4.2 C
Toronto
শনিবার, অক্টোবর ২৩, ২০২১

১৪ প্রকার প্রেমিক প্রেমিকা

ছবি/জাভেদ ইকবাল

প্রেম বৈচিত্রে বাংলাদেশ বিশ্বে শীর্ষে। জাতি সংঘের উচিত দেশটাকে প্রেম ঐতিহ্যের রাজধানী ঘোষণা করা। বলধা গার্ডেনের কচুর পাতার আড়াল থেকে শুরু করে যমুনা ফিউচার পার্ক, নাইক্ষ্যংছড়ি থেকে বাংলাবান্ধা; সর্বত্র এদের নির্ভয় বিচরণ, অভয়ারণ্য।

নিম্নে নিজ দায়িত্বে এদেশের প্রেমিক প্রেমিকাদের শ্রেণীবিন্যাস করা হলো:

১. সুপ্ত: এরা বলা নাই কওয়া নাই হঠাৎ কাউকে আকাশ থেকে টেনে নামিয়ে প্রেম নিবেদন করবে। উদাহরণ: প্রাইভেট টিউশনির মাস্টার।

২. গুপ্ত: এরা আজীবন গাছের পাতায় পাতায় চলে। জীবনেও ধরা খায় না। উদাহরণ: এরাঞ্জড বিবাহের কন্যা।

৩. বিরোধী: এ ধরণের পাবলিক ভালোবাসা-বাসি দেখলেই মন্তব্য করবে- “ভবিষ্যৎ ঘুটঘুটে অন্ধকার!” উদাহরণ: বড় ভাই।

৪. বিদ্বেষী: এরা নিজেরা ভালোবেসে বিয়ে করলেও পরবর্তীতে কাউকে প্রেম করতে দেখলেই ক্ষেপে গিয়ে মারতে আসে। উদাহরণ: খালু, চাচা, মামা।

৫. সমর্থক: এরা ভীষণভাবে প্রেমের সমর্থক। এদের প্রধান কাজ হলো বন্ধুদের মধ্যে লাইন তৈরী করে প্রেমের যোগান দেওয়া। এদের প্রতি প্রথম কয়েকবছর সবাই কৃতজ্ঞ থাকলেও পরবর্তীতে গালিগালাজ দিয়ে বেড়ায়। উদাহরণ: পাড়ার খেলার সাথী, সমবয়সী সমলিঙ্গের কাজিন।

৬. অবিশ্বাসী: এরা জীবনেও স্বীকার করবে না যে প্রেম বলে কিছু আছে। উদাহরণ: সুবীর নন্দী।

৭. রাজপ্রেমিক: এরা মনের সুখে রাস্তার গাড়ি ভাঙচুর করে। উদাহরণ- রাজনৈতিক দলের ক্যাডার।

৮. আত্মপ্রেমিক: এরা রক্তের সম্পর্ক ছাড়া কাউকে ভালোবাসতে আগ্রহী নয়। উদাহরণ- ননদ, শ্বাশুড়ী।

৯. খাঁটি প্রেমিক: এরা শান্তিনিকেতনী ব্যাগ কাঁধে নিয়ে নিজের লেখা কবিতার বই “পুশ সেল” করে বেড়ায়। উদাহরণ- উঠতি কবি।

১০. দর্শন প্রেমিক: এদের কাছে ভালোবাসার কোনো মাথা মুন্ড নাই। ভালোবাসার কথা শুনলেই উদাস মনে সিগারেট ধরিয়ে ভাবুক বনে যাবে।

১১. বিশ্বপ্রেমিক :এরা মিনিটে মিনিটে প্রেমে পড়ে। উদাহরণ- এরশাদ।

১২: নাছোড়বান্দা: এরা কারো পিছে লাগলে “বাই হুক অর কুক” একটা শেষ দেখেই ছাড়বে; বিয়ে কিংবা গলায় দড়ি।

১৩. ছ্যাঁচড়া: এদের শাসিয়ে কোনো লাভ নাই, হাসিমুখে ছ্যাঁকা খেয়ে দাঁত কেলিয়ে হাসবে; মস্তান লেলিয়ে ঠ্যাং না ভাঙা পর্যন্ত। উদাহরণ: শাহরুখ খান।

১৪. দলপ্রেমী: এরা নিজের জীবনের চাইতেও পছন্দের রাজনৈতিক দলকে বেশি ভালোবাসে; এমন কি দেশের চাইতেও! দলের বিরুদ্ধে কোনো কথা হজম করার শক্তি সৃষ্টিকর্তা তাদের দেয় নাই। “সবার উপর দল সত্য তাহার উপর নাই” ধর্মে বিশ্বাসী। উদাহরণ: বাংলাদেশী।

***বিঃ দ্রঃ যারা সত্যিকারভাবেই ৮ নাম্বার পয়েন্টের তীব্র বিরোধী, ইকবালকে গালিগালাজ শুরু করে দিয়েছেন; তাদের শতকোটি সালাম।তাদের মতো মানুষে যেন দুনিয়া ভরে উঠে। আমাদের সমাজে তাদের খুব প্রয়োজন।

ফেব্রুয়ারী ১৪, ২০২১।

টরন্টো, কানাডা

- Advertisement - Visit the MDN site

Related Articles

- Advertisement - Visit the MDN site

Latest Articles