4.1 C
Toronto
শনিবার, ডিসেম্বর ৩, ২০২২

২১ দিনের শিশুর পেটে ৮টি ভ্রূণ; অতঃপর…

২১ দিনের শিশুর পেটে ৮টি ভ্রূণ; অতঃপর…

বয়স মাত্র ২১ দিন। জন্মের পর পেট ফুলে গিয়েছিল। এতে চিন্তায় পড়ে যায় ওই শিশুর পরিবার। টিউমার ভেবে একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়েছিল শিশুকে। কী হয়েছে জানতে চিকিৎসকরা বাধ্য হন অস্ত্রোপচার করতে। কিন্তু অস্ত্রোপচারের পর যা মিলল, তা দেখে চক্ষু চড়ক গাছ। ২১ দিনের শিশুর পেটে মিলল ৮টি ভ্রূণ।

- Advertisement -

ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের ঝাড়খণ্ডে। ওই রাজ্যের রাজধানী রাঁচির স্বনামধন্য শিশু হাসপাতাল ‘রানি হাসপাতালে’ ওই শিশুর অস্ত্রোপচার হয়। এই ঘটনায় ইতোমধ্যে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে।

হাসপাতালের চিকিৎসক মুহাম্মদ ইমরান সংবাদসংস্থা পিটিআই-কে জানিয়েছেন, ভ্রূণগুলোর আকার তিন সেন্টিমিটার থেকে পাঁচ সেন্টিমিটার পর্যন্ত। সেগুলো পেটের একটি সিস্টের মধ্যে ছিল। চিকিৎসকদের পরিভাষায় একে বলা হয় ‘ফেটাস ইন ফিটু’। ন্যাশনাল লাইব্রেরি অবমেডিসিনের একটির জার্নাল অনুসারে, যমজ সন্তানদের ক্ষেত্রে এই ঘটনা লক্ষ্য করা যায়। এক্ষেত্রে একটি শিশুর মধ্যেই অন্য শিশুর ভ্রূণ বাড়তে থাকে। তবে, বেশি বাড়তে পারে না। প্রথম শিশুটির জন্মের পর তার পেটে সেই ভ্রূণের খোঁজ মেলে।

এখনও পর্যন্ত পাওয়া কাগজপত্র এবং জার্নাল অনুসারে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে একটি ভ্রূণ রিপোর্ট করা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত আটটি ভ্রূণের ঘটনা রিপোর্ট করা হয়নি বলে দাবি করেন চিকিৎসক ইমরান। ‘ফেটাস ইন ফিটু’ খুবই বিরল এবং প্রতি পাঁচ লাখে একজনের ক্ষেত্রে এই ধরনের ঘটনা ঘটে বলে দাবি করেছেন ওই চিকিৎসক।

রাঁচির ওই বেসরকারি হাসপাতালের প্রধান রাজেশ সিং সংবাদসংস্থা পিটিআইকে জানান, জন্মের ২১ দিনের মাথায় শিশুটিকে ভর্তি করা হয়েছিল। তার শরীরে একটি সিস্ট ধরা পড়ে। এটি ডায়াফ্রামের নীচে অবস্থিত ছিল। গত ১ নভেম্বর অপরাশেন করা হয়। তারপর সিস্টের ভিতরে আটটি ভ্রূণ পাওয়া যায়।

সফল অস্ত্রোপচারের পর শিশুটির বর্তমান অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে বলে জানান রাজেশ। শিশুটিকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে তাকে ছেড়ে দেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন রাঁচির বেসরকারি হাসপাতালের চিকিৎসক। তিনি বলেন, যেহেতু এটি একটি বিরলতম ঘটনা, তাই আন্তর্জাতিক জার্নালে প্রকাশের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, গত ১০ অক্টোবর ঝাড়খণ্ডের রামগড় জেলার একটি সরকারি হাসপাতালে শিশুটির জন্ম হয়েছিল। জম্মের পর তার পেটে একটি মাংস পিণ্ড খুঁজে পান চিকিৎসকরা এবং অবিলম্বে সেটি অপারেশন করার জন্য অভিভাবকদের পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল। কারণ মাংস পিণ্ডটি অপারেশন না করালে, ভবিষ্যতে সমস্যা তৈরি হতে পারে বলে আশঙ্কার কথা জানিয়েছিলেন রামগড়ের ওই সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকরা।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles