7.1 C
Toronto
শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪

দক্ষিণ এশীয় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে অবৈধভাবে অর্থ আদায়ের চেষ্টার তদন্ত

দক্ষিণ এশীয় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে অবৈধভাবে অর্থ আদায়ের চেষ্টার তদন্ত
দক্ষিণ এশীয় ব্যবসায়ী সম্প্রদায়কে লক্ষ্য করে সম্প্রতি অবৈধভাবে অর্থ আদায়ের চেষ্টা সংক্রান্ত বেশ কিছু ঘটনার তদন্তে টাস্ক ফোর্স গঠন করেছে পিল পুলিশ

দক্ষিণ এশীয় ব্যবসায়ী সম্প্রদায়কে লক্ষ্য করে সম্প্রতি অবৈধভাবে অর্থ আদায়ের চেষ্টা সংক্রান্ত বেশ কিছু ঘটনার তদন্তে টাস্ক ফোর্স গঠন করেছে পিল পুলিশ। একটি ঘটনায় একজন সন্দেহভাজন ব্র্যাম্পটনের এক ব্যবসায়ীকে লক্ষ্য করে গুলিও ছোড়ে। বর্তমানে তারা সাকল্যে নয়টি ঘটনার তদন্ত করছে বলে ২২ ডিসেম্বর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে পিল পুলিশ জানিয়েছে।
পুলিশ বলেছে, অধিকাংশ ঘটনার ক্ষেত্রে ভুক্তভোগীদের সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যোগাযোগ করা হয় এবং হুমকি দেখিয়ে তাদের কাছে অর্থ দাবি করা হয়। কিছু ঘটনায় সন্দেহভাজনরা এরপরও হুমকি প্রদান অব্যাহত রাখে।

৯ ডিসেম্বরের ঘটনায় ব্র্যাম্পটনের রাদারফোর্ড রোড সাউথ এবং ক্লার্ক বুলভার্ডের কাছে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে লক্ষ্য একজন সন্দেহভাজন বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ২৩ বছর বয়সী ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার এক বাসিন্দাকে গ্রেপ্তার করা হয়। যদিও শনাক্ত না হওয়া দ্বিতীয় সন্দেহভাজনকে এখনো গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে পুলিশ। টাস্ক ফোর্স গঠনের দিনই ২২ ডিসেম্বর ওই সন্দেহভাজনের সার্ভিল্যান্স ফুটেজ প্রকাশ করা হয়েছে।

- Advertisement -

পুলিশপ্রধান নিশান দুরাইয়াপ্পাহ সাম্প্রতিক ঘটনাগুলোর ব্যাপারে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছেন, এ ঘটনা আমাদের কমিউনিটির সদস্যদের মধ্যে সুরক্ষা ও নিরাপত্তা নিয়ে বড় ধরনের উদ্বেগের সৃষ্টি করেছে। আমাদের বাসিন্দাদের ভয়-ভীতি প্রদর্শন মেনে নেওয়া হবে না এবং এ ঘটনার জন্য দায়ী ব্যক্তিদের ধরতে পিল রিজিয়নাল পুলিশ তাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করবে।
পুলিশ বলেছে, তদন্ত ও গোয়েন্দা ইউনিটের সমন্বয়ে টাস্ক ফোর্স গঠন করা হবে। সব ধরনের কৌশলগত সহায়তা টাস্ক ফোর্সকে দেওয়া হবে।

সন্দেহভাজনরা যাদেরকে ভয় দেখিয়ে অর্থ দাবি করেছে তাদেরকে অবিলম্বে তদন্ত কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগের আহ্বান জানানো হয়েছে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ ব্যাপারে বলা হয়েছে, সন্দেহভাজনরা ভুক্তভোগীদের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করছে এবং অবৈধ এই কার্যক্রম পরিচালনা করছে। ভুক্তভোগীদের নাম, ফোন নাম্বার, ঠিকানা ও ব্যবসার বিষয়ে সব ধরনের তথ্য সন্দেহভাজনদের কাছে রয়েছে।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles