7.9 C
Toronto
সোমবার, মে ২৩, ২০২২

মেরিনল্যান্ডের বিরুদ্ধে অভিযোগ খতিয়ে দেখছে পুলিশ

- Advertisement -
মেরিনল্যান্ডের বিরুদ্ধে অভিযোগ খতিয়ে দেখছে পুলিশ - The Bengali Times
ফাইল ছবি

মেরিনল্যান্ড অব কানাডা তাদের প্রাণি কিভাবে জনসম্মুখে উপস্থাপন করছে সে সংক্রান্ত দুটি অভিযোগ খতিয়ে দেখছে নায়াগ্রা পুলিশ সার্ভিস (এনআরপিএস)। হেমন্তে অভিযোগ দুটি করা হয় বলে এনআরপিএসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

এনআরপিএসের মুখপাত্র কনস্টেবল ফিল গেভিন বলেন, একটি অভিযোগ খতিয়ে দেখছে আমাদের ২ ডিস্ট্রিক্ট নায়াগ্রা ফলস গোয়েন্দা কার্যালয়। তদন্ত চলমান থাকায় এ ব্যাপারে এর বেশি তথ্য দেওয়া সমীচিন হবে না। তাতে করে তদন্ত বাধাগ্রস্ত হতে পারে।

- Advertisement -

একটি অভিযোগ করেন প্রাণি অধিকার নিয়ে কাজ করা যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান লাস্ট চান্স ফর অ্যানিম্যালসের (এলসিএ) আইনজীবী মিরান্ডা ডেসা। সি২ি৪কে তিনি বলেন, মেরিনল্যান্ড ক্রিমিনাল কোডের সেকসন ৪৪৫.২(৪) লঙ্ঘনের ঘটনায় অভিযোগ দায়ের করেছে এলসিএ। এই অনুচ্ছেদে তিমি ও ডলফিনকে বন্দী রেখে বিনোদনের জন্য মানুষের সামনে তুলে ধরাকে নৃশংসতা হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

ফৌজদারি বিধিতে প্রাদেশিক সরকারের লাইসেন্স ব্যতিত মেরিন প্রাণিকে বন্দী রেখে বিনোদনের জন্য ব্যবহার করা নিষিদ্ধ। মেনিল্যান্ড এ ধরনের কোনো লাইসেন্স নিয়েছে কিনা জানতে প্রাদেশিক সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করে সিটিভি নিউজ। সলিসিটর জেনারেল মন্ত্রণালয়ের একজন মুখপাত্র বলেন, মন্ত্রণালয় থেকে মেরিনল্যান্ডকে এমন কোনো লাইসেন্স দেওয়া হয়নি যার আওতায় তারা বন্দী প্রাণিকে বিনোদনের জন্য ব্যবহার করতে পারে।

মেরিনল্যান্ডের কাছে জানতে চাইলে লাইসেন্সের বিষয়ে তারা কোনো মন্তব্য করেনি। তাদের ওয়েবসাইটে উল্লেখ করেছে, প্রত্যেক প্রদর্শনীতে কারা অংশ নেবে সে সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা আমাদের মেরিন প্রাণিদের আছে এবং সে অনুযায়ী আমাদের পরিকল্পনা বদলে থাকে।

তবে তাদের প্রতিষ্ঠান যা প্রত্যক্ষ করেছে তার এর উল্টো বলে জানান ডেসা।

এলসিএর কানাডার একজন সদস্য ৩ ও ১৬ আগস্ট অনুষ্ঠিত মেরিনল্যান্ডের শো দেখেছিলেন। তার দাবি, ডলফিন ও বেলুগাসকে দর্শকদের সামনে পারফর্ম করানো হয়েছিল। সে সময় তারা এমন আচরণ করেছিল, যা তারা স্বাভাবিক নিয়মে করে না।

এ ঘটনার ছবি ও ভিডিও নায়াগ্রা রিজিয়নাল পুলিশকে সরবরাহ করা হয়েছে বলে জানান ডেসা।

সলিসিটর মন্ত্রণালয়ের অধীন দ্য অ্যানিম্যাল ওয়েলফেয়ার সার্ভিসেসের (এডব্লিউএস) পৃথক একটি তদন্তও চলমান রয়েছে। গত জুলাইয়ে দ্য কানাডিয়ান প্রেসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এডব্লিউএসের পরিদর্শকরা পর্যটন আকর্ষনে ব্যবহৃত সব সামুদ্রিক প্রাণি নিম্ন মানের পানির কারণে খারাপ অবস্থায় রয়েছে। এর দুই মাস পর এডব্লিউএস পরিদর্শকরা মেরিনল্যান্ডের পানি সরবরাহ ব্যবস্থা মেরামতের আদেশ দেন। ১৮ মে মেরিনল্যান্ড এ আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করে এবং প্রাণিরা খারাপ অবস্থায় নেই বলে দাবি করে। তাদের দাবি, পার্কে তিমির মৃত্যু পানির মানের সঙ্গে সম্পৃক্ত নয়।

 

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles