ+ অ-প্রিন্ট
বিএনপিকে সঙ্গে নিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গড়ায় গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের কড়া সমালোচনা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেছেন, ড. কামাল হোসেনকে সাবাস জানাই, তিনি আওয়ামী লীগের নৌকা ছেড়ে ধানের শীষের মুঠো ধরেছেন। কিন্তু ধানে শীষ নেই চিটা ধরেছেন। তবে এক্ষেত্রে ঠিকই আছে- কামাল হোসেনও কালো টাকা সাদা করেছেন, তারেক জিয়াও করেছে। রতনে রতন চেনে, শিয়ালে চেনে কচু। আজ রোববার মুন্সিগঞ্জের মাওয়ায় পদ্মা সেতুর নামফলক উন্মোচন ও কয়েকটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন শেষে বিকালে মাদারীপুরের শিবচরে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। শেখ হাসিনা বলেন, ‘খুনি ও দুর্নীতিবাজদের সঙ্গে ড. কামাল হোসেন গং’ ঐক্য করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, যারা মানুষ পুড়িয়ে মারে, অগ্নিসন্ত্রাস করে, যারা এতিমের টাকা মেরে খায় আজ তাদের সঙ্গে ঐক্য করেছেন সেই কামাল হোসেন গং। তিনি নেতা মেনেছেন এমন একজনকে যিনি পলাতক, মানি লন্ডারিংয়ে সাজাপ্রাপ্ত। বিএনপির সেই পলাতক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়ার অধীনেই ড. কামাল হোসেন গং ঐক্য করেছেন, আরও কিছু খুচরা আধুলি…। মুখে নীতি কথা বলেন, অথচ নীতিবানরাই খুনি ও দুর্নীতিবাজদের সঙ্গে ঐক্য করেছে।

তিনি বলেন, ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে যারা খুন করেছিলো সেই খুনি মোশতাকদের পুনর্বাসন করেছিল জিয়াউর রহমান। আর ২১ আগস্ট আমাকে হত্যা করে আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব শূন্য করতে হামলা করেছিলো খালেদা জিয়া। আইভি রহমানসহ অনেককে তারা খুন করেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভয়াবহ একুশ হামলার আলামত নষ্ট করে জজ মিযা নাটক সাজায়। এরা খুনি, ২০০১ সালের নির্বাচনের পর দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন এলাকায় হামলা চালায়। মানুষের ওপর নির্যাতন করে। ২০১৪ সালে অগ্নিসন্ত্রাস করে ৩ হাজার ৮শ’র মতো মানুষকে হত্যা করে। অগ্নি-সন্ত্রাসে যারা বেঁচে আছে তারা মানবেতর জীবন-যাপন করছে।’

‘জামায়াত-বিএনপি এক জোট’ উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, একাত্তর সালে জামায়াত এদেশে বর্বরতা চালায়। আর সুযোগ পেলেই এখনও এরা মানুষ হত্যা করে।’

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শামসুদ্দিন খানের সভাপতিত্বে জনসভায় দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সাজেদা চৌধুরী, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, মাদারীপুর-১ আসনের এমপি নূরে আলম চৌধুরী প্রমুখ বক্তব্য দেন। 

 

 

 

১৪ অক্টোবর, ২০১৮ ২১:৫৯:০৬