6.9 C
Toronto
রবিবার, এপ্রিল ১৪, ২০২৪

যাত্রী আকর্ষণে হিমশিম খাচ্ছে পাবলিক ট্রানজিট

যাত্রী আকর্ষণে হিমশিম খাচ্ছে পাবলিক ট্রানজিট
টরন্টো ট্রানজিট কমিশন ১০ সেন্ট ভাড়া বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে এর ফলে সিঙ্গেল ক্যাশ ফেয়ার বেড়ে হবে ৩ দশমিক ৩৫ ডলার সেই সঙ্গে ৩৬ কোটি ৬০ লাখ ডলারের বাজেট ঘাটতি মোকাবিলায় সেবাও হ্রাস করার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে

চলতি বছর পাবলিট ট্রানজিটের জন্য বেশি অর্থ খরচ করতে হবে কেলি ফেয়াচাইল্ডকে। এ অর্থ আসবে সরাসরি তার খাবারের বাজেট থেকে।
টরন্টোর এই বাসিন্দা বলেন, খাদ্য ও মুদিপণ্যের দাম বাড়ছেই এবং তারা যদি ট্রানজিটের ভাড়াও বৃদ্ধি করে তাহলে তা টেকসই হবে না। টরন্টো ডিজঅ্যাবিলিটি সাপোর্ট প্রোগ্রাম থেকে তার যে আয় হয় তা আহামরি কিছু নয়।

টরন্টো ট্রানজিট কমিশন ১০ সেন্ট ভাড়া বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে। এর ফলে সিঙ্গেল ক্যাশ ফেয়ার বেড়ে হবে ৩ দশমিক ৩৫ ডলার। সেই সঙ্গে ৩৬ কোটি ৬০ লাখ ডলারের বাজেট ঘাটতি মোকাবিলায় সেবাও হ্রাস করার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

- Advertisement -

ফেয়ারচাইল্ডের মতো ভোক্তাদের ওপর এটা আরেকটি আঘাত। কারণ, মূল্যস্ফীতির কারণে এমনিতেই তাদের জীবনযাত্রার ব্যয় অনেক বেড়ে গেছে।
তিনি বলছিলেন, যতবারই তারা রুটি অথবা টিটিসি অথবা বিদ্যুতের দাম বাড়ায় ততবারই লোকজনকে ত্যাগ স্বীকার করতে হয় এবং ক্ষুধার্ত থাকতে হয়। জনগণ যে প্রতিটি ডলারে বাঁচে তারা সেটা বোঝে বলে আমার মনে হয় না।

কোভিড-১৯ মহামারি ও আরও অনেক কারণে ওকানাডাব্যাপী পাবলিক ট্রানজিট রাজস্ব ঘাটতিতে ধুঁকছে। যাত্রী সংখ্যাও প্রত্যাশা অনুযায়ী বাড়ছে না। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, জীবনযাত্রার ব্যয়বৃদ্ধির মধ্যে ভাড়া বাড়িয়ে ও সেবা কমিয়ে কার্যত পুরনো ও নতুন যাত্রীদের দূরে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এর ফলে আর্থিক সংকট ও সেবা হ্রাস অব্যাহত থাকবে।

ইউনিভার্সিটি অব টরন্টোর ইনস্টিটিউট ফর ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড ইনোভেশনের সহযোগী অধ্যাপক শনা ব্রেইল বলেন, মূল্যস্ফীতি ও জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধি সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছেন যেসব নি¤œ আয়ের যাত্রী তাদের পকেটের ওপর বাড়তি চাপ তৈরি করবে টিটিসির ভাড়া বৃদ্ধি ও সেবা হ্রাস। ভাড়া বৃদ্ধির কারণে পরিস্থিতির উন্নতি যদি হয় তাহলে তা খারাপ নয়। কিন্তু যে পদ্ধতিতে ভাড়া বাড়ানো হচ্ছে তাতে পরিস্থিতির উন্নতি তেমন একটা হবে না। এমনকি এখন যে ধরনের সেবা মিলছে তাও সম্ভব হবে না। এটা টিকে থাকার লড়াই। ব্যয় বাড়ানো সত্ত্বেও আপনি যদি সেবা কমিয়ে দেন তাহলে নিশ্চিতভাবেই তা যাত্রী আকর্ষণে কোনো কাজে আসবে না।

নভেম্বরে টিটিসির যাত্রী সংখ্যা ছিল মহামারি-পূর্ববর্তী সময়ের ৭০ শতাংশের কিছু নিচে। টরন্টো মেট্রোপলিটান ইউনিভার্সিটির সিটি বিল্ডিং রিসার্চ ইনিশিয়েটিভের নির্বাহী পরিচালক চেরিস বুর্দা বলেন, অভিজ্ঞতা ও গবেষণা বলছে, অধিক নির্ভরযোগ্য ও দ্রুতগতির সেবা যাত্রী বাড়াতে পারে।

 

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles