15.3 C
Toronto
বুধবার, মে ২৫, ২০২২

সাড়ে ১১ লাখ খরচ করে সৌন্দর্য বাড়িয়েও খুশি নন মডেল! ফিরে পেতে চান পুরনো মুখ

- Advertisement -

 

সাড়ে ১১ লাখ খরচ করে সৌন্দর্য বাড়িয়েও খুশি নন মডেল! ফিরে পেতে চান পুরনো মুখ - The Bengali Times
ছবি: সংগৃহীত

প্রত্যেক মানুষই কিছু না কিছু নিজস্ব সৌন্দর্য নিয়ে পৃথিবীতে আসেন। কিন্তু প্রাকৃতিক সৌন্দর্য অনেকেরই পছন্দ হয় না। তখন মানুষ অভ্যন্তরীণ সৌন্দর্যের দিকে নজর না দিয়ে আজকাল বাহ্যিকভাবে নিজেকে সুন্দর করে তুলতে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু করে। যদিও শেষ পর্যন্ত অনেকের চেষ্টাই বৃথা যায়। কৃত্রিমভাবে সুন্দর-ই হন না, উল্টে প্রজন্মসূত্রে পাওয়া সৌন্দর্যও হারিয়ে ফেলেন। আবার কারও নতুন চেহারা মনের মতো হয় না।

- Advertisement -

এমন একটি ঘটনা ঘটেছে আমেরিকার এক মডেলের ক্ষেত্রে। মাত্র ২১ বছর বয়সেই সেই মডেল নিজের মুখে জনপ্রিয় বিউটি ট্রিটমেন্ট করিয়েও এখন আর নতুন চেহারা পছন্দ করছেন না। ক্যান্ডিস ক্লস নামের ওই মডেল গত ২ বছরের মধ্যে তার মুখের ওপর বেশ পরীক্ষা করেছেন। মুখের ফিলারের জন্য গুণে গুণে প্রায় সাড়ে ১১ লাখ টাকা ব্যয় করেছেন। কিন্তু অবশেষ ফলাফল দেখে খুশি হননি তরুণী। বরং ওই মডেলের মতে, তিনি তার পুরনো মুখ ভুলে গিয়েছেন এবং সেটিই ফিরে পেতে চান। খবর নিউজ এইটিনের।

খবরে বলা হয়, ক্যান্ডিস ক্লস মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক সিটির বাসিন্দা। নিজেকে পুতুলের মতো দেখতে চেয়েছিলেন ২১ বছর বয়সী এই মডেল। তবে সৌন্দর্যের প্রতি উন্মত্ততা থাকলেও বুদ্ধিমত্তাতে কিন্তু একেবারেই পিছিয়ে নেই ওই মডেল। ক্যান্ডিসের আইকিউ ১৩৭ এবং তিনি মেনসার সদস্য; যা বেশ জ্ঞানীদের ক্লাব হিসাবে পরিচিত। বুদ্ধিমত্তায় শীর্ষস্থানে থেকেও নিজেকে সুন্দর দেখাতে তিনি রীতিমতো পাগল হয়ে উঠেছিলেন। যার জন্য বিগত ২ বছরে তিনি মুখে সব ফিলার ব্যবহার করে ফেলেছে। প্রায় সাড়ে ১১ লাখ টাকা উড়িয়ে সম্পূর্ণ ভিন্ন এবং নকল চেহারা পেয়েছিলেন। কিন্তু তাতেও সন্তুষ্ট হননি। বরং কিছু দিন পর থেকে তার পুরনো চেহারাকেই মনে পড়তে থাকে। এমনকি এখন তিনি তার সিদ্ধান্তের জন্য অনুতপ্তও বটে।

প্রসঙ্গত, ইনস্টাগ্রামে ক্যান্ডিসের ৪২ হাজার ফলোয়ার রয়েছে, কিন্তু ক্যান্ডিস নিজেই এখন এই নকল চেহারায় ক্লান্ত। ক্যান্ডিস বলেছেন, তিনি এখন স্বাভাবিক হতে চান। ২০২১ সালে তিনি ঠোঁট, গাল ও চোয়ালে ফিলার নিয়েছিলেন, যা তার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যকে শেষ করে দিয়েছে। তিনি বুঝতে পেরেছেন যে এই কৃত্রিমতা আসলে তার মুখের ক্ষতি করেছে এবং শীঘ্রই তাকে বৃদ্ধ দেখাবে। তাই এখন ক্যান্ডিস তার ফিলার গলিয়ে পুরনো চেহারায় ফিরে আসার চেষ্টা করছেন।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles