8.6 C
Toronto
বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২

১২ মিলিয়ন ডলার মূল্যের মাদক জব্দ

- Advertisement -
ফাইল ছবি

পিল রিজিয়নের তদন্তকারীরা ১ কোটি ২০ লাখ মূল্যমানের অবৈধ মাদক জব্দ করার কথা জানিয়েছেন। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে চারজনের বিরুদ্ধে ডজনখানেক অভিযোগ আনা হয়েছে।

পুলিশ বলছে, প্রজেক্ট ওয়ারিয়র নামে তদন্ত ২০২১ সালের জুনে শুরু হয়। সে সময় গ্রেটার টরন্টো এরিয়াজুড়ে বিপুল পরিমাণ মাদক চোরাচালানে জড়িত ব্র্যাম্পটন ও মিসিসোগার শক্তিশালী চক্রের সন্ধান করতে থাকেন তাঁরা।

সার্জেন্ট ক্রিস ফিওরে সংবাদ সম্মেলনে বলেন, তদন্তকারীরা বেশ কয়েকজনকে সনাক্ত করতে সক্ষম হন, যারা বিভিন্ন স্থানে অবৈধ মাদক মজুদ করছিল।

২০২১ সালের নভেম্বরে অন্টারিওর কনকর্ডের একটি গুদামে তল্লাশি চালান তদন্তকারীরা। সেখান থেকে তারা ৪০ কিলোগ্রাম বেঞ্জিমিডাজোল আইসোটোনাইটেজেন উদ্ধার করেন। এটা ফেনটানিলের মতো হলেও এর চেয়েও বেশি শক্তিশালী। ওই তল্লাশিতে ৬ দশমিক ৩ কিলোগ্রাম মেথামফেটামিন, ১০ দশমিক ৭ কিলোগ্রাম জানাক্স এবং সাত কিলোগ্রাম ফেনটানিলও জব্দ করেন তারা।

পুলিশ বলছে, ১৭ জুন ও ৬ জুলাই অন্টারিওর ইটোবিকোক ও ক্লেইনবার্গে আরও দুটি তল্লাশিও পরিচালনা করে তারা। তল্লাশিতে ইটোবিকোক থেকে ৭ দশমিক ৬ কিলোগ্রাম এমডিএমএ, ৩ দশমিক ৭ কিলোগ্রাম কোকেন এবং ৬ দশমিক ৬ কিলোগ্রাম মেথামফেটামিন জব্দ করা হয়। ৯ কিলোগ্রাম এমডিএমএ জব্দ করা হয় ক্লেইনবার্গ থেকে। এছাড়া ৬ জুলাই নর্থ ইয়র্কের একটি স্থানেও তল্লাশি চালান তদন্তকারীরা। সেখান থেকে তাঁরা ১২০ গ্রাম সাইলোসিবিন, ৫০টি জানাক্স বড়ি, ১২ দশমিক ৫ গ্রাম কোকন এবং ১৯ হাজারের বেশি নগদ কানাডিয়ান মুদ্রা উদ্ধার করেন।

পুলিশের ভাষ্যমতে, জব্দ করা এ মাদকের বাজারমূল্য ১ কোটি ২৪ লাখ ২৫ হাজার ১৩ ডলার। পিল পুলিশের উপ-প্রধান নিক মিলিনোভিচ একে ওপিয়ড সংকটের মুখোমুখি কমিউনিটির জন্য বিরাট অর্জন বলে আখ্যায়িত করেন। তিনি বলেন, এর অর্থ হলো ১ কোটি ২০ লাখ ডলার মূল্যের ভয়াবহ এ মাদক এখন আর রাস্তায় নেই। এটা চোরাচালানও হবে না। স্বাস্থ্য সংকট নিয়ে যারা সমস্যায় আছেন তাদের মধ্যে এগুলো আরও বিনিময়ও হবে না।

তিনি বলেন, ৩১ জুলাই পর্যন্ত মাদকের মাত্রাতিরিক্ত ডোজের কারণে পিল রিজিয়নে ৭১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর ৮০ শতাংশ ওপিয়ডের সঙ্গে সম্পর্কিত। ২০২১ সালে মাত্রাতিরিক্ত মাদকের কারণ মৃত্যু হয়েছিল ১৯১ জনের, ২০২০ সালে যেখানে সংখ্যাটি ছিল ১৮৬। ২০২১ সালে মাত্রাতিরিক্ত মাদকের কারণে মৃত্যুর কমপক্ষে ৮৮ শতাংশ এবং ২০২০ সালে ১১ শতাংশ ওপিয়ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত।

Related Articles

Latest Articles