21.3 C
Toronto
রবিবার, জুন ১৬, ২০২৪

অনুসন্ধান শুরুর পরই ব্যাংক থেকে ১৩ কোটি টাকা তুলে নেন বেনজীর

অনুসন্ধান শুরুর পরই ব্যাংক থেকে ১৩ কোটি টাকা তুলে নেন বেনজীর
বেনজীর আহমেদ

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অনুসন্ধান শুরুর দুই সপ্তাহ পর সাবেক পুলিশ মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ সপরিবারে গোপনে দেশত্যাগ করেছেন। এর আগেই তিনি কয়েকটি ব্যাংক থেকে প্রায় ১৩ কোটি টাকা তুলে নেন। এছাড়া তিনি ভাটারা এলাকার একটি সাততলা বিক্রিও করেন। তবে দুদক কর্মকর্তাদের সন্দেহ ভাটারার বাড়িটি এতো অল্প সময়ে বিক্রি করা সম্ভব না। বাড়িটি কম মূল্য দেখিয়ে অন্যের নামে হস্তান্তর করা হয়ে থাকতে পারে। এ বিষয়টি দুদক অনুসন্ধান করে দেখবে। রবিবার (২ জুন) সংস্থাটির একাধিক কর্মকর্তা এসব তথ্য জানান।

দুদকের তথ্যমতে, সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদের অনিয়ম-দুর্নীতি অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় গত ১৮ এপ্রিল। অনুসন্ধানের অংশ হিসেবে তার ব্যাংক হিসাবের লেনদেনের তথ্য চেয়ে গত ২৪ এপ্রিল বাংলাদেশ ব্যাংকের গোয়েন্দা ইউনিটে চিঠি দেওয়া হয়। পরদিন ২৫ এপ্রিল স্থাবর ও অবস্থাবর সম্পদের তথ্য চেয়ে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক), গাজীপুর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, রিয়েল এস্টেট এন্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব), সিটি করপোরেশন, ভূমি অফিস, রেজিস্ট্রি অফিস, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডসহ বিভিন্ন দপ্তরে চিঠি দেওয়া হয়। এরপরই তার স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদের অনেক তথ্য দুদকে পৌঁছেছে।

- Advertisement -

এসব তথ্য পাওয়ার পরই দুদকের আবেদনের প্রেক্ষিতে বেনজীর আহমেদ ও তার স্ত্রী-সন্তানদের ৬২১ বিঘা জমি, ঢাকার চারটি ফ্ল্যাট এবং ৩৩ ব্যাংক হিসাব গত ২৩ মে এবং ২৬ মে ঢাকা মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ কোর্টের দুটি পৃথক আদেশে জব্দ করা হয়। এর মধ্যে গত ২৩ মে বেনজীর আহমেদ, তার স্ত্রী, তিন মেয়ে ও এক স্বজনের নামে থাকা ৩৪৫ বিঘা জমি এবং বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি ব্যাংকে থাকা ৩৩টি ব্যাংক হিসাব জব্দের আদেশ দেয়। আর ২৬ মে বেনজীরের স্ত্রী জীশান মীর্জার নামে থাকা মাদারীপুরে ২৭৬ বিঘা জমি এবং বেনজীর পরিবারের নামে থাকা গুলশানের চারটি ফ্ল্যাট জব্দের আদেশ দেন। একইদিন বেনজীর ও তার স্ত্রী-সন্তানদের নামে থাকা ১৯টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও তিনটি বিও হিসাব (শেয়ার ব্যবসা করার বেনিফিশিয়ারি ওনার্স অ্যাকাউন্ট) এবং ৩০ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র ও সাভারের জমি জব্দের আদেশ দেওয়া হয়।

দুদকের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, দুর্নীতির অনুসন্ধান শুরুর পর থেকে জব্দের আগ পর্যন্ত সময়ে বেনজীর আহমেদ কয়েকটি ব্যাংক থেকে টাকা তুলেছেন। দুদকের টিম হিসাব করে দেখেছে টাকার পরিমাণ প্রায় ১৩ কোটি। কোন কোন ব্যাংক থেকে টাকা তোলা হয়েছে তার বিস্তারিত বলা যাবে না। এটা প্রাথমিক হিসাব। বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে তার ব্যাংকিং লেনদেনের পুরো তথ্য পাওয়া যায়নি। পুরো তথ্য পেলে কী পরিমাণ অর্থ তুলেছেন তা জানা যাবে। বেনজীর আহমেদ ব্যাংক থেকে যে পরিমাণ অর্থ উত্তোলন করেছেন, সেগুলো কোথায় রেখেছেন, অবৈধপন্থায় বিদেশে পাচার করেছেন কিনা, তাকে অর্থপাচারে কারা সহযোগীতা করেছেন তাদের খোঁজে বের করবে দুদক।

তিনি আরও বলেন, বেনজীর আহমেদ ভাটারা এলাকার একটি সাততলা বাড়ি বিক্রি করেছেন বলে দুদকের কাছে তথ্য এসেছে। বাড়িটি এতো তাড়াতাড়ি বিক্রি করা সম্ভবনা কম। তাছাড়া বাড়িটি করতে একটি ব্যাংক থেকে লোনও নেওয়া হয়েছে। বাড়িটি অন্য সম্পদের সঙ্গে জব্দ হয়ে যেতে পারে এমন ধারণা থেকে বাড়িটি নামমাত্র মূল্যে অন্য কারো নামে হস্তান্তর করা হয়ে থাকতে পারে। আমাদের টিম অনুসন্ধান করে দেখবে বাড়িটি সঠিক মূল্যে বিক্রি হয়েছে কিনা, যিনি বাড়িটি কিনেছেন তিনি কীভাবে টাকা পরিশোধ করেছেন, বাড়ি ক্রয়ের অর্থের উৎস বৈধ কীনা, বাড়ি বিক্রির টাকার কোথা থেকে পরিশোধ এবং গন্তব্যের শেষ কোথায়। এসব বিষয় অনুসন্ধান করতে গেলে যাদের সম্পৃক্ততা আছে তাদের বিষয়টি সামনে আসবে এবং দুদক বেনজীর চক্রের সদস্যদের চিহ্নিত করতে পারে। পরবর্তীতে তাদের দুর্নীতির অনুসন্ধানে নামতে পারে সংস্থাটি।

দুদকের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, অবৈধ সম্পদ অর্জনের বিষয়ে জিজ্ঞসাবাদের জন্য বেনজীর ও তার স্ত্রী-সন্তানকে নোটিশ দেওয়া হয়েছে। গত ২৮ মে পাঠানো নোটিশে বেনজীর আহমেদকে আগামী ৬ জুন এবং তার স্ত্রী ও সন্তানকে আগামী ৯ জুন দুদকে হাজির হতে বলা হয়েছে। নির্ধারিত সময়ে তারা হাজির না হলে কমিশনের অনুমোদন নিয়ে দ্রুত সম্পদ বিবরণী দাখিলের নোটিশ জারি করা হবে।

দুদকের তথ্যমতে, চলতি বছরের ৩১ মার্চ বেনজীর আহমেদের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের বিষয়ে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। পরবরর্তীতে আরও কয়েকটি গণমাধ্যমে এই সংবাদ প্রকাশিত হয়। এরপর কমিশন গত ১৮ এপ্রিল বেনজীর আহমেদের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয়।

অভিযোগ অনুসন্ধান করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য দুদকের উপপরিচালক মো. হাফিজুল ইসলামকে প্রধান করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- সহকারী পরিচালক নিয়ামুল হাসান গাজী এবং জয়নাল আবেদীন।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles