15.7 C
Toronto
সোমবার, মে ২৭, ২০২৪

আকুল টরন্টোবাসী

আকুল টরন্টোবাসী

ফুল ফুটেছে, গত কয়েকদিন ধরে গন্ধতে আকুল টরেন্টোবাসী।

- Advertisement -

প্রায় একশো বছর আগের একটি সহজ সুখের ডাক, নন্দিনী…. আজও যদি অবিকল আস্থা জাগায় মনে, তবে তো গন্ধে আকুল হতেই হয়, উপায় কী মহাশয়।
সাধারণত একটি নাটকে এক দুই বড় জোর, তিন-চারজন ভালো মানের অভিনয় শিল্পীকে দেখে আমরা অভ্যস্ত। কিন্তু পিঁপড়ার মত ঝাঁকে ঝাঁকে আসা আবালবৃদ্ধবনিতা যখন মঞ্চ দখল এবং অডিটোরিয়াম দখল করে নেয় তখন তো উচ্চ প্রশংসা করা ছাড়া গতি থাকে না।

এমন অবস্থায় লাঙ্গলের পিছনের মানুষটাকেও খুঁজে বের করতে চায় ঔৎসুকজনেরা। যা গত কয়েকদিন ধরে টরেন্টোতে হয়ে যাচ্ছে। উদীচী কানাডার ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে দুইদিনব্যাপী অনুষ্ঠানে ইত্তেলা আলী পরিচালিত ‘মায়ার খেলা’ এবং মিঠুন রেজার পরিচালিত ‘রক্তকরবী’ দেখে টরেন্টোর বাঙালিরা গলা ছেড়ে প্রশংসা করছে। ওদের দীর্ঘদিনের প্রচেষ্টা যথার্থ সম্মান ও সন্তুষ্টি কুড়চ্ছে। একই সাথে তাদের সংগঠন উদীচী কানাডাও পুনরায় নজর কেড়েছে প্রবাসীদের। ব্যক্তিগত কারোর নাম নেব না, সমবেত ভাবে উত্তম উপস্থাপনা করার জন্য ব্যক্তি বিশেষের নাম রিজার্ভ করে রাখাই ভালো।

তবে, যেহেতু তনুকার (শবনম শায়লা তনুকা) সঙ্গে আমি কাজ করেছি তাই বলবো, যারা নন্দিনী চরিত্রটি আগে কখনো দেখেনি, ভবিষ্যৎ জীবনে তারা নন্দিনী নাম শুনলে তনুকাকে মনে করবে। এতোটাই ভালো করেছে মেয়েটা। ভালো এই অর্থে কঠিনকে জয় করার আনন্দ দেখেছি ওর মধ্যে। এছাড়াও সঙ্গীত শিল্পী মহীতোষ তাপসের নির্দেশনায় সমবেত সঙ্গীত পরিবেশনায় হল কেঁপে উঠেছিল, সমবেত সুধী মণ্ডলীর অধিকাংশ দুলেছিল দোলায়।

পরপর দুটি মঞ্চ নাটক দেখে মনে হলো ইত্তেলা ও মিঠুনের কাছ থেকে আমরা আরও অনেক কিছু পেতে যাচ্ছি। ওরা বাজীমাত করেছে। ওরা দর্শকদের হাতের তালুর চামড়া তুলে দিয়েছে। আমি সুমন সাঈদ ও মামুনুর রশীদ ভাইকে বলেছি, আমাদের শুধুশুধু ডেকে কষ্ট দিলেন। আমরা তো নিজেদের লোক। আপনাদের উচিৎ ছিল, বিমান চার্টার করে বাংলাদেশ থেকে চার পাঁচশো দর্শক এনে দু’দিনের এই অনুষ্ঠান দেখিয়ে দেওয়া। তাহলে ওরা বলতে শুরু করতো আচ্ছা, টরন্টো বাংলাদেশের কোন জেলায় অবস্থিত?

- Advertisement -
পূর্ববর্তী খবর
পরবর্তী খবর

Related Articles

Latest Articles