সিরিয়ায় একসঙ্গে তিন দেশের বিমান হামলা
দ্য বেঙ্গলি টাইমস ডটকম ডেস্ক
অ+ অ-প্রিন্ট
আমেরিকা, ব্রিটেন ও ফ্রান্স একসঙ্গে বিমান হামলা করল সিরিয়ায়। শনিবার সকালে এই বিমানহানা হয়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প শুক্রবার সিরিয়ার রাজধানী দামাস্কাসে বিস্ফোরণের কথা বলেন। সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের রাসায়নিক অস্ত্র প্রয়োগের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর নিয়েই এই বিমানহানা বলে জানানো হয়েছে।

ট্রাম্প জানিয়েছেন, ফ্রান্স ও ব্রিটেনের সঙ্গে অপারেশন করেছে আমেরিকা। যতদিন না সিরিয়া তার রাসায়নিক অস্ত্রের প্রয়োগ থামাবে, ততদিন হামলা চলবে বলে জানিয়েছেন ট্রাম্প। গত সপ্তাহে বিষাক্ত গ্যাসের ফলে সিরিয়ায় ৬০ জনের মৃত্যু হয়। তারপরেই এই বিমানহানার সিদ্ধান্ত নেয় তিন দেশ।

হোয়াইট হাউস থেকে একটি টেলিভিশন চ্যানেলে ট্রাম্প জানান, "কিছুদিন আগেই আমি মার্কিন সেনাকে হামলার কথা বলি। সিরিয়ার রাষ্ট্রপতি বাসার আল-আসাদের রাসায়নিক অস্ত্রের পরিপ্রেক্ষিতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।" সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, মার্কিন প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে বিমানহানা একাধিক জায়গায় করা হয়েছে। হামলার জন্য তোমাহক ক্রুজ মিসাইল ব্যবহার করা হয়েছে। আসাদের রাসায়নিক অস্ত্র হামলার কথা উল্লেখ করে ট্রাম্প বলেছেন, "এটা মানুষের কাজ নয়। দানবের কাজ। আমাদের কাজ রাসায়নিক অস্ত্রে বিরুদ্ধে একটি কঠিন প্রতিবন্ধক।"

এর পাশাপাশি রাশিয়া ও ইরানকেও সতর্ক করছে আমেরিকা। আসাদ সরকারের পিছনে এই দুটি শক্তিরই হাত রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। ট্রাম্প বলেছেন, "ইরান ও রাশিয়া, আমি জিজ্ঞাসা করছি কোন দেশ নির্দোষ পুরুষ, মহিলা ও শিশুদের গণহত্যা করতে সাহায্য করে?" ব্রিটিশ মুখ্যমন্ত্রী থেরেসা মে বলেছেন, সিরিয়ায় রাসায়নিক অস্ত্র যাতে না ব্যবহার করা হয়, তাই এই অপারেশনে অংশ নিয়েছেন তাঁরা। ফ্রান্সর প্রেসিডেন্ট এম্মানুল ম্যাকরন বলেছেন, আমেরিকা ও ব্রিটেনের সঙ্গে ফ্রান্স অপারেশনে যোগ দিয়েছে তার কারণ সিরিয়ার রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহারিক প্রয়োগ।

কিছুদিন আগে রাসায়নিক গ্যাস হামলা হয় সিরিয়ার পূর্ব ঘৌতায় দৌমা শহরে। বিষাক্ত গ্যাস আক্রমণের ফলে অন্তত ৭০ জন নিহত হয়েছেন। আহত শতাধিক। তার ২৪ ঘন্টা কাটতে না কাটতেই হোমস্ শহরের টার্মিনাল-৪ এয়ারফিল্ডে বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যায়। এটি অত্যন্ত জোরালো ছিল। সিরিয়ার সরকারি সংবাদ সংস্থার খবর অনুযায়ী, এয়ারপোর্টে মিসাইল হামলা হয়। যার ফলে অনেকের প্রাণ যায়। রবিবারের কেমিক্যাল অ্যাটাকের পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বশর-অল-আসাদকে কড়া হুঁশিয়ারি দেন।

 

১৪ এপ্রিল, ২০১৮ ০৯:৩৩:৩৯