-11.7 C
Toronto
বুধবার, জানুয়ারী ২৬, ২০২২

প্রতিদিন নির্ধারিত সময়ে ল্যাপটপ চুরি করেন তিনি!

- Advertisement -
ভদ্রবেশে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে প্রবেশ করেন তিনি।

ভদ্রবেশে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে প্রবেশ করেন তিনি। বেছে নেন সকাল ৮টা থেকে ৯টা এই সময়টা। ফাঁকা ডেস্কে থাকা ল্যাপটপ তার মূল টার্গেট। একটি ল্যাপটপ চুরিতে সময় নেন মাত্র ৫ মিনিট। মূল-হোতা হারুন অর রশিদ ও তার এক সহযোগীকে গ্রেপ্তারের পর পুলিশ বলছে, গেল দুই বছরে কয়েকশ’ ল্যাপটপ চুরি করেছে তারা।

গত বছরের ৫ জানুয়ারি। সকাল ৮ টা ২২ মিনিট। হাতে ব্যাগসহ এই ব্যক্তিকে প্রবেশ করতে দেখা যায় রাজধানীর গুলশানের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের অফিসে। লিফট থেকে নেমে সিঁড়ি দিয়ে এক ফ্লোর উপরে উঠে বাম পাশের দরজা দিয়ে ভেতরে ঢুকতে গিয়ে বন্ধ দেখে প্রবেশ করেন ডান পাশের দরজা দিয়ে।

- Advertisement -

৫ মিনিট পর যে পথে প্রবেশ করেছিলেন একই পথে বের হয়ে যেতে দেখা যায়। সঙ্গে থাকা ব্যাগে করে নিয়ে যান একটি ল্যাপটপ। এমন অসংখ্য ল্যাপটপ চুরির ঘটনা তদন্তে করতে গিয়ে গোয়েন্দা পুলিশ এই একই ব্যক্তির সম্পৃক্ততার প্রমাণ পায়।

হারুন অর রশিদ নামে এই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তারের পর পুলিশ জানতে পারে প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে ৯টার মধ্যে বিভিন্ন অফিসে প্রবেশ করেন তিনি। টার্গেট ফাঁকা ডেস্কে থাকা ল্যাপটপ। ওই সময়টাতে সাধারণত অফিস পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কাছে ব্যস্ত থাকে লোকজন। এই সুযোগটিই কাজে লাগান তিনি।

পুলিশ বলছে, গত দুই বছরে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে কয়েকশ’ ল্যাপটপ চুরি করেছে সে। চুরি করা ল্যাপটপ সে বিক্রি করে মিরপুরের শাহ আলী মার্কেটের দোকানদার মাসুমের কাছে।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার মশিউর রহমান বলেন, ল্যাপটপ চুরি হয়ে গেলে এটা উদ্ধার করা কিছুটা কঠিন। সে ভদ্র বেশে চুরি করতো। তাই তাকে কেউ সন্দেহ করতো না সহজে। একদিন একটা চুরি করলেই তার ১২ থেকে ১৫ হাজার টাকা আয় হয়ে যেতো। তাতে লাভও বেশি, রিস্কও কম। তারা অনেক দিন ধরেই এ কাজ করে যাচ্ছে।

পুলিশ বলছে হারুনের বিরুদ্ধে ল্যাপটপ চুরি সংক্রান্ত এক ডজনেরও বেশি মামলা রয়েছে।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles