20 C
Toronto
সোমবার, আগস্ট ১৫, ২০২২

মডেল বানানোর এ কেমন প্রতারণা?

- Advertisement -
প্রতীকী ছবি

টাকা দিলেই নাকি সুযোগ মেলে মডেলিং বা অভিনয়ের! হওয়া যায় নামিদামি ব্র্যান্ডের মডেল। অচেনা আইডি থেকে আশা এমন গায়েবি বার্তা পাচ্ছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেক তরুণ-তরুণী। এ ফাঁদে পড়ে নগদ টাকা খোয়াসহ বিভিন্ন প্রতারণার শিকার হচ্ছেন উঠতি বয়সী তরুণ-তরুণীরা।

২১ বছরের তরুণ রিজভী। ছোট থেকেই স্বপ্ন দেখতেন মিডিয়ায় কাজ করবেন। হবেন মডেল বা অভিনেতা। কিন্তু সাধ আছে সাধ্য নেই। মিডিয়ায় তেমন কেউ পরিচিত না থাকায় দুধের সাধ ঘোলে মেটাতেন টিকটকসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিভিন্ন ভিডিও বানিয়ে।

হঠাৎ একদিন ম্যাসেঞ্জারে অপরিচিত একটি আইডি থেকে রিজভীর কাছে আসে স্বপ্নপূরণের বার্তা। জানানো হয়, নামকরা এক মোবাইল ফোন কোম্পানির বিজ্ঞাপনের মডেল হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। বিস্তারিত যোগাযোগের জন্য দেওয়া হয় একটি ফোন নম্বরও।

সময় সংবাদকে রিজভী বলেন, আমার ম্যাসেঞ্জারে একটা টেক্সট আসে যে একটি বিজ্ঞাপনের জন্য মডেল হিসেবে আমাকে নির্বাচন করা হয়েছে। রাজি থাকলে তাদের দেওয়া নম্বরে যোগাযোগ করতে বলা হয়। আমি ফোনে যোগাযোগ করলে তারা কস্টিউমের খরচের জন্য ৫ হাজার টাকা বিকাশ করতে বলে। আমিও তেমন কিছু না ভেবে টাকাটা বিকাশ করে দেই। পরদিন হঠাৎ খেয়াল করলাম তাদের ফেসবুক আইডিটি ডিএক্টিভ করা। এরপর দ্রুত ফোন করতে গিয়ে দেখি নম্বরটিও বন্ধ। পরে একপর্যায়ে গিয়ে বুঝলাম আমি প্রতারিত হয়েছি।

শুধু রিজভীই নয়, মডেল বানানোর এমন বার্তা পেয়ে অনলাইনের মাধ্যমে এভাবেই প্রতারণার ফাঁদে পা বাড়াচ্ছেন অনেক তরুণ-তরুণী। কখনো কস্টিউমের খরচ, আবার কখনো বা রেজিস্ট্রেশনের নামে নানা কায়দায় গায়েবি ম্যাসেজ দিয়ে হাতিয়ে নেওয়া হচ্ছে টাকা। এরপর গায়েব হয়ে যায় যোগাযোগের সেই নম্বর বা ফেসবুক আইডিগুলো। আর টাকা হারিয়ে হতাশায় ভোগেন ভুক্তভোগীরা।

মিডিয়ায় যারা এখন প্রতিষ্ঠিত। অভিনয় কিংবা মডেলিংয়ের গুণে যারা মুগ্ধ করে রেখেছেন লাখো কোটি দর্শককে; এসব প্রতারণার গল্প শুনে অবাক হচ্ছেন তারা নিজেরাও। বলছেন, টাকা দিয়ে নয়, বরং অনেক সংগ্রামের পথ পাড়ি দিয়েই এ জায়গায় পৌঁছেছেন তারা। সেই সঙ্গে নতুনদের দিয়েছেন কিছু পরামর্শও।

এ প্রসঙ্গে অভিনেত্রী সালহা খানম নাদিয়া বলেন, এই বিষয়টা খুবই অগ্রহণযোগ্য। আমরা কখনো টাকা দিয়ে কাজ করিনি। কাজ করতে হলে আগে কাজ শিখতে হবে। অভিনয় করতে হলে অভিনয় শেখা জরুরি। আবার মডেলিং এর ইচ্ছা থাকলে গ্রুমিং করে নিজেকে প্রস্তুত করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, যারা টাকা দিয়ে মডেল হতে চাচ্ছেন তারা মূলত প্রতারণার ফাঁদে পা দিচ্ছেন। নাম না জানা ফেসবুক আইডি থেকে পাওয়া অফারে কেউ কোনো দিন মডেল হয়নি, সুযোগও পায়নি। কেউ যদি এ ধরনের প্রতারণার শিকার হয়েও থাকেন আমি অনুরোধ করব বিষয়টি আপনারা সবার সঙ্গে শেয়ার করুন। যাতে অন্যরা এই ফাঁদে আর পা না দেয়।

র‍্যাম্প মডেল ইমরান খান বলেন, আপনি কাজ করলে তারা আপনাকে টাকা দেবে। আপনি উলটো টাকা দিয়ে কাজ করবেন এমন কোনো সিস্টেমই এখানে নেই। কেউ যদি কাজের বিনিময়ে টাকা চেয়ে বশে তখনই সবার বুঝে নেওয়া উচিত কিছু একটা ঝামেলা আছে।

টাকা দিয়ে নয়, বরং মডেল নির্বাচন করা হয় যোগ্যতা ও কোয়ালিটি দিয়ে-এমনটাই জানাচ্ছেন দেশের নামিদামি বিজ্ঞাপন নির্মাতারা। তাদের মতে, সব কিছুরই একটা প্রক্রিয়া আছে। শুধু ফেসবুকে ছবি দেখে কখনোই বিজ্ঞাপনের জন্য মডেল নির্বাচন করেন না তারা।

বিজ্ঞাপন ও চলচ্চিত্র নির্মাতা অমিতাভ রেজা বলেন, আমি নিজেও ভুক্তভোগী। আমার নামে ফেসবুকে ফেক আইডি খুলে কাজের অফার দেওয়া হয়। টাকা চাওয়া হয়। যারা নতুন তাদেরকে বলব, আগে একটা পোর্টফোলিও করবেন। গুগলে গেলেই পোর্টফোলিওর নিয়ম পাওয়া যাবে। এই পোর্টফোলিও বিভিন্ন এজেন্সি, প্রোডাকশন হাউস, কাস্টিং ডিরেক্টরের কাছে জমা দেবেন। এরপর যদি তারা ডাকে তাহলে চিত্রনাট্য দেখে পছন্দ হলে স্ক্রিনটেস্টের জন্য লিখিত দেবেন। এই প্রক্রিয়ার বাইরে আর কোনো পন্থায় চেষ্টা না করার জন্য আমি সবাইকে অনুরোধ করব।

মডেল বানানোর এসব গায়েবি বার্তার ব্যাপারে সতর্ক করেছেন জনপ্রিয় বিজ্ঞাপন নির্মাতা আদনান আল রাজীবও।

তিনি বলেন, অভিনয় বা মডেলিংয়ের জন্য কখনোই আপনাকে টাকা দিতে হবে না। কেউ কাজে আগ্রহী থাকলে সরাসরি আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারে। এখন সব প্রোডাকশন হাউসেরই নির্ভরযোগ্য ফেসবুক পেজ আছে। এসব পেজের মাধ্যমে সিভি জমা দিতে পারে। কাস্টিং হেডের সঙ্গে কথা বলা যেতে পারে।

অভিনয় কিংবা মডেলিং জগতের প্রতি প্রায় সবারই কমবেশি আকর্ষণ থাকে। সেই আকর্ষণকে পুঁজি করে, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোকে কাজে লাগিয়ে, তরুণ-তরুণীদের ফেলা হচ্ছে নানা ফাঁদে। তাই মডেল বানানোর নামে আসা এসব ‘গায়েবি ম্যাসেজে’ গা না ভাসিয়ে সবারই উচিত সতর্ক হওয়া। সেই সঙ্গে সঠিক পথ জেনে সফল হওয়ার চেষ্টাও করা।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles