17 C
Toronto
সোমবার, মে ২৭, ২০২৪

সালমানের বাড়িতে চার রাউন্ড গুলি ছোড়ার পরিকল্পনা হয় যুক্তরাষ্ট্রে

সালমানের বাড়িতে চার রাউন্ড গুলি ছোড়ার পরিকল্পনা হয় যুক্তরাষ্ট্রে
ছবি সংগৃহীত

বলিউড মেগাস্টার সালমানের খানের বাড়িতে চার রাউন্ড গুলি ছোড়া অজ্ঞাতদের পরিচয় জানা গেছে। তবে পুলিশি কোনো তদন্তে নয়, হত্যার হুমকীকারী নিজেই প্রকাশ্যে এনেছেন তার পরিচয়। এরই মধ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী একনাথ শিন্ডে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ার একটি প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, সালমানের বাড়ির দিকে গুলি ছোড়া দুই অজ্ঞাত আর কেউ নন, তারা ভারতের গ্যাংস্টার লরেন্স বিষ্ণোইর লোক।

- Advertisement -

গ্যাংস্টার লরেন্স সালমানের বাড়ির সামনে এ অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটানোর শুধু দায়ই স্বীকার করেননি, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ্যে এ বিষয়ে পোস্ট করে আবারও হত্যার হুমকি দিয়েছেন সালমানকে।

ভারতীয় পুলিশ জানিয়েছে, লরেন্স বিষ্ণোইর (বিষ্ণোই গ্যাংয়ের লিডার) ভাই আনমোল বিষ্ণোই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আরেক গ্যাংস্টার রোহিত গোদারার কাছে শুটার বাছাইয়ের দায়িত্ব অর্পণ করেছিলেন। গোদারার পেশাদার শুটারদের নেটওয়ার্ক পুরো ভারতজুড়ে। গোদারা এ হামলার পুরো দায়িত্ব দেন শুটার বিশালকে।

বিশাল গুরুগ্রামের বাসিন্দা। জেল খাটা আসামি। ২০২০ সালে প্রথমবার পুলিশের খপ্পড়ে পড়েন তিনি। মোটরসাইকেল চুরির অভিযোগে তিহাড়ে বন্দী ছিলেন বিশাল। তিনি বিষ্ণোই গ্যাংয়ের সদস্য। পাশপাশি, রোহিত গোধরা গ্যাংয়ের সঙ্গেও কাজ করছেন। গত বছর গুরুগ্রামে দুই খুনের অভিযোগে নাম জড়ায় তার। এবার সালমানের বাড়িতে গুলি চালিয়ে রাতারাতি আলোচনায় এলেন এই ব্যক্তি।

এদিকে, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে হুমকির চিঠি দিয়ে ঘটনার দায় স্বীকার করেছে বিষ্ণোই গ্যাং। এই গ্যাংয়ের লিডার লরেন্স বিষ্ণোই এর আগেও সালমানকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছেন। এই মুহূর্তে কারাগারে আছেন গ্যাংস্টার লরেন্স বিষ্ণোই। তার হয়েই এবার সামাজিকমাধ্যমে হুমকি দিলেন তারই ভাই আনমোল বিষ্ণোই।

এক ফেসবুক পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘আমদের ওপর হওয়া অত্যাচারের নিষ্পত্তি চাই। যদি তুমি সরাসরি যুদ্ধের ময়দানে নামতে চাও, তাই সই। আজ যা হয়েছে, তা শুধুই একটা ঝলক ছিল সালমান খান। যাতে তুমি বুঝতে পারো, আমরা কতদূর যেতে পারি। এটাই ছিল তোমাকে দেয়া শেষ সুযোগ। এরপর গুলিটা তোমার বাড়ির বাইরে চলবে না… দাউদ ও ছোটা শাকিল নামের যে দুজনকে তুমি ভগবান মানো, সেই নামের দুটি কুকুর পুষেছি বাড়িতে। বাকি বেশি কথা বলার লোক আমি নই। জয় শ্রী রাম।’

১৯৯৮ সালে কৃষ্ণসার হরিণ শিকারকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ে সালমানের নাম। এরপর থেকেই ‘বদলা নিতে’ সালমানকে লাগাতার খুনের হুমকি দিয়ে চলেছে লরেন্স বিষ্ণোই গোষ্ঠী।

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, জেলবন্দি গ্যাংস্টার বিষ্ণোই হত্যার যে ১০ জনের তালিকা করেছেন তার সবার প্রথমে রয়েছে সালমান খানের নাম। আর তাই কয়েক মাসের ব্যবধানেই অভিনেতাকে হত্যার আগে ভয় দেখানোর কাজটি চালু রেখেছে দুর্বৃত্তরা।

এদিকে পুরো বিষয় জানার পর প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের নির্দেশ দিয়েছেন ভারত মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী একনাথ শিন্ডে। তদন্ত চালু রেখেছেন মুম্বাই পুলিশও।

প্রসঙ্গত, বোরবার ( ১৪ এপ্রিল) ভোর ৫টা নাগাদ দুই অজ্ঞাত বন্দুকধারী সালমানের বাড়ির সামনে পৌঁছান। এরপর তারা বন্দুক তাক করেন সালমানের বাড়ির দিকে। কাউকে নিশানা করে নয়, বরং শূন্যে চার রাউন্ড গুলি ছুঁড়ে পালিয়ে যান তারা।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles