8.6 C
Toronto
বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২

কানাডা প্রবাসীদের প্রতি অনুরোধ

- Advertisement -
কানাডায় নিযুক্ত বাংলাদেশ হাই কমিশনার

ঢাকা পোষ্ট অনলাইন পোর্টালের বরাতে কানাডায় নিযুক্ত বাংলাদেশ হাই কমিশনার সাহেবের একটি বিবৃতি দেখতে পেলাম আজ। যেখানে তিনি বৈধপথে রেমিট্যান্স পাঠাতে কানাডা প্রবাসীদের অনুরোধ করেছেন। এই অনুরোধটা করার দরকার হলো কেন? তাহলে কি বৈধ পথে রেমিট্যান্স যাচ্ছে না? যদি না যায়, কেন যাচ্ছে না? কী কী প্রতিবন্ধকতা আছে সেগুলো নিয়ে কি কখনো কোন দায়িত্বশীল দুতাবাস কর্মকর্তা বা কোন হাইকমিশনার কখনো প্রবাসীদের কাছে জানতে চেয়েছেন?

প্রবাসীদের সুখ দুঃখ কিসে, কেমন আছেন তারা, কেউ কখনো খোঁজ নিয়েছেন? কমপক্ষে দুতাবাস সংশ্লিষ্ট বিষয়ে প্রবাসীদের সেবার মান, সুযোগ সুবিধা, সহযোগীতা, হয়রানি, পাসপোর্ট নবায়ন, নো ভিসা পাওয়া নিয়ে তাদের কথা শোনা বা তাদের সংগে নিবিড় সম্পর্ক তৈরী করতে আমার বিগত ২৫ বছরের কানাডার প্রবাস জীবনে কখনো দেখেছি বলে মনে পড়ে না।

অবশ্য প্রায় সকল সরকারের সময়েই যেটা দেখছি তা হলো বিভিন্ন জাতীয় দিবসগুলোতে দলীয় আনুগত্যের কারণে কিছু নির্দিষ্ট মুখচেনা বিশেষ কিছু লোকজনের সাথে দুতাবাসের সখ্যতা ও সে অনুযায়ী দাওয়াত, আলোচনা, ভাব বিনিময় ইত্যাদি হয়ে থাকে। ফলে একটা বিশাল সংখ্যক বলা যায় শতকরা নব্বই ভাগ প্রবাসীদের সাথে দুতাবাস বা কনসুলেট অফিসের কোন যোগাযোগ থাকে না, তাদের পালস তারা বুঝতে পারেন না। এ বিষয়ে অনেক কথা বলতে পারি কিন্তু বলাটা উচিত হবে না। কারণ আমি চাই দুতাবাস অতীতের ভুল সংশোধন করে গণসম্পৃক্ত হোক, আরো বেশী ক্যাচালে জড়িত না হোক।

তবে একটা কথা হলো, কর্তাকে খুশী করতে যা যা করা দরকার তা করা এক জিনিষ, আর জনসেবা করা, জনগণের টাকায় পাওয়া বেতন হালাল করা অন্য জিনিষ।

আমিও চাই সকল প্রবাসী বৈধ পথে দেশে রেমিটেন্স পাঠাক, কিন্তু সেটা শুধু ক্রাইসিস মুহুর্তে নয়, সকল সময়ে। তা নিশ্চিত করতে হলে লোক দেখানো ফরমালিটিস নয়, বাস্তব পদক্ষেপ নিতে হবে। সেই পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করতে দেশের স্বার্থে সকল ধরনের সহযোগীতা করতে আমি এবং আমরা প্রস্তুত আছি। সেই সহযোগীতা আপনারা নিতে রাজী আছেন কি?

 

Related Articles

Latest Articles