14.1 C
Toronto
রবিবার, মে ২৬, ২০২৪

মাতারবাড়ী বিদ্যুৎকেন্দ্র: দুটি পাইপ কাটারের দাম প্রায় ৯৩ লাখ টাকা

মাতারবাড়ী বিদ্যুৎকেন্দ্র: দুটি পাইপ কাটারের দাম প্রায় ৯৩ লাখ টাকা

গত ৯ জানুয়ারি চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে ৩৪৪ দশমিক ৫ কেজি ওজনের একটি ছোট চালান আমদানি করে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোল পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি বাংলাদেশ লিমিটেড (সিপিজিসিবিএল)। কক্সবাজারের মাতারবাড়ী বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য আনা এ চালানটির আমদানি মূল্য দেখানো হয় ২ দশমিক ৭৫ কোটি টাকা বা ২ লাখ ৫০ হাজার ৮৬৩ মার্কিন ডলার।

- Advertisement -

আমদানির দুইদিন পর ১১ জানুয়ারি কায়িক পরীক্ষায় দেখা যায়, জার্মানির তৈরি দুটি পাইপ কাটারের দাম ৯২ লাখ ৯৯ হাজার টাকা। একইভাবে একই জার্মান কোম্পানির দুটি হাতুড়ির দাম দেখানো হয়েছে ১ লাখ ৮২ হাজার টাকা।

এই ধরনের অস্বাভাবিক দাম দেখে বিভ্রান্ত হয়ে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ চালানটি আটকে দিয়ে সিপিজিসিবিএল ও পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ডের কাছে ব্যাখ্যা চায়। গত ৪ ফেব্রুয়ারি ইস্যুকৃত এরকম দুটি চিঠি গণমাধ্যমের হাতে আসে।

গত ২৭ মার্চ দাম পরীক্ষার জন্য জার্মান কোম্পানি কেএস টুলসের ওয়েবসাইট পরিদর্শন করে। ওয়েবসাইটটি দেখায়, একই মানের একটি পাইপ কাটারের দাম ৬০ দশমিক ২৭ ইউরো বা প্রায় ৭ হাজার ২৩২ টাকা। সে হিসাবে আমদানি মূল্য ৬৪২ গুণ বা ৬৪২০০ শতাংশ বেশি দেখানো হয়েছে।

কোম্পানিটির ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, আমদানি করা একটি হাতুড়ির দাম ১৩ দশমিক ৯ ইউরো বা ১ হাজার ৬৬৮ টাকা। আমদানি মূল্যে যার দাম ৫৫ গুণ বা ৫৫০০ শতাংশ বেশি দেখানো হয়েছে। কাস্টমস সূত্র জানায়, শুধু এই দুটি পণ্য নয়, এই চালানের ১৯টি পণ্যই অযৌক্তিক উচ্চমূল্যে আমদানি করা হয়েছে।

এনবিআরের নথিতে এসব পণ্যের আমদানি ব্যয় এনবিআরের সার্ভারের (আমদানি-রফতানি ডেটাবেস) রেকর্ড মূল্যের চেয়ে ৫ থেকে ১৮ হাজার ৫৪৫ গুণ বেশি দেখানো হয়েছে। এই ডেটাবেসটি মূলত আমদানি রফতানি মূল্যসহ বৈদেশিক বাণিজ্য সম্পর্কিত তথ্যের একটি সংরক্ষণাগার।

চালানটিতে থাকা অন্যান্য টুলসের মধ্যে রয়েছে সেট মেকানিক্যাল প্লায়ার, মাঙ্কি প্লায়ার, টুলবক্স, চিসেল অ্যান্ড স্পান্সার, স্প্যানার এবং কার ফিটার সেট। এসব পণ্য সরবরাহ করে জাপানের সুমিটোমো কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে কেএস টুলস ওয়ার্কজেউজ।

কাস্টমস কর্তৃপক্ষের কায়িক পরীক্ষার প্রতিবেদন অনুযায়ী, পাইপ কাটার টুলের দাম ডেটাবেস মূল্যের চেয়ে ১৮ হাজার ৫৪৫ গুণ, পাইপ রেঞ্চ ১ হাজার ৫৩ গুণ, মাঙ্কি প্লায়ারের দাম ৯১২ গুণ, স্ক্রু ড্রাইভারের দাম ৮৩৩ গুণ এবং হাতুড়ির দাম ১১২ গুণ বেশি।

চালানটিতে থাকা ১৯ ধরনের পণ্যের নমুনা, ছবি ও ক্যাটালগ দেখে জানা যায়, অন্যান্য আমদানিকারকরা গত ৯০ দিনে (২০২৩ সালের ১৬ অক্টোবর থেকে ২০২৪ সালের ১৫ জানুয়ারি) এসব পণ্যের অন্তত শতাধিক চালান খালাস করেছেন চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে।

আমদানি নথি বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, এ চালানে যেসব পণ্য আমদানি করা হয়েছে তা পাওয়ার প্ল্যান্টে সরাসরি ব্যবহার করা পণ্য নয়। এসব হ্যান্ড টুলস অবাধে আমদানিযোগ্য ও সব ধরনের নির্মাণ ও নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ কাজে ব্যবহার হয়।

একই ধরনের পণ্য আমদানি তথ্যের সঙ্গে তুলনা করলে সিপিজিসিবিএলের আমদানি ব্যয় অস্বাভাবিক। চট্টগ্রাম কাস্টমসের আমদানির ডেটাবেইজ অনুসারে, গড় শুল্কায়ন মূল্যের তুলনায় এসব পণ্যের আমদানি ব্যয় অন্তত ৫ গুণ থেকে ১৮ হাজার ৫৪৫ গুণ বেশি।

গত ২৮ ফেব্রুয়ারি যোগাযোগ করা হলে মাতারবাড়ী পাওয়ার প্ল্যান্টের প্রকল্প পরিচালক আবুল কালাম আজাদ বলেন, কাস্টমস অস্বাভাবিক দাম বললেও স্বাভাবিক দামই ধরা হয়েছে। বিশেষভাবে অর্ডার দিয়ে বানানোর কারণে দাম বেশি মনে হতে পারে।

একটি পাইপ কাটার যন্ত্রের দাম ৪৬ লাখ ৫ হাজার টাকা কীভাবে হয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, দুটি পাইপ কাটার বিদ্যুৎকেন্দ্রে ব্যবহারের জন্য “বিশেষ ধাতু” ব্যবহার করে তৈরি করা হয়েছে। সুতরাং, দাম বেশি হবে এটাই স্বাভাবিক।

সূত্র : ডেইলি বাংলাদেশ

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles