8.8 C
Toronto
শুক্রবার, এপ্রিল ১২, ২০২৪

উপহার পাওয়া গাড়িতে বিনামূল্যে লাশ বহন করবেন হিরো আলম

উপহার পাওয়া গাড়িতে বিনামূল্যে লাশ বহন করবেন হিরো আলম

উপহার পাওয়া মাইক্রোবাসটিকে অ্যাম্বুলেন্সে রূপান্তরিত করে তাতে বিনামূল্যে রোগী ও মরদেহ বহনের কাজে ব্যবহার করবেন বলে ঘোষণা দিয়েছে আশরাফুল হোসেন ওরফে হিরো আলম। আজ মঙ্গলবার দুপুরে হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের নরপতি গ্রামে গাড়ি উপহারদাতা শিক্ষকের বাড়িতে এসে গাড়ি বুঝে নেন হিরো আলম। এ সময় তিনি এ ঘোষণা দেন।

- Advertisement -

হিরো আলমকে গাড়ি উপহার দিতে মঞ্চ সাজান গাড়ি উপহারদাতা শিক্ষক এম মখলিছুর রহমান। দুপুর পৌনে ৩টায় সেই মঞ্চে এসে ওঠেন হিরো আলম। পরে তিনি হিরো আলমের হাতে নোহা মাইক্রোবাসটির চাবি ও কাজগপত্র হস্তান্তর করেন।

এ সময় হিরো আলম বলেন, ‘সিলেটের মানুষ কথা দিলে কথা রাখে, আজ এম মখলিছুর রহমান তা প্রমাণ করেছেন। ভালোবাসতে গেলে একটা মন লাগে। করোর টাকা আছে মন নেই। আবার করোর মন আছে টাকা নেই। আমি প্রথমে বিশ্বাস করতে পারিনি মখলিছুর রহমান গাড়ি উপহার দেবেন। অনেকে তার লাইভ দেখে গালিগালাজও করেছেন। দেশ বিদেশ অনেকে আমাকে বলেছেন ভালোবেসে কেউ কোন কিছু উপহার দিলে নিতে হয়। তাই এ ভালবাসার জিনিসটা ভাল কাজে ব্যবহার করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘মখলিছুর রহমান নিজের ঘোষণা অনুযায়ী গাড়িটি উপহার দিয়ে বড় মানসিকতার পরিচয় দিয়েছেন। আমি এই গাড়িটিকে অ্যাম্বুলেন্সে রূপান্তরিত করব। সেটি দিয়ে দরিদ্র রোগী এবং দরিদ্র পরিবারের কেউ মৃত্যুবরণ করলে মরদেহ ব্যবহারের কাজে ব্যবহার করা হবে। ’

এম মখলিছুর রহমান জানান, তিনি সিলেট বিভাগবাসীর পক্ষ থেকে হিরো আলমকে গাড়িটি উপহার দিয়েছেন। এ সময় তার হাতে একটি সম্মাননা স্মারকও তুলে দেওয়া হয়। এ সময় হবিগঞ্জের জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক ও জনপ্রতিনিধিসহ নানা শ্রেণী-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে গত ৩১ জানুয়ারি ফেসবুক লাইভে এসে হিরো আলমকে গাড়ি উপহারের ঘোষণা দেন এম মখলিছুর রহমান। ফেসবুক লাইভে মখলিছুর বলেন, ‘হিরো আলম একসময় জিরো ছিলেন। জিরো থেকে তিনি হিরো হয়েছেন। হিরো আলম এখন সোনার টুকরা। দুই আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন। বগুড়ার মানুষ জানের চাইতে তাকে বেশি ভালোবাসেন। তিনি বগুড়ার মানুষের মন জয় করে নিয়েছেন। নির্বাচনে ফল যেটাই আসুক না কেন, সিলেট বিভাগের পক্ষ থেকে গাড়িটি তাকে উপহার দিতে চাই।’

গত ১ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনের উপনির্বাচনে একতারা প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে মাত্র ৮৩৪ ভোটে পরাজিত হন হিরো আলম। তিনি অভিযোগ করেছেন, ভোটের ফলে কারচুপি করে তাকে হারিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সূত্র : আমাদের সময়

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles