26.6 C
Toronto
রবিবার, জুলাই ২১, ২০২৪

অস্ত্র কাঁধে বিশ্বের ভয়ঙ্করতম স্নাইপার শ্যুটার

অস্ত্র কাঁধে বিশ্বের ভয়ঙ্করতম স্নাইপার শ্যুটার - the Bengali Times
অস্ত্র কাঁধে বিশ্বের ভয়ঙ্করতম স্নাইপার শ্যুটার

শুক্রবার ১৬ দিনে পা দিল মস্কো-কিয়েভ সংঘাত। ইতিমধ্যেই ক্রেমলিনের আগ্রাসনের মুখে পড়ে বিপর্যস্ত ইউক্রেন। ইউক্রেনের উপর অবিরাম বোমা এবং ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালাচ্ছে রুশ সেনা। গত বুধবার মারিউপোলের এক হাসপাতালে হামলা চালিয়ে বিশ্বজুড়ে সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে রাশিয়াকে।

তবে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেনের আত্মবিশ্বাসী প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির প্রথম থেকেই দাবি ছিল, এই যুদ্ধে শেষমেশ তাঁর জয় নিশ্চিত।

- Advertisement -

জয় নিশ্চিত করতে এ বার নতুন সঙ্গীর সাহায্য পাচ্ছে কিয়েভ সরকার। নতুন এই সঙ্গীর নাম ‘দি মার্কসম্যান’। আর্ন্তজাতিক মহলে যিনি পরিচিত ‘ওয়ালি’ নামে।

ওয়ালি বিশ্বের অন্যতম প্রতিভাবান স্নাইপার। অব্যর্থ লক্ষ্যপূরণে এই স্নাইপারের জুড়ি মেলা ভার। একটিমাত্র গুলি ছুড়েই দূর থেকে শত্রুপক্ষকে খতম করতে পারদর্শী ৪০ বছর বয়সী এই বন্দুকধারী। অনেকেরই মতে, তিনি বিশ্বের ভয়ঙ্করতম স্নাইপার।

শত্রু নিধনে দক্ষ এই স্নাইপারের জন্ম কানাডায়। তিনি রয়্যাল কানাডিয়ান ২২ রেজিমেন্টের সদস্য। রুশ আগ্রাসন ঠেকাতে কানাডা থেকে এই ওয়ালিকেই নিয়ে যাওয়ার বন্দোবস্ত করেছে ইউক্রেন।

২০০৯ থেকে ২০১১ পর্যন্ত চলা আফগানিস্তান যুদ্ধের সময় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন ওয়ালি। এছাড়া ২০১৫ সালে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে লড়াইয়েও বড় ভূমিকা নিয়েছিলেন তিনি।

২০১৭ সালে আইএস-র বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ওয়ালির এক সতীর্থ দুই মাইলেরও বেশি দূরত্ব থেকে এক আইএস জঙ্গি নিধন করেন। যা সবচেয়ে দূর থেকে চালানো স্নাইপার শ্যুট হিসেবে রেকর্ড গড়ে। তবে অনেকেই মনে করেন এই গুলিটি ছুড়েছিলেন স্বয়ং ওয়ালিই।

একদিনে একাই শত্রুপক্ষের ৪০ সদস্যকে খতম করেছিলেন রয়্যাল কানাডিয়ান ২২ রেজিমেন্টের এই সদস্য।

ক্রেমলিনের পরিকল্পনা ভেস্তে দেয়ার উদ্দেশে ৫২টি দেশ থেকে ইউক্রেনের সাহায্যার্থে এগিয়ে আসা দুই লক্ষেরও বেশি স্বেচ্ছাসেবকের মধ্যে ওয়ালিও অন্যতম।

কিছুদিন আগে অবধি একজন কম্পিউটার বিশারদ হিসেবে কাজ করছিলেন ওয়ালি। মস্কো-কিয়েভ সংঘাত শুরু হতেই তিনি বিপদের মুখে পড়া ইউক্রেনকে সাহায্য করার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়বেন বলেই সিদ্ধান্ত নেন।

স্ত্রী এবং এক বছরের সন্তানকে রেখে এখনই যুদ্ধে নামার জন্য প্রস্তুত ওয়ালি। তবে নিরাপত্তার কারণে ওয়ালির মতো পারদর্শী সেনা সদস্যদের পরিবারের তথ্য গোপন রাখা হয়।

সম্প্রতি তিনি বলেন, ‘‘ইউক্রেনকে ধ্বংস হতে দেখে মনে হচ্ছিল, আমার নিজের সন্তান কষ্টে আছে।’’ আর সেই কারণেই তিনি কিয়েভ সরকারকে সাহায্য করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানান ওয়ালি।

মানবিকতার খাতিরেই তিনি এই যুদ্ধে ইউক্রেনের পক্ষ নিতে চলেছেন বলে জানান ভয়ঙ্করতম এই স্নাইপার।

এদিকে, জানা গেছে, ইতোমধ্যেই ওয়ালির মতো ১০ হাজার প্রশিক্ষিত সেনা সদস্যদের নিয়ে একটি বিশেষ টিম গঠন করতে চলেছে ইউক্রেন। যে টিমে থাকবেন এক লাখ ২০ হাজার সেচ্ছাসেবকও।

যুদ্ধক্ষেত্রে আরও সাহায্য পেতে আর্ন্তজাতিক সশস্ত্র বাহিনীর কাছেও সাহায্য চেয়ে পাঠিয়েছিলেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। সূত্র- টাইমস অব ইন্ডিয়া।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles