18.7 C
Toronto
রবিবার, জুন ২৬, ২০২২

তিন দিনের অনশন ভেঙ্গে বাবার হাত ধরে বাড়ির পথে

- Advertisement -

তিন দিনের অনশন ভেঙ্গে বাবার হাত ধরে বাড়ির পথে - The Bengali Times

প্রেমের টানে জর্ডান থেকে চাকরি ছেড়ে চলে আসেন দেশের বাড়ি পিরোজপুরে, আবার সেই বাড়ি থেকে ছুটে এসেছেন পাথরঘাটা এক কুয়েত প্রবাসীর বাড়িতে। বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে টানা তিন দিন ছিলেন অনশনে। অবশেষে সেই দাবি প্রত্যাক্ষান করায় মেয়ের বাবা মেয়েকে নিয়ে চলে গেলেন তার বাড়িতে। জানা গেছে, জর্ডানে থাকার সময় একটি প্রবাসী গ্রুপের মাধ্যমে তিন বছর আগে কুয়েত প্রবাসী হাসানের সঙ্গে সোনিয়ার ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয় হয়। মোবাইল ফোনে নিয়মিত যোগাযোগের একপর্যায়ে প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয়। সোনিয়ার অভিযোগ, হাসান বিয়ের আশ্বাসে ভিডিও কলে তাঁকে বস্ত্রহীন অবস্থায় বহুবার দেখেছেন। তাঁদের সামনাসামনি দেখা না হলেও অনাগত সন্তানের কথা ভেবে, বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কথা বলে এবং জমি কেনার কথা বলে ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা নিয়েছেন হাসান।

এ ব্যাপারে জানতে হাসানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, সোনিয়ার সঙ্গে আমার ১৫ দিনের সম্পর্ক আমি বিশ্বাস করে শুধু কথা বলেছি। এই সুযোগে আমার সঙ্গে কথা বলার স্ক্রিনশট নিয়ে ব্ল্যাকমেইল করতে শুরু করে। আমি তাকে বিয়ের কোনো প্রলোভন দেখাইনি বরং সে একজন তালাকপ্রাপ্ত মেয়ে। আমাকে হয়রানি করতে আমার বাড়িতে উঠে বাবা-মাকে হুমকি দিচ্ছে।

এ ব্যাপারে সোনিয়ার বাবা আব্দুল সামাদ জোমাদ্দার বলেন, আমি কিছুই জানতাম না আমার মেয়ে আমাকে ফোন দিয়ে বলে বাবা আমার বিয়ে তুমি চলে এসো পরবর্তীতে মেয়ের কাছ থেকে ঠিকানা পেয়ে ঘটনাস্থলে কুয়েত প্রবাসী হাসানের বাড়িতে চলে আসি, এলাকার চেয়ারম্যান মেম্বার ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে কথা বলে জানতে পারি আমার মেয়ে এখানে এসে বিয়ের দাবিতে অনশন করেছিল। পরবর্তীতে আমি আমার মেয়ের সাথে কথা বলি এবং গ্রামের সকল লোক জনের ভিতরে হাসানের সাথে প্রেমের সম্পর্কের সঠিক প্রমাণ দিতে না পারায় আমি আমার মেয়েকে বুঝিয়ে নিয়ে যাচ্ছি পরবর্তীতে ছেলে আসলে তার সাথে কথা বলে একটা ব্যবস্থা করবো।

সোনিয়া ফিরে যাওয়ার সময় হাসানের উদ্দেশ্য করে বলেন, আমার টাকা নিয়ে জমি কিনেছে এর সঠিক বিচার আল্লাহ দেখাবে,ও যদি আমার সাথে বেইমানি করে তাহলে ১ সপ্তাহের ভিতরে বাড়িতে ফেরত আসবে। আমার টাকার দাবী আমি ছাড়বো না। এ বিষয়ে কালমেঘা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গোলাম নাসির বলেন, গত শুক্রবার সোনিয়া নামের একটি মেয়ে আমার এলাকার কুয়েত প্রবাসী হাসানের বাড়িতে বিয়ের দাবিতে অনশন করেছিল জানতে পেরে সকল খোঁজখবর নিয়ে মেয়ের বাবাকে খবর দিলে মেয়ের বাবা আসে এবং সকলের উপস্থিতিতে মেয়ের সাথে ছেলের সম্পর্কের সঠিক প্রমাণ চাইলে দিতে না পারায় মেয়েকে তার বাবার সাথে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে পাথরঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল বাশার বলেন, আমরা মেয়ের বাবার সাথে কথা বলেছি ও মেয়ের সাথে কথা বলেছি যদি কেউ অন্যায় করে তাহলে আইনের আশ্রয় নিতে বলেছি, কিন্তু সোনিয়া সঠিক কোন তথ্য প্রমান দিতে পারেনি, পরবর্তীতে তার ইচ্ছেতেই বাবার সাথে চলে গেছে।

সূত্র : বিডি২৪লাইভ

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles