29.3 C
Toronto
বৃহস্পতিবার, জুন ২০, ২০২৪

নায়িকারাও যাতায়াত করতেন শাহীনের বাগানবাড়িতে

নায়িকারাও যাতায়াত করতেন শাহীনের বাগানবাড়িতে
ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে নির্জন এলাকায় শাহীনের বিলাসবহুল বাগানবাড়ি ছবি সংগৃহীত

ঝিনাইদহ-৪ আসনের এমপি আনোয়ারুল আজিম আনার হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী হিসেবে ওঠে এসেছে তার দীর্ঘদিনের বন্ধু আক্তারুজ্জামান শাহীনের নাম। তিনি এখন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন। কোটচাঁদপুরের নির্জন এলাকায় বিলাসবহুল একটি বাগানবাড়ি রয়েছে শাহীনের। সেখানে আনাগোনা ছিল অনেক প্রভাবশালীর। এ বাড়িতেই শাহীনের সঙ্গে একান্তে আলাপ করতেন এমপি আনার। শুধু তিনি না, মাঝে-মধ্যে গাড়ি নিয়ে বাংলোতে অজ্ঞাত লোকজনকে আসা-যাওয়া করতে দেখেছে গ্রামবাসী। এই তালিকায় ঢাকাই ছবির নায়িকারাও রয়েছেন- এমনটাই জানিয়েছেন গ্রামবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা।

দীর্ঘদিনের ঘনিষ্ঠ বন্ধু আনারকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার অভিযোগ উঠলেও তা অস্বীকার করেছেন শাহীন। যুক্তরাষ্ট্র থেকে টেলিফোনে সাংবাদিকদের বলেছেন, তাকে ফাঁসানো হয়েছে।

- Advertisement -

সরেজমিন দেখা গেছে, কোটচাঁদপুর শহর থেকে সাড়ে ৫ কিলোমিটার দূরে এলাঙ্গী গ্রামের নির্জন মাঠ। মাঠ পেরিয়ে চারপাশে জঙ্গল, কাঁটাতার ও ফুলেঘেরা বেড়া। ভেতরের আমবাগানের এক প্রান্তে বিলাসবহুল দ্বিতল বাড়ি, যা দূর থেকে দেখে বোঝার উপায় নেই। বাড়ির দ্বিতীয় তলার বেশিরভাগই কাচঘেরা। ঝুলছে বড় বড় পর্দা। আরেক প্রান্তে দেখা যায়, একটি টিনশেড। যার সামনে ছাউনির নিচে রাখা আছে সাদা রঙের গাড়ি। চার বছর আগে ৩০ বিঘা জমিতে এই বাংলো বাড়িটি গড়ে তুলেছিলেন শাহীন।

এলাকার মানুষ জানান, গত এক বছরের মধ্যে শাহীন ছয় মাস নিউইয়র্কে, আর ছয় মাস বাংলাদেশে ছিলেন। গ্রামে এলে তিনি বাগানবাড়িতেই থাকতেন। তবে বাড়ির ভেতরে কী হতো, সেটি কখনো দেখতে পারেনি তারা। তবে মাঝেমধ্যেই রাতের বেলায় বড় বড় গাড়ি ঢুকত সেখানে। বাগানবাড়ি থেকে বেজে উঠত গান। তবে থানা-পুলিশ কিংবা আইনের ভয়ে কেউই কখনো মুখ খোলেননি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এলাঙ্গী গ্রামের আসাদুজ্জামানের তিন ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে চতুর্থ সন্তান শাহীন। তার বাবা আড়তদারি ব্যবসা এবং কৃষিকাজ করতেন। তার বড় ছেলে সহিদুজ্জামান সেলিম থাকেন কোটচাঁদপুর শহরের বাজারপাড়ার বাড়িতে। তিনি কোটচাঁদপুর পৌরসভার মেয়র। ব্যবসা করেন। আরেক ছেলে মনিরুজ্জামান মনির ১৯৮৮ সাল থেকে যুক্তরাষ্ট্রের ডেট্রয়েট শহরে থাকেন, পেশায় ইঞ্জিনিয়ার। মেয়ে খুকু থাকেন কখনো কানাডায়, আবার কখনো ঢাকায়। ছোট ছেলে আক্তারুজ্জামান শাহীন থাকেন যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে। তিনি পেশায় ব্যবসায়ী। আরেক মেয়ে এলিন থাকেন ঢাকায়।

শাহীন কোটচাঁদপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং কেএমএইজ কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। মাধ্যমিকের গণ্ডি পেরোনোর আগেই মাদকাসক্ত হয়ে পড়েন। কলেজে ভর্তির পর মাদক কারবারে জড়িয়ে পড়েন। পরে চট্টগ্রাম মেরিন একাডেমি থেকে লেখাপড়া শেষে জাহাজে চাকরি নেন। চাকরির দুই বছরের মাথায় ওপি-ওয়ান ভিসা পেয়ে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার সুযোগ পান। যুক্তরাষ্ট্রের ৩৭৯ ইস্ট সেভেন্থ স্ট্রিট ব্রুকলিন এলাকায় শাহীনের বাড়ি রয়েছে, সেখানকার নাগরিকও তিনি।

শাহীনের বাগানবাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, বাড়ির খয়েরি রঙের গেটটি তালাবদ্ধ। ডানপাশে ওপরে লাগানো রয়েছে দুটি সিসি ক্যামেরা। এ ছাড়া বাগানবাড়ির চারপাশে অনেক সিসি ক্যামেরা রয়েছে। এই বাগানবাড়ির ভেতরে রয়েছে পুকুর, গরুর খামার। রিসোর্ট হিসেবেও এটিকে রূপান্তরের পরিকল্পনা ছিল তার।

বাড়ির দারোয়ানকে পাওয়া না গেলেও সফি উদ্দিন নামের এক ব্যক্তি বলেন, যাওয়া-আসার পথে দেখি গেটে লেখা, কুকুর হইতে সাবধান। আর ভেতরে কাউকে ঢুকতে দেয় না। তবে কিছু সময় লোকজন আসে, ভেতরে ঢোকে। মাঝে মাঝে রাতে গানবাজনা হয়, মাইক বাজে। প্রায়ই গাড়ি নিয়ে ভেতরে ঢোকে। দিনে ও রাতের বেলায় কেউ মোটরসাইকেল নিয়েও ঢোকে।

মোবারকগঞ্জ চিনিকল শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি গোলাম রসুল বলেন, আনার ও শাহীনের বন্ধুত্ব প্রায় ৩০ বছরের। পাশের কোটচাঁদপুর উপজেলার এলাঙ্গী গ্রামে শাহীনের ওই বাংলোয় প্রথমবার তিনি গিয়েছিলেন বছরখানেক আগে। তিন-চার মাস আগে শেষবার এমপি আনার তাকে ওই বাংলোয় নিয়ে গিয়েছিলেন। একদিন দর্শনা থেকে বাড়ি ফেরার পথে আনার তাকে বলেছিলেন, চলো বন্ধু শাহীনের সঙ্গে দেখা করে আসি। এরপর তারা দুজন ওই বাংলোয় যান। আনার একান্তে শাহীনের সঙ্গে কথা বলেন। তবে রসুল বাইরে বাংলোর মধ্যে একটি কক্ষে বসে অপেক্ষা করেছিলেন।

রসুল বলেন, বাংলো দেখে তিনি হতবাক হন, এই গ্রামের মধ্যে এত ভিআইপি বাংলো। যেখানে বিদেশি কুকুর, অনেক কর্মচারী, ভিআইপি আসবাবপত্র দিয়ে সাজানো। আনোয়ারুল তাকে বলেছিলেন, শাহীন মেরিন ইঞ্জিনিয়ার, যুক্তরাষ্ট্রে থাকেন। এখানে বেড়াতে এলে এই বাংলোতে অবস্থান করেন।

কোটচাঁদপুরের মানুষ শাহীনের অপকর্মের বিষয়ে মুখ খুলতে শুরু করেছে। এতদিন মানুষ তার নির্যাতন সহ্য করেছে। দেড় বছর আগে কোটচাঁদপুরে দুটি হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে এই শাহীন জড়িত বলে ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করেন। এলাকাবাসী বলছেন, বাগানবাড়িতে বিভিন্ন সময় নামিদামি অনেক লোক আসা-যাওয়া করেন। রাতে সেখানে মদের আড্ডা আর সুন্দরী মেয়েদের নিয়ে আমোদ-প্রমোদ করা হয়। শাহীন নিজেই এলাকায় সালিশ-দরবার করতেন। সেখানে তার রায়ই চূড়ান্ত হতো। কেউ বিরোধিতা করলে পুলিশ দিয়ে তাকে হয়রানি করার অভিযোগও রয়েছে। তবে শাহীন এতটাই প্রভাবশালী ছিলেন, তার বিরুদ্ধে থানা-পুলিশে অভিযোগ দিয়ে লাভ হতো না। শাহীন গত দেড় দশকে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন।

ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর থানার ওসি সৈয়দ আল মামুন জানান, তিনি নিজেও শাহিনের বাগানবাড়িতে গেছেন, সেখানে সুইমিংপুল থেকে শুরু করে মাছের পুকুর, খেলার মাঠ, চা বাগান, ডুপ্লেক্স বাড়ি এবং বিদেশি কুকুর রয়েছে। সেখানে উঁচুতলার লোকরা আসা-যাওয়া করত বলে শুনেছি।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles