5.8 C
Toronto
মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২২

প্রথম শ্রেণির কয়েদির মর্যাদা চান ডা. সাবরিনা

প্রথম শ্রেণির কয়েদির মর্যাদা চান ডা. সাবরিনা

করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষায় প্রতারণার মামলায় কারাদণ্ডপ্রাপ্ত ডা. সাবরিনা চৌধুরী প্রথম শ্রেণির কয়েদির মর্যাদা চেয়ে আবেদন করেছেন। দুটি জাতীয় পরিচয়পত্র নেওয়ার প্রতারণার মানলায় আজ বৃহস্পতিবার তার পক্ষে আইনজীবী প্রণব কুমার কান্তি এ আবেদন করেন।

- Advertisement -

ঢাকার অ্যাডিশনাল চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেন ২২ নভেম্বর শুনানির দিন ঠিক করেছেন। সেদিন সাবরিনাকে আদালতে হাজির করতে কারা কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদালতের সাধারণ নিবন্ধন শাখার কর্মকর্তা, বাড্ডা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রণপ কুমার।

২০২০ সালের ৩০ আগস্ট ডা. সাবরিনার বিরুদ্ধে এ মামলাটি দায়ের করেন গুলশান থানা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ মমিন মিয়া। এ মামলায় ২০২০ সালের ২২ নভেম্বর জামিন পান সাবরিনা।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, বর্তমানে সাবরিনার দুটি এনআইডি কার্ড সক্রিয়। পরে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) বিস্তারিত জানতে ইসির কাছে তথ্য চেয়েছে। সাবরিনা ২০১৬ সালের ভোটার তালিকা হালনাগাদের সময় দ্বিতীয়বার ভোটার হন। তিনি প্রথমে ভোটার হন সাবরীনা শারমিন হোসেন নামে।

একটিতে জন্ম তারিখ দেওয়া ১৯৭৮ সালের ২ ডিসেম্বর। অন্যটিতে ১৯৮৩ সালের ২ ডিসেম্বর। প্রথমটিতে স্বামীর নাম হিসেবে ব্যবহার করেছেন আর এইচ হক। আর দ্বিতীয়টিতে স্বামীর নাম লেখা হয়েছে আরিফুল চৌধুরী।

গত ১৯ জুলাই করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা নিয়ে প্রতারণার মামলায় জেকেজি হেলথ কেয়ারের শীর্ষ কর্মকর্তা ডা. সাবরিনা চৌধুরী ও তার স্বামী আরিফুল হক চৌধুরীসহ আট আসামিকে পৃথক তিন ধারায় ১১ বছর করে কারাদণ্ড দেন আদালত। দণ্ডপ্রাপ্ত হয়ে এ মামলায় কারাগারে রয়েছেন সাবরিনা।

সূত্র : আমাদের সময়

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles