‘কয়েদি নম্বর ৯৫৬’

- Advertisement -

শাহরুখপুত্র আরিয়ান

মাদককাণ্ডে শাহরুখপুত্র গ্রেপ্তারের পর থেকে আলোচনা-সমালোচনা চলছে বি-টাউনে। বলিউড তারকা থেকে শুরু করে রাজনীতিবিদরা, অনেকেই শাহরুখ খানের পাশে দাঁড়িয়েছেন। কিন্তু কিছুতেই সুবিধা করে উঠতে পারছেন বলিউড বাদশা।

সবকিছু ছাড়িয়ে শাহরুখপুত্র আরিয়ানের পরিচয় এখন ‘কয়েদি নম্বর ৯৫৬’। এসব সিনেমার কাহিনী হলেও পারত। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস। ‘মান্নাত’ ছেড়ে আরিয়ানের জায়গা এখন হাজতে।

- Advertisement -

২৩ বছরের আরিয়ান খানকে মুম্বাইয়ের আর্থার রোড জেলখানায় পাঠানো হয়েছে। মুম্বাইয়ের আদালত বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) আবারও তার জামিন না মঞ্জুর করেছেন। গ্রেপ্তারের পর এই নিয়ে তৃতীয়বার তার জামিনের আবেদন করা হয়। কিন্তু জামিন হয়নি।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, জেলের খাবারই খেতে হচ্ছে আরিয়ান ও তার সঙ্গীদের। বাইরে থেকে খাবার পাঠানোর নিয়ম নেই। কিন্তু প্রথম কয়েক দিন জেলের খাবার না খেলেও এখন খেতে বাধ্য হচ্ছেন আরিয়ান। সোমবার (১১ অক্টোবর) জেলের ডাকঘরে সাড়ে চার হাজার রুপির মানি অর্ডার এসে পৌঁছেছে।

- Advertisement -

জেলের নিয়ম অনুযায়ী, খাবার খরচ বাবদ মাসে সর্বোচ্চ সাড়ে চার হাজার রুপি পাঠানো যায়। শাহরুখ ইতোমধ্যেই চলতি মাসের খরচ পাঠিয়ে দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টবর) জেলে এক সপ্তাহ হয়ে গেল শাহরুখপুত্রের। ২০ অক্টোবর পর্যন্ত এখানেই থাকতে হবে তাকে।

- Advertisement -

আর্থার রোড জেলের সুপার নীতিন ওয়েচাল ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে জানান, আরিয়ান খানের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। তারপর তাকে জেলের সাধারণ কক্ষে রাখা হয়েছে। আরিয়ানের সঙ্গে আরও যে পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল, তাদেরও কোয়ারেন্টাইন থেকে সাধারণ কক্ষে পাঠানো হয়েছে।

এনসিবির তদন্তে মূল অভিযুক্ত আরিয়ান খান। তদন্তকারী কর্মকর্তাদের অভিযোগ, শাহরুখপুত্র মাদক গ্রহণ করেছিলেন এবং মাদকদ্রব্যের অবৈধ কারবারের জন্য বিদেশি ব্যক্তির সঙ্গে যোগাযোগ ছিল। যারা আন্তর্জাতিক ড্রাগ নেটওয়ার্কের অংশ বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।

এদিকে ওই প্রমোদতরীতে আরিয়ান খান ছিলেন না বলে দাবি করেছেন তার আইনজীবী অমিত দেশাই। আদালতের কাছে তিনি এ দাবি করেছেন। অমিত দেশাই বলেন, আরিয়ানের বিরুদ্ধে মাদক নেওয়ার যে মামলা করা হয়েছে, তা ভিত্তিহীন। আরিয়ানের কাছ থেকে কোনো মাদক পাওয়া যায়নি। আরিয়ানের কাছে মাদক কেনার মতো কোনো টাকা ছিল না।

পাল্টা যুক্তি দেয় এনসিবির আইনজীবী। তিনি বলেন, বন্ধু আরবাজ শেঠ মার্চেন্টের থেকে নিষিদ্ধ মাদক নেওয়ার পরিকল্পনার কথা স্বীকার করেছেন আরিয়ান নিজেই। আরিয়ানের আইনজীবী এ দাবিও নাকচ করে দেন। বলেন, ২৩ বছর বয়সী আরিয়ানকে জোর করে এ কথা বলিয়ে নেওয়া হয়েছে।

ছেলেকে জামিন করাতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন শাহরুখ খান। সংবাদমাধ্যম সূত্রের খবর, আরিয়ানের জামিনের জন্য সালমান খানের আইনজীবীকে নিয়োগ দিয়েছেন তিনি। এর আগে আইনজীবী সতীশ মানশিন্ডেকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। তার পরিবর্তে অমিত দেশাইকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে আরিয়ানের আইনজীবী হিসেবে।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles