-14.4 C
Toronto
সোমবার, জানুয়ারী ২৪, ২০২২

অভিবাসী কৃষি শ্রমিকদের সুরক্ষা দিতে ব্যর্থ ফেডারেল সরকার

- Advertisement -
মহামারি শুরুর পর থেকে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে ছয় জন অভিবাসী শ্রমিকের মৃত্যুর বিষয়টি তারা নিশ্চিত হয়েছে

কৃষি পণ্য উৎপাদনকারীরা কোভিড-১৯ মহামারিকালে তাদের অভিবাসী শ্রমিকদের যাতে সুরক্ষা দেয় তা নিশ্চিতে ফেডারেল সরকার ব্যর্থ হয়েছে। অনেক ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা নীতি লঙ্ঘনের অভিযোগও রয়েছে। কানাডার অডিটর জেনারেলের নতুন প্রতিবেদনে এ বিস্ফোরক তথ্য উঠে এসেছে। বৃহস্পতিবার প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়েছে।

মাইগ্রেন্ট ওয়ার্কার্স অ্যালায়েন্স ফর চেঞ্জ বলেছে, মহামারি শুরুর পর থেকে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে ছয় জন অভিবাসী শ্রমিকের মৃত্যুর বিষয়টি তারা নিশ্চিত হয়েছে। যদিও প্রকৃত সংখ্যা আরও বেশি হবে।

- Advertisement -

মৌসুমী শ্রমিক হিসেবে কৃষি খাতে কাজ প্রতি বছর কানাডায় যে ৫০ হাজার বিদেশি আসেন তাদের সুরক্ষায় মহামারির শুরুর দিকে বড় অংকের তহবিলের ঘোষণা দিয়েছিল। সেই সঙ্গে কৃষি পণ্য উৎপাদনকারীদের জন্য নতুন কিছু পদক্ষেপও ঘোষণা করে। এর মধ্যে আছে নতুন করে কানাডায় আসা অভিবাসী শ্রমিক ও কোভিড-১৯ এ আক্রান্তদের ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা করা ও সংক্রমণ ব্যবস্থাপনায় পদক্ষেপ গ্রহণ।

সব ফার্ম এগুলো পরিপালন করেছে বলে এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট কানাডার পরিদর্শকরা জানালেও অধিকাংশ ফার্ম সঠিকভাবে পরিদর্শন না করেই এই রায় দিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানান হোগান। তিনি বলেন, প্রয়োজনীয় স্বাক্ষ্য-প্রমাণ ছাড়াই পরিদর্শকরা এই মতামত দিয়েছেন যে, প্রায় সব প্রতিষ্ঠানই কোভিড-১৯ ও ন্যূনতম জীবনযাপনের জন্য প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। সময় নিয়ে উদ্বেগ আছে। ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিন শেষ হয়ে যাওয়ার পর অনেকদিন পেরিয়ে গেলেও অনেক পরিদর্শনই অসম্পূর্ণ রাখা হয়েছে। পাশাপাশি এও দেখা গেছে যে, অসুস্থ্য বা উপসর্গযুক্ত শ্রমিকদের আইসোলেশনের জন্য স্থান বরাদ্দের নিশ্চয়তা সেভাবে দেননি ফার্ম মালিকরা।

নিয়োগদাতাদের বিরুদ্ধে বিধিবিধান লঙ্ঘনের প্রমাণ থাকাও পরও অনেক সময়ই পরিদর্শকরা পরবর্তীতে তা আমলে নেননি। উল্টো কমপ্লায়েন্ট হিসেবে তাদের তালিকাভুক্ত করে গেছেন। তবে এর সঙ্গে মৃত্যুর বিষয়টি সম্পর্কিত করতে চাননি হোগান। বলেছেন, এজন্য আরও তথ্যের প্রয়োজন। অন্যদের রক্ষায় সঠিক কোয়ারেন্টিন ও আইসোলেশন গুরুত্বপূর্ণ বলে মত দেন তিনি।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ২০২০ সালের মার্চ থৈকে সব পরিদর্শনই হয়েছে ভার্চুয়ালি। এজন্য নির্ভর করতে হয়েছে মূলত প্রতিষ্ঠানগুলোর সরবরাহকারী ছবি ও ভিডিও। সেই সঙ্গে শ্রমিকদের সাক্ষাৎকরা।

অডিটর জেনারেলের এই প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মাইগ্রেন্ট ওয়ার্কাস অ্যালায়েন্স ফর চেঞ্জের সাইদ হোসেন বলেন, সাময়িক অভিবাসী শ্রমিকদের সুরক্ষা দিতে ফেডারেল সরকার যে ব্যর্থ এর মধ্য দিয়ে তা আবারও প্রমাণিত হলো।

প্রতিবেদনে উঠে আসা তথ্যকে অগ্রহণযোগ্য বলে মত দিয়েছেন কনজার্ভেটিভ পার্টির এমপ্লয়মেন্ট ক্রিটিক স্টেফানি কুশি।

 

 

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles