30.6 C
Toronto
রবিবার, আগস্ট ৭, ২০২২

ভ্যাকসিন না নেওয়া কর্মীদের বরখাস্তের পক্ষে ৭০% কানাডিয়ান

- Advertisement -
ভ্যাকসিন না নেওয়া কর্মীদের বরখাস্তের পক্ষে ৭০% কানাডিয়ান - The Bengali Times
কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন গ্রহণ বাধ্যতামূলক করার পর কানাডাজুড়ে বিভিন্ন খাতের হাজারো কর্মীকে চাকরি হারাতে হয়েছে অথবা অবেতন ছুটিতে যেতে হয়েছে

কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন গ্রহণে অস্বীকৃতি জানানো চাকুরেদের চাকরি থেকে বরখাস্ত করা উচিত বলে মনে করেন সিংহভাগ কানাডিয়ান। সোমবার প্রকাশিত অ্যাঙ্গাস রিডের নতুন এক সমীক্ষায় এ তথ্য উঠে এসেছে।

সমীক্ষায় অংশগ্রহণকারী প্রায় ৭০ শতাংশ কানাডিয়ান ভ্যাকসিন না নেওয়া এয়ারলাইন্স কর্মী, স্কুল শিক্ষক, পুলিশ কর্মকর্তা, প্যারামেডিক, দমকল কর্মী ও চিকিৎসা পেশায় নিয়োজিতদের বরখোস্তের যে ধারনা তার প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করেছেন। পাশাপাশি ভ্যাকসিন না নেওয়া রেস্তোরাঁ কর্মীদেরও অব্যাহতির পক্ষে মত দিয়েছেন ৬৪ শতাংশ কানাডিয়ান। নির্মাণ শ্রমিক ও ক্ষুদ্র ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের ব্যাপারেও একই রকম মতামত তুলে ধরেছেন যথাক্রমে ৫৫ ও ৫৩ শতাংশ কানাডিয়ান।

৩ থেকে ৭ নভেম্বর পর্যন্ত অনলাইনে পরিচালিত সমীক্ষাটিতে ১ হাজারের বেশি প্রাপ্ত বয়স্ক কানাডিয়ান অংশ নেন।

কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন গ্রহণ বাধ্যতামূলক করার পর কানাডাজুড়ে বিভিন্ন খাতের হাজারো কর্মীকে চাকরি হারাতে হয়েছে অথবা অবেতন ছুটিতে যেতে হয়েছে। কেন্দ্রীয়ভাবে নিয়ন্ত্রিত সব কর্মীর জন্য বাধ্যতামূলক ভ্যাকসিন নীতি এরই মধ্যে বাস্তবায়ন করেছে ফেডারেল সরকার। সোমবার থেকে ভ্যাকসিন না নেওয়া মূল কেন্দ্রীয় সরকারি খাতের কর্মীদের বেতন ছাড়াই ছুটিতে পাঠিয়ে দেওয়া হবে। কানাডাজুড়ে হাসপাতাল, ব্যাংক, বিমা, স্কুল বোর্ড, পুলিশ ও কিছু প্রাদেশিক প্রশাসনও বিদ্যমান ও নিয়োগের অপেক্ষায় থাকা কর্মীদের ক্ষেত্রেও একই নীতি চালু করা হচ্ছে।

তবে কর্মী সংকটের আশঙ্কায় স্বাস্থ্য কর্মীদের জন্য বাধ্যতামূলক ভ্যাকসিন নীতি থেকে এ মাসে সরে এসেছে কুইবেক। একইভাবে অন্টারিওও হাসপাতাল কর্মীদের পুরোপুরি ভ্যাকসিনেটেডের প্রয়োজন নেই বলে ঘোষণা দিয়েছে। স্বাস্থ্য সেবা খাতে নেতিবাচক প্রভাবের কথা ভেবে এ ঘোষণা দিয়েছে তারা।

ইউনিভার্সিটি অব টরন্টোর বায়োএথিক ও গ্লোবাল হেলথের অধ্যাপক বাউম্যান বলেন, সমীক্ষার ফলাফলে বিস্মিত হওয়ার মতো কিছু নেই। কানাডায় ভ্যাকসিন গ্রহীতা ও ভ্যাকসিনের বাইরে থাকা মানুষের মধ্যে এ বিভাজন সৃষ্টির জন্য রাজনৈতিক নেতৃত্বই দায়ী। সামাজিক এ বিভাজনের প্রভাব দীর্ঘদিন ধরে আমাদের ওপর থাকবে বলে আমার মনে হয়।

টরন্টোভিত্তিক এমপ্লয়মেন্ট আইনজীবী লিওর সামফিরু বলেন, সরকারি বাধ্যবাধকতা ছাড়াই কোনো কর্মীকেই বাড়িতে পাঠিয়ে দিলে তাকে ক্ষতিপূলণ দিতে হবে। ভ্যাকসিন ছাড়া কোনো কর্মী যে নিরাপদে কাজ করতে পারছেন না নিয়োগকারীকে সেটা প্রমাণ করতে হবে। কিন্তু সমস্যা হলো অন্টারিও এমনকি কানাডাজুড়েই ভ্যাকসিন না নেওয়া ছাড়াই যে কর্মীরা নিরাপদে কাজ করতে সক্ষম সরকার সে সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছে।

 

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles