-1 C
Toronto
সোমবার, ফেব্রুয়ারী ৬, ২০২৩

অন্তঃসারশূন্য রাজনীতিবিদ এবং তাদের দোসর !

অন্তঃসারশূন্য রাজনীতিবিদ এবং তাদের দোসর !
ছবি ব্রায়ান ওয়ার্থিম

রাজনীতি যেন বিনা পুঁজির, বিনা শিক্ষার এক অনন্য ব্যবসা।

আমাদের দেশের পদ্ধতিগত সমস্যা থাকলেও সেটি আমার জন্মদেশ এবং দেশের কোনো দোষ নাই বরং তলাহীন রাজনীতিবিদ এবং তাদের সমমনা পৃষ্ঠপোষকদের কারণে দিনে দিনে দেশের অনেক ক্ষতি হয়ে যাচ্ছে। তাদের প্যাচালের কারণে ইদানিং দেশের কোনো মিডিয়াকে ফলো করা একটা অধৈর্যের ব্যাপার। তারপরেও টিভি বা অন্য মিডিয়াতে মাঝে মধ্যে চোখ দেই, কারণ এইভাবেই এই দূরে বসেও দেশের বিভিন্ন জায়গার প্রাকৃতিক কিছু ছবি দেখা যায়, এবং সেগুলি দেখতে ভালো লাগে।

- Advertisement -

কিন্তু সেগুলির মধ্যেও ওই সমস্ত তলাহীন রাজনীতিবিদ এবং তাদের দোসরদের প্যাচাল চলে আসে, তখনই মন এবং মেজাজ দুটিই নষ্ট করে দেয়। উনাদেরকে তলাহীন বা অন্তঃসারশূন্য বলার কারণ হলো উনাদের ৯৫%ই কোনো ধরণের পড়াশুনা বা জানাশুনার ধারে কাছে যান না, যেটা ইউরোপ,আমেরিকা বা পার্শবর্তী দেশ ভারতেরও অনেক রাজনীতিবিদ করে থাকেন। এই সব দেশের সবার না হলেও অনেক রাজনীতিবিদদের মুখ থেকে শিক্ষণীয় অনেক কথা শোনা যায় এবং শুনতে ভালো লাগে। এদের অনেকে বইও লিখেছেন এবং সেগুলি বেশ ভালোও বটে।

যেহেতু আমাদের দেশের রাজনীতিবিদ এবং তাদের দোসরদের ভাড়ে কোনো কোপ্পুর নেই তাই তারা ওই যে কবে কি শিখেছিল বা জেনেছিলো সেই একই গান দিনের পর দিন গেয়ে যাচ্ছেন আর একই প্যাচাল পেড়ে যাচ্ছেন। অন্তন্ত তাদের কাজকর্ম এবং কথাবার্তায় তাই মনে হয়।

যাদের যোগ্যতা থাকে তারা কিন্তু কোন কিছু হারানোর ভয় করে না, কারণ তারা যদি কোনো কিছু হারায় তাহলে সেটাকে তারা জোর করে আঁকড়ে ধরতে চায় না, বরং তাদের নিজের যোগ্যতায় নতুন কিছু পেতে চেষ্টা করেন, কিন্তু আমাদের দেশের ওই তলাহীন লোকজনের কান্ড দেখে মনে হয় নতুন করে কিছু পাওয়ার মতো তাদের কোনো যোগ্যতা নেই, তাই তারা একবারে একটা কিছু পেলে তা আর ছাড়তে চায় না, সে ক্ষমতা বা পদ-পদবি যাই বলেন না কেন।

উনাদের কথা বার্তা আর কাজকর্ম দেখে মনে হয় উনাদের কাজই হলো একে অপরকে খোটা দেওয়া, একে অপরকে ছোট করা, পারলে একে অপরকে শেষ করে দেওয়া এবং নিজের ব্যার্থতাকে স্বীকার না করে অন্যের ব্যার্থতার কথা বলে ইনডাইরেক্টলি তাদের ব্যার্থতাকে বৈধতা দেওয়া এবং সার্বক্ষণিক একই ঢোল পেটানো। দুঃখজনক আজ পর্যন্ত কেউ একটু ব্যাতিক্রমী হয়ে কোনো নিদর্শন সৃষ্টি করতে পারলো না।

আপনি জাস্ট বিগত বছর খানেকের ইতিহাস থেকে উনাদের কথাবার্তা শোনেন বা কাজ কর্ম দেখেন, আপনি দেখবেন একই কথা, একই প্যাচাল, নতুন কোনো কিছুই পাবেন না, সে জন্যই বললাম তলাহীন বা অন্তঃসারশূন্য।

আপাত দৃষ্টিতে কোনো আশার আলো না দেখা গেলেও আশা ছাড়ি নাই। এই সমস্ত অন্তঃসারশূন্য বুড়াবুড়ির দল নিজ থেকে বিদায় না নিলেও, প্রকৃতি বা আল্লাহতালার নিয়মের হাত থেকে রেহাই পাবেন না, মরতে তাদের হবেই, এবং আশা করি অন্তঃসারশূন্য বুড়োবুড়িদের অবসান হলে হয়তোবা ভালো একটা পরিবর্তন দেখা দিবে, সেদিন হয়তো অনেক দূরে এবং আমরা সেটা দেখে যেতে পারবো না। যতদিন বেঁচে আছি সৃষ্টিকর্তার কাছে শুধু সেই দিনের কামনাই করে যাবো।

বিদেশী বন্ধুদের সাথে দেশের এই সমস্ত অন্তসারশূন্য মানুষদের কথাবার্তা বলা হয়না, কারণ তাদের কাছে নিজের দেশকে ছোট করতে ভালো লাগে না, বরং ভালো জিনিষগুলিই তুলে ধরার চেষ্টা করি কিন্তু ইদানিং সোশ্যাল মিডিয়ার কারণে তারা আর অজানা থাকেন না।

টরন্টো, কানাডা

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles