18.5 C
Toronto
বুধবার, জুন ১২, ২০২৪

রহস্যময় ‘মোনালিসা’ সেতু

রহস্যময় ‘মোনালিসা’ সেতু

লিওনার্দো দা ভিঞ্চির আঁকা মোনালিসা বিশ্বের অন্যতম বিখ্যাত এক শিল্পকর্ম। যা তার সৌন্দর্যের পাশাপাশি মডেলের পরিচয় এবং তার পেছনে আঁকা দৃশ্য ঘিরে রহস্যের জন্য বিখ্যাত।

- Advertisement -

মনে করা হয়, লিওনার্দো ১৫০৩ বা ১৫০৪ সালে ফ্রান্সেসকো দেল গিওকন্ডো নামে এক ধনী ফ্লোরেনটাইন ব্যবসায়ীর অনুরোধে প্রতিকৃতিটি আঁকা শুরু করেছিলেন। সেই ব্যবসায়ী তার স্ত্রী লিসা দেল গেরাদিনির একটি প্রতিকৃতি চেয়েছিলেন। পেইন্টিংটি তার নতুন বাড়ির জন্য এবং তার দ্বিতীয় পুত্র আন্দ্রেয়ার জন্ম উদযাপনের জন্য করতে বলা হয়। তবে, বিশেষজ্ঞ ও স্কলারদের মধ্যে তাদের পরিচয় নিয়ে বেশ বিতর্ক রয়েছে। নামকরণের ক্ষেত্রে সেই সময়ে ইতালিতে, মোনা মানে ম্যাডোনা, এভাবে সব নারীকে সম্বোধন করা হত। এখন যেমন মিসেস সম্বোধন করা হয়। এই মোনা থেকেই নামকরণ মোনালিসা হয়েছে।

তবে শুধু মডেল নয়, বহু শতাব্দী ধরে বিতর্ক চলছে ছবিটিতে মোনালিসার পেছনের স্থান বা দৃশ্য নিয়েও। ঠিক কোন স্থানটিকে কল্পনায় এনে শিল্পী এটি এঁকেছিলেন সেই প্রশ্নের উত্তর আজও অজানা।

তবে এবার ইতালীয় ইতিহাসবিদ সিলভানো ভিনসেটি দাবি করেছেন যে, বিখ্যাত লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চির চিত্রকর্ম মোনা লিসার সেতুটি টাস্কানির একটি ছোট শহরের অন্তর্গত। সেতুটির নাম রোমিটো ডি ল্যাটেরিনা, এবং এটি আরেজো প্রদেশে অবস্থিত। সিএনএন ও দ্য গার্ডিয়ান সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

সেতুটির অবস্থান নির্ধারণের জন্য ভিনসেটি ঐতিহাসিক নথি এবং ড্রোনের ছবি উদ্ধৃত করেছেন। তিনি উল্লেখ করেছেন যে, তার কাছে এটি স্পষ্ট মনে হয়েছে কারণ এর খিলানের সংখ্যা। বিখ্যাত তৈলচিত্রের সেতুটিতে চারটি খিলান রয়েছে, যা রোমিটো ডি ল্যাটেরিনার খিলানের সংখ্যার সঙ্গে মিলে যায় (যদিও সেতুটির এখন মাত্র একটি খিলান রয়েছে, যা আর্নো নদীর উপর প্রসারিত এবং বাকিগুলো ধ্বংস হয়ে গেছে)।

ভিনসেটি যোগ করেছেন যে, মেডিসি পরিবারের অন্তর্গত নথিগুলি দেখায় যে সেতুটি ১৫০১ থেকে ১৫০৩ সালের মধ্যে খুব ব্যস্ততম সেতু ছিল। সেই সময়, লিওনার্দো ভ্যাল ডি’আর্নো এলাকায় ছিলেন।

যদিও সেতুটি ঘিরে অনেক বিতর্ক রয়েছে। অনেকেই ভিন্ন স্থানকে চিহ্নিত করেছেন। তবে তিনি যদি সঠিক হন, তাহলে চিত্রকর্মটি সম্পর্কে অন্তত একটি রহস্য পরিষ্কার হবে।

মোনালিসাকে বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল পেইন্টিং হিসাবে বিবেচনা করা হয়। দর্শকরা যখন পেইন্টিংটি কাছ থেকে দেখে, তখন তারা একজন সাধারণ নারীর প্রতিকৃতি দেখে বিস্মিত হয়। তার হাসি এবং দৃষ্টি সম্পর্কে রহস্য লুকিয়ে আছে। পেইন্টিংটি সৃষ্টির প্রায় ৫০০ বছরেও বেশি হয়ে গেছে। এর ভ্রু এবং চোখের পাপড়ি বিবর্ণ হয়ে গেলেও মোনালিসার খ্যাতি সময়ের সঙ্গে বেড়েই চলেছে।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles