15.3 C
Toronto
রবিবার, মে ২২, ২০২২

সামনে বড় লড়াই, সে লড়াইয়ে জিততে হবে: ফখরুল

- Advertisement -
সামনে বড় লড়াই, সে লড়াইয়ে জিততে হবে: ফখরুল - The Bengali Times
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, জোর করে ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগ সরকার বড় বড় উন্নয়নের নামে বড় দুর্নীতি করছে। দুর্নীতি-দুঃশাসনের কারণে দেশের মানুষ কার্যত জিম্মি অবস্থায় রয়েছে। মানুষের কথা বলার স্বাধীনতা নেই। দেশে হত্যা, ধর্ষণ, রাহাজানি চরমে পৌঁছেছে। তাই সরকার হটাতে ইতিমধ্যে আন্দোলন শুরু হয়েছে। সামনে বড় লড়াই রয়েছে। সেই লড়াইয়ে জিততে হবে।

তিনি বলেন, দানবীয় সরকারকে হটিয়ে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে। তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে হবে। দেশের মানুষকে আওয়ামী লীগের কবল থেকে মুক্ত করতে হবে।

- Advertisement -

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর মঙ্গলবার সিলেট জেলা বিএনপির দ্বিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব বলেন। সিলেট রেজিস্ট্রারি মাঠে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদার।

সম্মেলনে মির্জা ফখরুল আরো বলেন, দেশে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি হয়েছে। প্রকাশ্যে গুলি করে মানুষ খুন করা হচ্ছে। ধর্ষণ-নির্যাতন নৈমিত্তিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। অথচ পুলিশ বাহিনী আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির দিকে নজর না দিয়ে রাজনীতি ও দুর্নীতিতে ব্যস্ত। পুলিশের আইজি রাজনৈতিক নেতার মতো কথা বলছেন। ডিএমপি কমিশনারের ন্যুনতম শিষ্টাচার জ্ঞানও নেই। তিনি কোথায় লেখাপড়া করেছেন, কোন শিক্ষায় শিক্ষিত হয়েছেন তা আমাদের জানা নেই। খালেদা জিয়া সম্পর্কে তিনি যে বক্তব্য দিয়েছেন তার নিন্দা ও ধিক্কার জানাই।

মির্জা ফখরুল পুলিশের আইজি ও ডিএমপি কমিশনারকে প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে বলেন, পুলিশকে রাজনীতিতে না নামিয়ে দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করুন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, সরকার দুর্নীতির মহোৎসবে মেতেছে। ১০ হাজার কোটি টাকা দিয়ে শুরু করা পদ্মা সেতুর ব্যয় বাড়তে বাড়তে ৩০ হাজার কোটি টাকায় পৌঁছেছে। আর তা কেবলই লুটপাটের কারণে হচ্ছে। এভাবে মেট্রোরেলসহ বড় বড় প্রকল্পগুলো মূলত আওয়ামী লীগের লুটপাটের পথ প্রশস্ত করার হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। এসব দুর্নীতির টাকা তারা ‘বেগম পাড়ায়’ পাচার করছে। দলীয় লোকদের গঠিত সিন্ডিকেটের কারণে দ্রব্যমূল্যের এমন অস্বাভাবিক উর্ধ্বগতি।

মির্জা ফখরুল বলেন, সিলেটের জনপ্রিয় নেতা ইলিয়াস আলী, ছাত্রদল নেতা ইফতেখার আহমদ দিনার, জুনেদ আহমদ ও ইলিয়াস আলীর গাড়ি চালক আনসার আলীকে গুম করে রাখা হয়েছে। অবিলম্বে তাদের অক্ষত অবস্থায় ফিরিয়ে দিতে হবে। অন্যথায় সময়ের ব্যবধানে সব হিসাব আওয়ামী লীগকে দিতে হবে।

বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক কলিম উদ্দিন মিলন, জেলা আহ্বায়ক কমিটির সদস্য মাহবুবুর রব চৌধুরী ফয়সল ও মাহবুবুল হক চৌধুরীর যৌথ সঞ্চালনায় সম্মেলন উদ্বোধন করেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তাহসিনা রুশদীর লুনা।

সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ড. এনামুল হক চৌধুরী ও খন্দকার আবদুল মুক্তাদির, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. সাখাওয়াত হাসান জীবন, কেন্দ্রীয় সমাজ কল্যাণ সম্পাদক কামরুজ্জামান রতন, ক্ষুদ্রঋণ বিষয়ক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, কেন্দ্রীয় সদস্য ও বগুড়া পৌরসভার মেয়র রেজাউল করিম বাদশা, সিলেট মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকী, কেন্দ্রীয় সদস্য মিজানুর রহমান চৌধুরী।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য, সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

সম্মেলনে নিখোঁজ বিএনপি নেতা এম ইলিয়াস আলীর ছেলে ব্যারিস্টার আবরার ইলিয়াস, ছাত্রদল নেতা ইফতেখার আহমদ দিনারের বাবা ডা. মঈন উদ্দিন, ছাত্রদল নেতা জুনেদ আহমদের মা আয়েশা বেগম ও ছোট ভাই হাসান মঈন উদ্দিন ময়নুল, গাড়িচালক আনসার আলীর স্ত্রী মুক্তা বেগমের কাছে সমবেদনামূলক সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য ডা. শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী, কেন্দ্রীয় সদস্য আলী আজগর তালুকদার হেনা, আবুল কাহের চৌধুরী শামীম, কেন্দ্রীয় সদস্য এডভোকেট হাদিয়া চৌধুরী মুন্নী, সিলেট মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি নাসিম হোসাইন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম প্রমুখ।

সিলেট জেলা বিএনপির সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্বে প্রত্যক্ষ ভোটের মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত হয়। জেলার আওতাধীন ১৮ সাংগঠনিক ইউনিটের ১৮১৮ কাউন্সিলরের মধ্যে ১৭২৬ জন তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

ভোটে সভাপতি পদে যুবদলের সাবেক কেন্দ্রীয় সহসভাপতি আবদুল কাইয়ুম চৌধুরী সভাপতি, সিলেট জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি এমরান আহমদ চৌধুরী সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ছাত্রনেতা শামীম আহমদ সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles