7.4 C
Toronto
মঙ্গলবার, এপ্রিল ১৬, ২০২৪

অর্থনৈতিক সংকটেও সরকারি চাকুরেদের বেতন ৩৫ শতাংশ বাড়াল পাকিস্তান

অর্থনৈতিক সংকটেও সরকারি চাকুরেদের বেতন ৩৫ শতাংশ বাড়াল পাকিস্তান

ব্যাপক অর্থনৈতিক চাপের মধ্যে থাকা পাকিস্তানে সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন বেড়েছে ৩৫ শতাংশ। চলতি ২০২৩-’২৪ অর্থবছর থেকেই কার্যকর হবে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নতুন বেতন কাঠামো।

- Advertisement -

শুক্রবার পাকিস্তানের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেট পেশ করেন কেন্দ্রীয় সরকারের অর্থমন্ত্রী ইসহাক দার। এ সময় দেওয়া বাজেট বক্তৃতায় এ তথ্য নিশ্চিত করে অর্থমন্ত্রী বলেন, দেশে চলমান ব্যাপক মূল্যস্ফীতি ও সরকারের বিভিন্ন পর্যায় থেকে আসা সুপারিশের ভিত্তিতে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা।

পেতনের পাশপাশি অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকরিজীবীদের পেনশনও বাড়ানো হয়েছে। বাজেট বক্তৃতায় ইসহাক দার জানিয়েছেন ২০২৩-২৪ অর্থবছর থেকে ১৭ দশমিক ৫ শতাংশ বর্ধিত পেনশন ভোগ করবেন অবসরপ্রাপ্ত প্রত্যেক সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী।

বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, সরকারি চাকরিজীবদের মধ্যে যারা ১ থেকে ১৬তম গ্রেডের অন্তর্ভুক্ত— তাদের বেতন বাড়বে ৩৫ শতাংশ এবং যেসব চাকরিজীবীর গ্রেড ১৭’র ওপরে— তাদের বেতন বাড়বে ৩০ শতাংশ।

এছাড়া বক্তৃতায় কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে চলতি অর্থবছর থেকে পাকিস্তানে ন্যূনতম সরকারি বেতন ৩২ হাজার রুপি এবং ন্যূনতম পেনশন ১২ হাজার রুপিতে উন্নীত করারও প্রস্তাব দেন অর্থমন্ত্রী।

বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, পাকিস্তানের সরকারি চাকরিজীবীদের মূল বেতন ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ বৃদ্ধির পাশপাশি তাদের চিকিৎসা ভাতা ১০০ শতাংশ এবং যাতায়াত ভাতা ১০ শতাংশ বাড়াতে চায় সরকার।

বছরের পর বছর ধরে চলা আর্থিক অনিয়ম, অব্যবস্থাপনা ও দুর্নীতির জেরে ডলারের মজুত তলানিতে নেমে যাওয়ায় গত বছরের শেষ দিক থেকে ভয়াবহ অর্থনৈতিক সংকটে পড়েছে পাকিস্তান। প্রয়োজন অনুযায়ী ডলারের মজুত না থাকায় ব্যাপক মূল্যস্ফীতি দেখা দিয়েছে দেশটিতে এবং গম, ডিম, আটা-ময়দা, ওষুধ, জ্বালানিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় সব পণ্যের দাম দিন দিন অসহনীয় পর্যায়ে চলে যাচ্ছে পাকিস্তানে। এই সংকটকে আরও ঘনীভূত করে তুলছে রাজনৈতিক অস্থিরতা।

জাতীয় অর্থনীতিতে পাথরের মতো চেপে বসা এই চাপ সামাল দিতে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম ঋণদাতা সংস্থা আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) কাছে ১১০ কোটি ডলার জরুরি ঋণ (বেইল আউট) চেয়েছে পাকিস্তান। কবে নাগাদ সেই ঋণ মিলবে— এখনও তার ইঙ্গিত দেয়নি আইএমএফ তবে ইসলামাবাদ আশা করছে, চলতি মাসে বাজেট পেশের আগেই আইএমএফ থেকে ‘সুসংবাদ’আসবে।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles