5.2 C
Toronto
মঙ্গলবার, নভেম্বর ২৯, ২০২২

ব্যক্তিগত ছবি ভাইরাল, প্রতিবাদ জানিয়ে যা বললেন মিথিলা

ব্যক্তিগত ছবি ভাইরাল, প্রতিবাদ জানিয়ে যা বললেন মিথিলা

সামাজিক মাধ্যমে নানা সময়ে বিভিন্ন কারণে কটাক্ষের শিকার হন তারকারা। কারণে-অকারণে নানা রকমের কুরুচিকর মন্তব্য ধেয়ে আসে। কখনও তাদের ছবি বিনা অনুমতিতে আপত্তিকরভাবে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। কখনও তারকারা ক্ষুব্ধ হয়ে তার প্রতিবাদ জানান সোশ্যাল মিডিয়াতেই। কখনও এড়িয়ে যান কিংবা সাইবার অপরাধ দমন শাখায় অভিযোগ করেন।

- Advertisement -

তিন বছর আগে এ রকমই অভিজ্ঞতার সম্মুখিন হয়েছিলেন দুই বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী রফিয়াত রশিদ মিথিলা। সাইবার অপরাধের দৌরাত্ম্যে তিনি এবং তার পরিবার দীর্ঘ সময় মানসিক বিপর্যয়ের সম্মুখিন হয়েছিলেন। তার ফেসবুক ঘটে যাওয়া সেই ঘটনা শনিবার আরও এক বার ফিরিয়ে দিয়েছে তার কাছে।

২০১৯ সালে কী ঘটেছিল মিথিলার সঙ্গে? অভিনেত্রীর পুরনো ফেসবুক পোস্ট বলছে, ‘আমার কিছু ব্যক্তিগত ছবি এক দল সাইবার অপরাধী ফেসবুকে পাবলিক করে দেয়। সম্ভবত আমার এক বন্ধুর ফেসবুক হ্যাক করেছিল তারা। সেখান থেকেই ছবিগুলো পেয়েছিল। আমি সেই সময় অকারণে এক দল বিকৃতমনস্কের লক্ষ্য বা টার্গেটে পরিণত হয়ে গিয়েছিলাম।’

অভিনেত্রীর আরও বক্তব্য, সেই আগুনে ইন্ধন জুগিয়েছিল কিছু সংবাদমাধ্যম। তারা মিথিলার অনুমতি ছাড়াই বিষয়টিকে নিয়ে মুখরোচক গল্প বানিয়ে পরিবেশন করেছিল খবরের কাগজ, ছোট পর্দা এবং ওয়েবসাইটে। নিমেষে বিতর্কিত চর্চার কেন্দ্রবিন্দু পরিণত হন তিনি। হাওয়ার বেগে খবরও ছড়িয়ে পড়ে।

মিথিলা কিন্তু সে দিন ভয় পাননি। ভেঙেও পড়েননি। বরং দৃঢ় ভাবে অন্যায়ের প্রতিবাদ করেছেন। অপরাধীদের শাস্তি দিতে নায়িকা প্রশাসনের সাইবার অপরাধ দমন শাখার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন। সমস্তটা জানিয়ে কিছু সংবাদমাধ্যমের বিরুদ্ধেও অভিযোগ দায়ের করেন। অনুরোধ জানান, অপরাধীদের যেন শাস্তি দেওয়া হয়। তিনি শোবিজ তারকা। তাই ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে অকারণ কৌতূহল তিনি বরদাস্ত করবেন না। এতে মিথিলা এবং তার পরিবারের সম্মানহানি হচ্ছে। প্রশাসনের হস্তক্ষেপে অবশেষে সমস্যার সমাধান হয়।

শনিবার, নিজের জীবনে ঘটে যাওয়া যুদ্ধের দিকে পেছনে ফিরে তাকিয়ে কী উপলদ্ধি মিথিলার? সে কথাও তিনি লিখেছেন ফেসবুকে। তার কথায়, ‘তিন বছরের এই যুদ্ধ অবশ্যই প্রথমে প্রচণ্ড আঘাত করেছে। ধীরে ধীরে এই আঘাতই আমার ঢাল হয়ে উঠেছে। আমায় শক্তিশালী বানিয়েছে। জীবন নিজের ছন্দে এগিয়ে গেছে।’

তার মতে, বড় হওয়ার পরে তিনি কখনওই ভাবেননি, তার জীবন যুদ্ধক্ষেত্রে পরিণত হবে। এবং সেখানে একা লড়াই করতে হবে। যদিও পুরোপুরি একা ছিলেন না মিথিলা। পাশে পেয়েছিলেন পরিবার, বন্ধু, এবং অসংখ্য সহৃদয় মানুষকে। যারা পাশে থেকে সমানে তাকে সমর্থন করেছেন। জীবনকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করেছেন।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles