10.6 C
Toronto
শনিবার, অক্টোবর ১৬, ২০২১

মহামারীতে নির্বাচন হলে তা হবে একেবারে ভিন্ন

কানাডিয়ানদের ভোটাধিকার প্রয়োগে বিদেশিরা হস্তক্ষেপ করতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে ফেডারেল সাইবার নিরাপত্তা সংস্থা কমিউনিকেশন্স সিকিউরিটি এস্টাবলিশমেন্ট। সংস্থাটির তথ্য অনুযায়ী, ২০১৫ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত নির্বাচনকে ঘিরে সাইবার অপরাধ বিশ্বব্যাপীই বেড়ে যায়। তবে এর পর থেকে খুব একটা বাড়তে দেখা যায়নি। হুমকিগুলো এখন আগের চেযে অনেক সূচারু হয়েছে। কমিউনিকেশন্স সিকিউরিটি এস্টাবলিশমেন্টের গত শুক্রবার প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কোভিড-১৯ মহামারির মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে বিদেশি হস্তক্ষেপের আশঙ্কা বেড়ে যেতে পারে। কারণ, নির্বাচনের অনেক আয়োজনই অনলাইনেই সারতে হবে।

তবে ইলেকশন্স কানাডার ওপর আস্থা প্রকাশ করে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নির্বাচনী ব্যবস্থার কোনো ধরনের পরিবর্তনের ফলে সাইবার হুমকির ঝুঁকি রয়েছে। তবে আমাদের মূল্যায়ন হলো পরিকল্পিত পরিবর্তন কানাডার গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় উল্লেখ করার মতো কোনো সাইবার হুমকি হবে না।

কমিউনিকেশন্স সিকিউরিটি এস্টাবলিশমেন্ট এমন এক সময় প্রতিবেদনটি সামনে আনলো যার কয়েক সপ্তাহ পরই প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো নির্বাচনের ঘোষণা দিতে পারেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। সেটা হলে ২০১৯ সালের পর দ্বিতীয়বারের মতো ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে যাচ্ছেন। তবে নির্বাচন যদি হয় তাহলে মহামারির কারণে তা হবে একেবারে ভিন্ন। করণ, কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ রোধে নির্বাচন সংক্রান্ত অনেক কাজ ও প্রক্রিয়া অনলাইনে করার প্রয়োজন পড়বে।

তবে বিশেষ একটি ক্ষেত্র নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে কমিউনিকেশন সিকিউরিটি এস্টাবলিশমেন্ট। সেটা হলো মহামারির কারণে অনেক বেশি সংখ্যক ভোটার মেইলের মাধ্যমে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন এবং নির্বাচনের ফলাফলের বিশ্বাসযোগ্যতা প্রশ্নবিদ্ধ করতে এটাকেই সুযোগ হিসেবে কাজে লাগাতে পারে বিদেশিরা। এছাড়া মেইলে ভোট দেওয়া সংক্রান্ত বিভিন্ন ভুয়া তথ্যও ছড়াতে পারে। তবে সেটা যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনের মতো অতো বেশি হারে হবে না বলেই মনে করছে কমিউনিকেশন্স সিকিউরিটি এস্টাবলিশমেন্ট।

- Advertisement - Visit the MDN site

Related Articles

- Advertisement - Visit the MDN site

Latest Articles