13.7 C
Toronto
মঙ্গলবার, এপ্রিল ১৬, ২০২৪

মুশতাক তার মেয়েকে দিয়ে তিশাকে কবজা করেছে, দাবি বাবার

মুশতাক তার মেয়েকে দিয়ে তিশাকে কবজা করেছে, দাবি বাবার
মুশতাক ও তিশা পাশের ছবিতে সাইফুল ইসলাম

খন্দকার মুশতাক আহমেদ ও সিনথিয়া ইসলাম তিশার বিয়ের খবর এখন বেশ পুরনো। তবে অমর একুশে বইমেলায় ‘তিশার ভালোবাসা’ নামে একটি বই প্রকাশ হয়েছে। এর পর থেকে আবার আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়।

গতকাল বুধবার দেশের জাতীয় একটি দৈনিকের ফেসবুক লাইভের মুখোমুখি হয়েছিলেন তিশার বাবা সাইফুল ইসলাম। যেখানে উঠে আসে নানা বিষয়।

- Advertisement -

বিয়ে প্রসঙ্গে তিশার বাবা বলেন, ‘এটাকে আমি বিয়ে বলি না। এটাকে বিয়ে বললে ভুল হবে। তাকে (তিশা) ব্ল্যাকমেইল করা হয়েছে। একটি অশ্লীল ভিডিওর মাধ্যমে জিম্মি করে তাকে বাধ্য করে কাবিননামায় স্বাক্ষর করানো হয়েছে। আমার মেয়ে তিশা মেডিকেল বোর্ডের সামনে জবানবন্দি দিয়েছে। সে বলেছে যে, তাকে ব্ল্যাকমেইল করা হয়েছে। অশ্লীল ছবি ও ভিডিও করে তাকে কাবিননামায় স্বাক্ষর করতে বলে। সে রাজি না হলে তাকে বলে এগুলো ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়া হবে, টিসি দিয়ে কলেজ থেকে বের করে দেওয়া হবে। সে (মুশতাক) কাবিননামায় স্বাক্ষর নিয়ে এখন এটাকে বিয়ে হিসেবে চালিয়ে দিয়েছে।’

সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘আমার মেয়ে যখন আইডিয়াল স্কুলের মুগদা শাখার দশম শ্রেণির ছাত্রী, তখন বিতর্ক প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠানে তার কুনজর পড়ে। তখন থেকেই সে (মুশতাক) আমার মেয়েকে আয়ত্ত্বে নেওয়ার চেষ্টা করে। এর অংশ হিসেবে তার মেয়ের সঙ্গে আমার মেয়ের পরিচয় করিয়ে দেয়। মুশতাকের মেয়ের নাম তন্মিমা। তার সঙ্গে আমার মেয়ের বন্ধুত্ব করায়। তারপর তার মেয়ের মাধ্যমে আমার মেয়ের পেছনে টাকা খরচ করতে থাকে।’

তিনি আরও বলেন, ‘মুশতাক এক দিন এক ছেলেকে ভাড়া করে। ভাড়া করা ওই ছেলের সঙ্গে আমার মেয়ের ছবি তোলায় মুশতাক। এভাবে অন্তত ১০/১২ জনের সঙ্গে আমার মেয়ের অশ্লীল ছবি তুলে সে। তারপর ওই ছবিগুলো দিয়েই তাকে ব্ল্যাকমেইল করে। বিয়ের কাবিননামায় স্বাক্ষর দিয়েছে মুশতাকের বাসার কাজের লোক।’

সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘মতিঝিল আইডিয়াল কলেজের রুমের মধ্যে আমার মেয়েকে কোলে নিয়ে নাচে মুশতাক। এই দায়ভার কলেজের প্রিন্সিপালও এড়াতে পারবে না। একটা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কীভাবে এসব কাজ হয়? মুশতাক প্রিন্সিপালের ভালো বন্ধু। তাই প্রিন্সিপাল থেকে সে সহযোগিতা নেয়। তখন প্রিন্সিপাল আমার মেয়েকে ক্লাস থেকে ডেকে নিয়ে যায় তার রুমে। এভাবেই আমার মেয়েকে তারা ফাঁসায়।’

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles