25.5 C
Toronto
সোমবার, আগস্ট ৮, ২০২২

‘আজকে আমার মন খুব ভালো’

- Advertisement -
‘আজকে আমার মন খুব ভালো’
মেহের আফরোজ শাওন

বাংলাদেশের বুকে সবচেয়ে বড় অবকাঠামোর নাম পদ্মা সেতু। এই সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়েছিলেন দেশের জনপ্রিয় অভিনেত্রী, নির্মাতা ও গায়িকা মেহের আফরোজ শাওন।

গত রোববার (২৬ জুন) ভোর ৬টা থেকে যানবাহন চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হলে সঙ্গীদের নিয়ে পদ্মা সেতুতে ঘুরতে যান শাওন। এ সময় বেশ কিছু ছবিও তুলেন তিনি। এদিন রাতে সেখান থেকে কয়েকটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে শাওন লিখেছেন, ‘আজকে আমার মন (খুউউউব) ভালো। আমাদের পদ্মা সেতু। জয় বাংলা।’ ছবিতে তাকে বেশ উচ্ছ্বসিত দেখাচ্ছে।

এর আগে শনিবার (২৫ জুন) দীর্ঘ এক স্ট্যাটাসে শাওন জানান, ‘স্বাধীনতার পর এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অর্জন পদ্মা সেতু। স্বাধীনতা পরবর্তী প্রজন্মের এই আমরা ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ এর ইতিহাসের সাক্ষী হতে পারিনি। কিন্তু আজ স্বাধীনতার ৫০ বছর পর দেশি-বিদেশি বিভিন্ন গোষ্ঠীর নানান ষড়যন্ত্র এবং অবিশ্বাসকে চ্যালেঞ্জ করে প্রমত্তা পদ্মার বুকে স্বপ্নের সেতু যখন মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে নিজের গর্বিত অস্তিত্বের জানান দেয়, তখন বাঙালি হিসেবে, বাংলাদেশের একজন সৎ করদাতা নাগরিক হিসাবে আমি গর্বিত হই। মুক্তিযুদ্ধ না দেখা এই অভাগা প্রজন্মের আমি অন্য এক যুদ্ধ জয়ের আনন্দ পাই।’

তিনি আরও লিখেছেন, ‘বিশ্বের কাছে বাংলাদেশের অহংকারের নতুন প্রতীক স্বপ্নের এই পদ্মা সেতু নির্মিত হয়েছে আমাদের নিজেদের অর্থায়নে- কারও কাছে মাথা নত করতে হয়নি আমাদের। আমাদের সন্তান পদ্মা সেতুর নির্মাণকাল দেখেছে। একের পর এক সেতুর ৪২টি পিলার তৈরি হয়েছে, ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ৪১ টি স্প্যান বসেছে, উদ্বোধন হয়েছে আমাদের সময়েই। এই ইতিহাসের সাক্ষী হতে পেরে আমি গর্বিত, আনন্দিত, সৌভাগ্যবান।’

শেখ হাসিনার বীরত্বের কথা স্মরণ করে শাওন লেখেন, ‘আমি মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি, আমি পদ্মাসেতুর নির্মাণকাল দেখেছি। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার জেদ দেখেছি, দৃঢ় প্রত্যয় দেখেছি। পদ্মা সেতুর পর্যায়ক্রম নির্মাণে তার ছেলেমানুষি, আনন্দ দেখেছি। সেতুর উদ্বোধনকালে তার চোখে আনন্দঅশ্রু দেখেছি। তার নেতৃত্বে সকল মিথ্যার বিরুদ্ধে পদ্মা সেতুর জয় দেখেছি। সমগ্র বাংলাদেশের জয় দেখেছি।’

পদ্মা সেতুতে তোলা ছবি এখানেই শেষ নয়, সামনে আরও ছবি দেখা যাবে- এ ইঙ্গিত দিয়ে শাওন লিখেছেন, ‘আগামীতে আরও বহুদিন পদ্মা সেতুর ছবি, পদ্মা সেতুর সামনের ছবি, সেতুর ওপর দিয়ে দক্ষিণাঞ্চলে ভ্রমণ ইত্যাদি বিষয়ে পোস্ট করে আমার ফেসবুক ওয়াল ভরিয়ে ফেলব। আমার যাকে তেল দিতে ইচ্ছা করে তেল দেব।’

এর আগে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের দিন (২৫ জুন) শাওন গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, ‘আমি মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি, কিন্তু পদ্মা সেতুর উদ্বোধন দেখেছি। আমরা এই প্রজন্ম পদ্মা সেতুর উদ্বোধন স্বচক্ষে দেখতে পাচ্ছি। যারা সামনাসামনি দেখছি, টেলিভিশনের পর্দায় দেখছি, বিশ্বের যেকোনো জায়গা থেকেই দেখছি, এটা অসাধারণ অনুভূতি।’

তিনি আরও বলেন, ‘জাতিগতভাবে আমরা যে হার না মেনে নেওয়া জাতি, আমরা যে আমাদের অধিকার আদায় করতে পারি, কেউ চাইলেই যে আমাদের অধিকার খর্ব করতে পারে না, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বদৌলতে আমরা তা আবারও প্রমাণ করতে পেরেছি। অবশ্যই এটা আমাদের সবার জন্য অসাধারণ একটি মুহূর্ত।’

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles