20.9 C
Toronto
বুধবার, জুলাই ২৪, ২০২৪

বিয়ে করেও বাঁচতে পারল না কলেজছাত্রী রেখা

বিয়ে করেও বাঁচতে পারল না কলেজছাত্রী রেখা
কলেজছাত্রী রেখা

উত্ত্যক্তের হাত থেকে রক্ষা পেতে বিয়ে করেছিলেন কলেজছাত্রী রেখা (১৮)। কিন্তু এতেও রক্ষা হয়নি। বিয়ের ১৯ দিনের মাথায় বুধবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে কুষ্টিয়ার হাউজিং এলাকার ভাগাড় থেকে তার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

রেখা কুমারখালী উপজেলার নন্দলালপুর ইউনিয়নের বাখই গ্রামের বাসিন্দা আব্দুর রহিম ব্যাপারীর মেয়ে এবং কুমারখালী মহিলা কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী। পারিবারিক সিদ্ধান্তেই ১৮ নভেম্বর পূর্বপরিচিত হাফিজুর রহমানের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। হাফিজুর রহমান একটি ওষুধ কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধি হিসাবে চাকরি করেন গোপালগঞ্জ জেলায়।

- Advertisement -

দিনমজুর ও ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ী আব্দুর রহিম ব্যাপারী (নিহতের বাবা) বলেন, ‘রেখা বুধবার সকাল ৯টায় কলেজে যাওয়ার উদ্দেশে বাড়ি থেকে বের হয়। বিকাল ৪টা পর্যন্ত বাড়ি ফিরে না আসায় আমরা খোঁজাখুঁজি শুরু করি। সব আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে খোঁজ করেও ওকে পাওয়া যায়নি। সন্ধ্যার পর সংবাদ আসে কুষ্টিয়া হাউজিং ই-ব্লকের ভাগাড়ে কম্বল মোড়ানো অবস্থায় রেখার লাশ পাওয়া গেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার বড় জামাই রূপালী ব্যাংকের গাড়িচালক আওলাদ হোসেনের চরম আপত্তি ও বিরোধিতা সত্ত্বেও পারিবারিক সিদ্ধান্তেই রেখাকে বিয়ে দেই। সে এ বিয়ে কোনো মতেই মেনে নিতে পারেনি। এ ঘটনায় আওলাদ খুব রেগে যায়। এমনকি রেখাকে বকাঝকাও করে। এখন কিসের থেকে কি হয়েছে তা আল্লাহ জানেন।’

রেখার স্বামী সাতক্ষীরা কালীগঞ্জের বাসিন্দা মৃত আব্দুল বারীর ছেলে হাফিজুর রহমান বলেন, প্রায় ১ বছর আগে ফোনকলের মাধ্যমে রেখার সঙ্গে আমার পরিচয়। এরপর ইমু ফোনকলের মাধ্যমেই যোগাযোগ হতো। চাকরি সূত্রে দূরে থাকায় সরাসরি দেখা-সাক্ষাতের কোনো সুযোগ ছিল না। বেশ কয়েক মাস পূর্বে রেখা জানায় তাকে বড় দুলাভাই আওলাদ হোসেন উত্ত্যক্ত করছেন। রেখার বয়স ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়ায় আমি অপেক্ষা করছিলাম।

কিন্তু উত্ত্যক্তের হাত থেকে বাঁচতে ‘ও’ আমাকে বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছিল। রেখার কথামতো জন্মনিবন্ধনে বয়স বাড়িয়ে কুষ্টিয়াতে নোটারি পাবলিক থেকে পারিবারিক হলফনামা করে বিয়ে সম্পন্ন করি। কিন্তু বিয়ের ১০ দিন পর রেখার বড় দুলাভাই আওলাদ হোসেন আমাদের বিয়ের ঘটনা জেনে যাওয়ার পর থেকেই চরম ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। তিনি রেখাকে নানাভাবে হুমকি-ধমকি দিতে থাকেন। শেষ পর্যন্ত বিষয়টি রেখা তার বাবা-মাকে এবং আমাকে জানায়।

রেখা বাড়ির সবাইকে বলে, আমার যখন বিয়ে হয়েই গেছে তখন আমি স্বামীর কাছে চলে গেলে তো আর কোনো সমস্যা থাকবে না। রেখার কথামতো আগামী সপ্তাহেই ‘ওকে’ তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় পরিবার। তার আগেই তো এই ঘটনা ঘটে গেল।

তবে অভিযোগের বিষয়ে আওলাদ হোসেন বলেন, রেখা ফোনে মেহেদী ও হাফিজুরসহ বিভিন্ন ছেলেদের সঙ্গে কথা বলত বলে আমি রাগারাগি করতাম। এছাড়া ওর বিয়ের বিপক্ষে বা বিরোধিতা করেছি এমন অভিযোগ সঠিক নয়। তবে ওদের বিয়ে কবে হয়েছে তা আমি জানি না বা আমি সেখানে উপস্থিতও ছিলাম না। রেখা যখন বাড়ি থেকে বেরিয়ে কলেজে যায় বা বিকালে বাড়ি ফিরেনি সে বিষয়ও আমার জানা ছিল না। ওই সময় আমি প্রতিদিনের মতো অফিসে ডিউটিতে ছিলাম।

বৃহস্পতিবার দুপুরে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে লাশের সুরতহাল প্রস্তুতকারী কুষ্টিয়া মডেল থানার উপপুলিশ পরিদর্শক আলমগীর হোসেন জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা যাচ্ছে পরিকল্পিতভাবে শ্বাসরোধে তাকে হত্যা করা হয়েছে। তবে মৃত্যুর সঠিক কারণ নির্ণয়ে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহেল রানা বলেন, কম্বল মোড়ানো এক নারীর লাশ পড়ে আছে-এমন সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এটি একটি হত্যাকাণ্ড। এ ঘটনায় এখনো কেউ অভিযোগ নিয়ে থানায় আসেনি। তবে যে বা যারা হত্যাকাণ্ডে জড়িত তাদের গ্রেফতার করা হবে।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles