-1.3 C
Toronto
রবিবার, জানুয়ারী ২৯, ২০২৩

লক্ষাধিক টাকার কাছে সন্তান যেন তুচ্ছ

লক্ষাধিক টাকার কাছে সন্তান যেন তুচ্ছ

লক্ষাধিক টাকার লোভনীয় প্রস্তাব অগ্রাহ্য করতে পারেনি পাষণ্ড পিতা। কেউ বলছে জুয়ার টাকার জন্য, আবার কেউ বলছে অভাবের তাড়নায় দেড় মাসের পুত্র সন্তানকে বিক্রি করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে জন্মদাতা পাষণ্ড পিতার বিরুদ্ধে।

- Advertisement -

তবে ঘটনার ২৪ ঘণ্টা না পেরুতেই বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে শিশুটি উদ্ধার করে তার মায়ের কোলে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। যদিও ঘটনার পর থেকে পাষণ্ড পিতা পলাতক রয়েছে।

এর আগে বুধবার চট্টগ্রামের হাটহাজারী পৌরসভা এলাকার আলীপুর গ্রামের ৪নং ওয়ার্ড মদিনা আবাসিকের সামনে একটি কলোনীতে চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটে। ওই দিন সকাল ৯টার দিকে শিশুটির পাষণ্ড পিতা তার সন্তানকে এক লক্ষ ১০ হাজার টাকার বিনিময়ে মেডিকেল গেট এলাকায় এক মহিলার কাছে বিক্রি করে দিয়েছিল।

উক্ত ঘটনায় অভিযুক্ত পাষণ্ড পিতার নাম মো. হুমায়ুন। সে পেশায় একজন ভাঙ্গারী ব্যবসায়ী। তার গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনায়। তার পিতার নাম মৃত করম আলী। তবে সে পৌরসভা এলাকার আলীপুর গ্রামের ৪নং ওয়ার্ড মদিনা আবাসিকের সামনে একটি কলোনীতে তার দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে বাসা ভাড়ায় থাকতো। তার দেড় মাস বয়সী সন্তানটির নাম মো. মাসুম। শিশু মাসুম তার দ্বিতীয় স্ত্রীর একমাত্র পুত্র সন্তান বলে জানা গেছে।

এদিকে, ঘটনার সন্তানকে ফিরে পেতে বুকফাটা আর্তনাদে ফেটে পড়েন ওই হতভাগা ছেলের মা মর্জিনা বেগম (৩২)। মায়ের আহাজারিতে আকাশবিদীর্ণ আওয়াজ কোনোভাবেই বন্ধ হচ্ছে না। হ্নদয় বিদারক ঘটনাটির খবরে স্থানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে শিশুটিকে তার মায়ের কোলে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

গর্ভধারিণী মা মর্জিনা বেগম অশ্রুসিক্ত নয়নে গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, আমার দেড় মাস বয়সী ছেলে সন্তানকে আমার স্বামী ১ লাখ ১০ হাজার টাকায় জন্য বিক্রয় করে দিয়েছে। এর আগেও তিনি তার আরেক বউয়ের শিশু সন্তানকে ১ লাখ ৪৫ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেয়। আজ সকালে স্থানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে আমার কলিজার ধনকে ফিরে পেয়েছি। ঘটনাটি বিবরণ করতে বারবার অজ্ঞান হচ্ছেন তিনি।

স্থানীয়রা জানান, জুয়ার টাকা জোগান দিতে যে বাবা তার সন্তানকে বিক্রি করতে পারে, সে অন্যের বাচ্চাকেও বিক্রি করতে দ্বিধাবোধ করবেনা। এনিয়ে এলাকায় আতঙ্ক ও তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। আশপাশের বাবা মায়েরা তাদের সন্তান নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে জানান তারা।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শাহিদুল আলম বলেন, আপন জন্মদাতা পিতা তার সন্তানকে টাকার জন্য বিক্রি করে দিযেছে। এটা আসলে খুবই দুঃখজনক ও হৃদয়বিদারক ঘটনা। বিষয়টি নিয়ে আমরা অনেক কাজ করেছি। অবশেষে বাচ্চাটি তার মায়ের কোল ফিরে পাওয়ায় আমরা সকলেই আনন্দিত।

সূত্র : যুগান্তর

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles