সংসারও ভাঙল সবচেয়ে দুর্ভাগ্যবান ব্রিটিশ দম্পতির

- Advertisement -

লটারির অর্থ পেতে চলেছেন এই আনন্দে রিচার্ড ব্রেনসনের ব্যক্তিগত দ্বীপে বিলাসবহুল এক সফরে গিয়েছিলেন টট দম্পতি।

- Advertisement -

মার্টিন আর কাই ভেবেছিলেন, মুহূর্তের মধ্যেই তাদের জীবন বদলে যেতে বসেছে। কিন্তু দুর্ভাগ্যের শুরুটা ছিল এখানেই।

২০ বছর ধরেই সবচেয়ে দুর্ভাগ্যবান দম্পতির বিশেষণ নিয়ে বসবাস করছিলেন মার্টিন আর কাই টট। এবার তারা সেই দাম্পত্য জীবনের ইতি ঘটালেন।

- Advertisement -

রোববার রাতে ব্রিটিশ গণমাধ্যম ‘মিরর’ এ খবর জানিয়েছে।

- Advertisement -

২০ বছর আগে ইংল্যান্ডের ওয়াটফোর্ডে একটি দুই বেডরুমের ছিমছাম বাড়িতে বাস করতেন মার্টিন আর কাই। খুব সাধারণ আর শান্তিপূর্ণ জীবন ছিল তাদের।

দুজনের রোমাঞ্চ ছিল তখন তুঙ্গে। এখানে-ওখানে ঘোরাঘুরি আর হৈ-হুল্লোড় ছাড়াও প্রতি সপ্তাহেই তারা লটারির টিকিট কিনতেন। সমৃদ্ধ ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখতেন। কিন্তু কে জানত, এই লটারির টিকিটেই রচিত হবে তাদের দুর্ভাগ্যের কাহিনি।

প্রতি সপ্তাহেই তারা একই নম্বরের টিকিট কিনতেন। আর মিলিয়েও দেখতেন সপ্তাহে সপ্তাহে। বলা যায়, মাত্র একটি সপ্তাহেই তারা তাদের টিকিট মিলিয়ে দেখেননি।

আশ্চর্যের ব্যাপার হলো যে সপ্তাহে তারা টিকিট মেলাননি, সেই সপ্তাহেই তারা জিতে গিয়েছিলেন ৩.১ মিলিয়ন পাউন্ডের লটারি! বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ৩৬ কোটি টাকারও বেশি। ২০ বছর আগের হিসাবে এই অর্থের মূল্য আরও অনেকাংশেই বেড়ে যায়।

সেবার ড্রয়ের পর কেউ লটারি জয়ের দাবি না করায় কিছুটা অবাকই হয়েছিল যুক্তরাজ্যের জাতীয় লটারি সংস্থা ক্যামোলেট। দীর্ঘ ছয় মাস অপেক্ষার পর সংস্থাটির পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে একটি বিজ্ঞপ্তিও ছাপা হয়। যেখানে সেই সপ্তাহের লটারি বিজয়ীকে টিকিট দেখিয়ে প্রাপ্য অর্থ সংগ্রহ করতে বলা হয়।

এই বিজ্ঞপ্তি দেখেই চোখ কপালে উঠে যায়, মার্টিন ও কাই দম্পতির। তারা অবাক বিস্ময়ে দেখেন- এটি সেই নম্বর, যা তারা প্রতি সপ্তাহেই কিনছেন।

মার্টিন আর কাই ভাবলেন, মুহূর্তের মধ্যেই তাদের জীবন বদলে যেতে বসেছে। কিন্তু দুর্ভাগ্যের শুরু ছিল এখানেই। কারণ সারা বাড়ি তন্ন তন্ন করেও তারা তাদের সেই টিকিটটি আর খুঁজে পাননি। হয়তো বহু পুরোনো টিকিটের মতো এটিও কোথাও ফেলে দিয়েছিলেন।

কিন্তু জাতীয় লটারি সংস্থা তাদের একটি সুযোগ দেয় এবং বলে, যদি তারা প্রমাণ করতে পারেন যে, ওই নম্বরের টিকিটটিই কিনেছিলেন তবে তাদের পুরস্কারের অর্থ দেয়া হবে।

যেহেতু তারা একই নম্বরের টিকিট কিনতেন তাই লটারি কর্তৃপক্ষও বুঝতে পারে- টট দম্পতি সত্যি কথাই বলছেন। বিশেষ এই নম্বরটি ছিল মূলত টট দম্পতির জন্মতারিখ, বয়স, তাদের প্রথম দেখা হওয়া আর বাগদানের তারিখের সংখ্যাগুলো মিলিয়ে।

কিন্তু লটারি সংস্থা ছিল নিয়মে বাঁধা। সংস্থাটির শর্ত অনুযায়ী, কোনো বিজয়ী তার টিকিটটি হারিয়ে ফেললে তাকে অবশ্যই ৩০ দিনের মধ্যে কর্তৃপক্ষকে জানাতে হবে। তাই ছয় মাস পার হয়ে যাওয়ায় বিজয়ীর হাতে অর্থ তুলে দেয়া তাদের পক্ষে আর সম্ভব ছিল না।

এদিকে টট দম্পতি যখন আইনি লড়াই করছিলেন, তখনও তারা নিশ্চিত ছিলেন যে লটারির টাকা তাদের হাতে আসতে চলেছে। তারা তাদের সঞ্চিত অর্থ উড়াতে শুরু করেছিলেন। এমনকি কয়েক দিনের জন্য এক বিলাসবহুল সফরে তারা ব্রিটিশ বিলিয়নিয়ার রিচার্ড ব্রেনসনের ব্যক্তিগত দ্বীপও ঘুরে আসেন। সেই সময় ব্রেনসন এমনকি তৎকালীন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ারও টট দম্পতির পক্ষে কথা বলেছিলেন। কিন্তু এসবই শেষ পর্যন্ত বাজে খরচের খাতায় চলে যায়।

এমন দুর্ভাগ্যের স্মৃতি নিয়েই মার্টিন আর কাই প্রায় দুই দশক কাটিয়ে দিয়েছেন। বিচ্ছেদের মধ্য দিয়ে এবার শুরু হলো তাদের নতুন আরেক জীবন।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles