5.6 C
Toronto
মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২২

ত্রিভুজ প্রেমের বলি রুমীর শেষ কথা : ‘আমাকে ক্ষমা করে দিয়ো’

ত্রিভুজ প্রেমের বলি রুমীর শেষ কথা : ‘আমাকে ক্ষমা করে দিয়ো’
প্রতীকী ছবি

‘তোমরা আমাকে ক্ষমা করে দিয়ো। আমার জীবনে অনেক বড় একটা ভুল করে ফেলেছি। আমি যাকে আমার জীবনের সব ভালোবাসা দিয়েছি, সে আমার সাথে বেঈমানি করেছে। আর যাকে সব থেকে কাছের বন্ধু ভেবেছি, সে আমাকে ধোঁকা দিয়েছে।

আমি শিমুলকে অনেক ভালোবাসি। ওর সাথে একটু ঝগড়া লাগছিল। তার জন্য ও আমাকে ছেড়ে সুমীকে (ছদ্মনাম) নিয়ে চলে গেছে। আমি এতটা কষ্ট সহ্য করতে পারব না। তোমরা আমাকে ক্ষমা করে দিয়ো। ‘
নিজ ডায়েরিতে মা-বাবার কাছে এ কথাগুলো লিখে জীবন ছেড়ে পালিয়েছে দশম শ্রেণির স্কুলছাত্রী রুমী আক্তার। বেদনাদায়ক ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার (১২ নভেম্বর) রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের মোল্লারপাড়া গ্রামে। বসতঘরের ভেতর থেকে ওই ছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার ও তার লেখা ডায়েরিটি জব্দ করেছে পুলিশ।

- Advertisement -

ত্রিভুজ প্রেমের গল্পটি মর্মান্তিক। গ্রামের কৃষক বদর উদ্দিন প্রামাণিকের মেয়ে রুমী আক্তার (১৬)। পড়াশোনা করত স্থানীয় সাহাজদ্দিন মণ্ডল ইনস্টিটিউটে। রাজবাড়ী সদর থানার কোলারহাট এলাকার শিমুল নামের এক তরুণের সঙ্গে প্রতিদিন মোবাইল ফোনে কথাবার্তা হতো তার। রুমীকে ভালোবেসে বিয়ে করে ঘর বাঁধার স্বপ্ন দেখায় শিমুল। রুমীর সহপাঠী বান্ধবী সুমী। শিমুল ও সুমী দুজনকে গতকাল থেকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তারা দুজনের প্রেমের টানে ঘর ছেড়েছে। আজ স্বেচ্ছায় মৃত্যুর আগে দুজনের প্রতি বিশ্বাস ভঙ্গের অভিযোগ করে রুমী।

মোবাইল নম্বর উল্লেখ করে ওই ছাত্রী তার ডায়েরিতে আরো লিখেছে, ‘শিমুলের ঠিকানা কোলাারহাট, আর সুমীর হামিদ মৃধার হাট। ‘ আমার এই মৃত্যুর কারণ শুধু ‘শিমুল’ আর ‘সুমি’। আমি তোমাদের ছেড়ে চলে যাচ্ছি। প্লিজ মা, তুমি ওদের কঠিন থেকে কঠিনতম শাস্তির ব্যবস্থা করো। না হলে তোমার আদরের মেয়ে মাটির নিচেও শান্তি পাবে না। শিমুলের সঙ্গে আমার যত কথা আছে, সব আমার ফোনে রেকর্ড করা আছে। ‘

জানা যায়, রুমী-শিমুলের প্রেমের সম্পর্কের সব কথা জানত সুমী। প্রিয় বান্ধবীর কাছে মন খুলে প্রেমের সম্পর্কের সব কথাই বলত রুমী। একপর্যায়ে রুমীর পাশাপাশি তার বান্ধবীর সঙ্গেও গোপন প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে শিমুল। এ অবস্থায় গত শুক্রবার সকালে প্রেমিকা রুমীকে ছেড়ে অপর প্রেমিকাকে নিয়ে পালায় প্রেমিক শিমুল। এ কথা জেনে মানসিকভাবে ভেঙে পড়ে রুমী। পারিবারিক সূত্র মতে, শনিবার বসতঘরের ভেতর থেকে রুমী আক্তারের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার ও ঘরের মেঝেতে পড়ে থাকা রুমীর লেখা ডায়েরি জব্দ করে পুলিশ।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমার মজুমদার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘স্কুলছাত্রী রুমী আক্তারের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশটি রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ’

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles