27.5 C
Toronto
মঙ্গলবার, জুন ১৮, ২০২৪

অবৈধ আয়ে সমাজসেবা করলে কি সওয়াব হবে

অবৈধ আয়ে সমাজসেবা করলে কি সওয়াব হবে

দান-সদকার মাধ্যমে দানশীল ব্যক্তির সম্পদ পবিত্র হয় এবং তিনি বিপুল সওয়াবের মালিক হন। তবে শর্ত হলো, দান-সদকার সম্পদ বৈধ পথে আয় করতে হবে। হারাম উপার্জন থেকে দান-সদকা, জনকল্যাণ, ধর্মের সেবা বা সমাজসেবা করলে এর বিনিময়ে কোনো সওয়াব পাওয়া যাবে না। হাদিসে এ বিষয়ে স্পষ্ট নির্দেশনা এসেছে।

- Advertisement -

মহানবী (সা.) বলেন, ‘আল্লাহ তাআলা কেবল পবিত্র বস্তুই কবুল করেন। যে ব্যক্তি হালাল উপার্জন থেকে এক মুষ্টি খেজুরও দান করে, আল্লাহ তা নিজ হাতে গ্রহণ করেন। এরপর তা ওই ব্যক্তির জন্য পরিচর্যা করতে থাকেন—যেমন তোমাদের কেউ উটের বাচ্চার পরিচর্যা করে। ওই সামান্য পরিমাণ খেজুর বাড়তে বাড়তে এক সময় পাহাড় পরিমাণ হয়ে যায়।’ (বুখারি: ১৪১০; মুসলিম: ১০১৪)

প্রথমত অবৈধ পথে আয়ের অনুমতি দেয় না ইসলাম। তবে কেউ আয় করে ফেললে তা নিজের কাছে রাখার অনুমতি নেই; প্রকৃত হকদারের কাছে পৌঁছে দিতে হবে। হকদারের খোঁজ না পেলে তা দান-সদকার নিয়ত না করে জনকল্যাণে ব্যয় করে দিতে হবে। এতে ওই ব্যক্তির কোনো সওয়াব হবে না। কারণ অবৈধ আয়ে ভালো কাজ করলে তা আল্লাহর কাছে গ্রহণযোগ্য হয় না। রাসুল (সা.) এরশাদ করেন, ‘আল্লাহ তাআলা পবিত্রতা ছাড়া নামাজ কবুল করেন না এবং আত্মসাৎকৃত সম্পদের সদকা কবুল করেন না।’ (মুসলিম: ২২৪; তিরমিজি: ০১; নাসায়ি: ১৩৯)

অনেকে বলে, আগে বাছবিচার না করে আয় করে নিই, পরে হাতে প্রচুর টাকা–পয়সা এলে দান-সদকা ও ভালো কাজে ব্যয় করব—আল্লাহ ক্ষমা করে দেবেন এবং বিপুল সওয়াব দেবেন। এমন ধারণা হাদিসের শিক্ষার বিপরীত। ইবনে মাসউদ (রা.) বলেন, ‘বান্দা হারাম পথে উপার্জন করবে, এরপর তা থেকে আল্লাহর পথে খরচ করবে এবং তাতে বরকত দেওয়া হবে বা সে তা থেকে সদকা করবে এবং তা কবুল করা হবে—এমন ধারণা অমূলক। বরং ওই ব্যক্তি মৃত্যুর পর সেই সম্পদ রেখে গেলে তা তাকে আরও বেশি জাহান্নামের দিকে নিয়ে যাবে।…’ (আহমাদ: ৩৬৭২; বাজ্জার: ২০২৬)

অন্য এক হাদিসে এসেছে, আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) এরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি হারাম উপার্জন করবে, এরপর তা সদকা করবে—সেই সদকায় কোনো সওয়াব হবে না; বরং অবৈধ উপার্জনের গুনাহের বোঝা তার ঘাড়ে চেপেই থাকবে।’ (ইবনে হিব্বান: ৩২১৬; হাকিম: ১৪৪০)

ইবনে ওমর (রা.)-এর সময়ে বসরার আমির ছিলেন আবদুল্লাহ ইবনে আমের। তিনি রাজকোষ থেকে সম্পদ আত্মসাৎ করে তা গরিবদের মাঝে বিলিয়ে দিতেন, মসজিদ নির্মাণ বা জনকল্যাণমূলক কাজে ব্যয় করতেন। তিনি মৃত্যুশয্যায় উপনীত হলে লোকজন তাঁর চারপাশে ভিড় জমালো এবং তাঁর দান-দাক্ষিণ্য ও অনুগ্রহের প্রশংসা করতে লাগল।

তবে ইবনে ওমর (রা.) চুপ রইলেন। আবদুল্লাহ ইবনে আমের নিজেই তাঁকে দোয়া করার অনুরোধ করলেন। ইবনে ওমর (রা.) তাঁকে নবী (সা.)-এর একটি হাদিস স্মরণ করিয়ে দিয়ে বললেন, ‘আল্লাহ তাআলা আত্মসাতের সম্পদের সদকা কবুল করেন না। তুমি তো বসরা শহরেরই আমির ছিলে। অর্থাৎ আমি তোমার কর্ম সম্পর্কে ভালোভাবেই অবগত যে, তুমি বায়তুল মালের সম্পদ অন্যায়ভাবে গ্রহণ করতে। সুতরাং কীভাবে তোমার এসব দান-সদকা কবুল হবে? আর তোমার জন্য দোয়া করলে সেই দোয়া কীভাবে কবুল হবে?’ (মুসলিম: ২২৪; আহমাদ: ৪৭০০-৫৪১৯)

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles