20 C
Toronto
রবিবার, আগস্ট ১৪, ২০২২

নাইট ক্লাবের ওপর থেকে ধারণক্ষমতার সীমা উঠছে না

- Advertisement -
অন্টারিও জনস্বাস্থ্য বিভাগের চিফ মেডিকেল অফিসার ডা. কিয়েরান মুর মঙ্গলবার বলেন, বাড়তি সতর্কতার অংশ হিসেবে এসব স্থানের ওপর থেকে ধারণক্ষমতার সীমা আপাতত প্রত্যাহার করা হচ্ছে না

যেসব স্থানে প্রবেশে ভ্যাকসিনেশনের পক্ষে প্রমাণপত্র প্রদর্শন বাধ্যতামূলক সেসব স্থানের ওপর থেকে ধারণক্ষমতার সীমা প্রত্যাহারের ওপর স্থগিতাদেশের মেয়াদ বাড়াচ্ছে অন্টারিও সরকার। গত মাস থেকে প্রদেশজুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

অন্টারিও জনস্বাস্থ্য বিভাগের চিফ মেডিকেল অফিসার ডা. কিয়েরান মুর মঙ্গলবার বলেন, বাড়তি সতর্কতার অংশ হিসেবে এসব স্থানের ওপর থেকে ধারণক্ষমতার সীমা আপাতত প্রত্যাহার করা হচ্ছে না।

এসব স্থানের মধ্যে আাছে নাইট ক্লাব, বিবাহ সংবর্ধনা, স্ট্রিপ ক্লাব, সেক্স ক্লাব ও বাথহাউজ। স্বাস্থ্যমন্ত্রী ক্রিস্টিন এলিয়ট এক বিবৃতিতে এ প্রসঙ্গে বলেন, অন্টারিওর সতর্কতার সঙ্গে মিল রেখে এবং জনস্বাস্থ্য ও মেডিকেল বিশেষজ্ঞদের কাছে ওমিক্রন সম্পর্কে বেশি তথ্য আসতে থাকায় কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কষ্টার্জিত সাফল্য ধরে রাখতে উন্মুক্তকরনের ওপর স্থগিাদেশের মেয়াদ ইচ্ছা করেই আমরা বাড়াচ্ছি।

সরকারের উন্মুক্তকরণ পরিকল্পনা অনুযায়ী, উচ্চ ঝুঁকির এসব স্থানের ওপর আরোপিত ধারণক্ষমতার সীমা ২০২১ সালের ১৫ নভেম্বর তুলে নেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কোভিড-১৯ এ আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে এর এক সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে তা স্থগিত করা হয়। কবে নাগাদ এসব স্থাপনার ওপর থেকে ধারণক্ষমতার সীমা প্রত্যাহার করা হবে সে ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট করে জানায়নি সরকার। শুধু বলেছে, গুরুত্বপূর্ণ জনস্বাস্থ্য ইউনিটগুলোর প্রবণতা ও ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের বিস্তারের বিষয়টিতে ঘনিষ্ঠ নজর রাখছে তারা।

বর্তমানে নাইট ক্লাব ও বাথহাউজগুলো ধারণক্ষমতার ২৫ শতাংশ বা ২৫০ জন প্যাট্রন যেটি কম হয় সেটি নিয়ে কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারে। স্ট্রিপ ক্লাবগুলো ধারণক্ষমতা অনুযায়ী চালু থাকতে পারে। তবে প্রত্যেককে দুই মিটারের শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।

উন্মুক্তকরণ পরিকল্পনায় ভ্যাকসিন সনদের শর্তে কিছু স্থাপনা যেমন রেস্তোরাঁ, জিম ও ক্যাসিনোর ওপর থেকে ধারণক্ষমতার সীমা ২০২২ সালের ১৭ জানুয়ারি থকে প্রত্যাহারের কথা রয়েছে। তবে এসব স্থাপনায় ধারণক্ষমতার সীমা আরও কিছুদিনের জন্য বহাল থাকবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ক্রিস্টিন এলিয়ট।

এদিকে এমন এক সময় এ ঘোষণা আসলো যখন অধিকাংশ জনস্বাস্থ্য ইউনিটে কোভিড-১৯ এ আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে। মঙ্গলবার প্রদেশে নতুন করে ৯২৮ জন কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়েছেন। এর ফলে সাতদিনের গড় দাঁড়িয়েছে ৯৭৫ জনে। আগের সপ্তাহে যা ছিল ৭৯৪। প্রদেশের কোভিড-১৯ সনাক্তের হারও ৩ দশমিক ৮ শতাংশে পৌঁছেছে। ৩১ মের পর থেকে যা সর্বোচ্চ।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles