6.9 C
Toronto
রবিবার, এপ্রিল ১৪, ২০২৪

ডার্ক চকলেট কী স্বাস্থ্যের জন্য নিরাপদ?

ডার্ক চকলেট কী স্বাস্থ্যের জন্য নিরাপদ?

ডার্ক চকলেটের রয়েছে জাদুকরী গুণ যা সবাইকে আকর্ষণ করে। ডার্ক চকোলেট ভালোবাসেন না, এরকম মানুষ কমই দেখা যায়। এক টুকরো চকলেট মুখে দিলেই আমরা বেশ ফুরফুরে বোধ করি৷ উপহার হিসাবেও ডার্ক চকোলেট দারুণ প্রিয়। আপাতদৃষ্টিতে দেখলে অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট এবং পলিফেনলে ভরপুর ডার্ক চকোলেট খেলে শরীরের উপকারেই তো লাগার কথা। এ ছাড়া বহু গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে, হার্টের স্বাস্থ্য ভাল থাকতে, মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা ঠিক রাখতেও ডার্ক চকোলেটের ভূমিকা রয়েছে।

- Advertisement -

ভালো মানের কালো বা ডার্ক চকলেটে রয়েছে প্রচুর পুষ্টি উপাদান। ৭০-৮৫ ভাগ কোকোয়াসমৃদ্ধ চকলেটকেই বলে ডার্ক চকলেট। এতে আছে আঁশ, লোহা, ম্যাগনেশিয়াম, কপার, ম্যাংগানিজ, পটাশিয়াম, ফসফরাস, জিঙ্ক ও সেলেনিয়াম। দিনে অল্প পরিমাণ ডার্ক চকলেট খেলেও ৫০ ভাগ পর্যন্ত হৃদ্রোগে মৃত্যুর ঝুঁকি কমে যায়। নিয়মিত চকলেট খেলে ইনসুলিনের কার্যকারিতা বাড়ে। ফলে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিও কমে। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে ও শারীরিক প্রদাহ রোধেও ডার্ক চকলেট সহায়তা করে।

বিশেষজ্ঞদের দাবি, শুক্রাণুর কর্মক্ষমতা বাড়ায় ডার্ক চকলেট! ডার্ক চকলেটে রয়েছে অ্যামিনো অ্যাসিড, এল-আর্জিনিন এইচসিএল যা শুক্রাণুর সংখ্যা বাড়ায়। এ ছাড়া পুরুষের বন্ধ্যাত্ব দূর করতে ডার্ক চকলেট বিশেষ ভূমিকা রাখে। বিশেষজ্ঞদের মতে, ডার্ক চকলেটে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা যৌন উদ্দিপনা বৃদ্ধিতে ভুমিকা রাখে।

তবে সম্প্রতি কনজিউমার রিপোর্টের এক গবেষণা অনুযায়ী, বেশ কিছু নামী সংস্থার ডার্ক চকোলেট বারে ক্যাডমিয়াম ও সীসা থাকে, যা স্বাস্থ্যের পক্ষে মোটেই ভাল নয়। হালের গবেষণা বলছে, এই ডার্ক চকোলেটের মূল উপাদান হল কোকো বীজ। তার মধ্যে রয়েছে ফ্ল্যাভেনল্‌স নামক একটি অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট। কিন্তু ডার্ক চকোলেটের মধ্যে থাকে ক্যাডমিয়াম এবং পারদের মতো বিষাক্ত দু’টি রাসায়নিক।

বিজ্ঞানীরা ২৮টি সংস্থার ডার্ক চকোলেট বার পরীক্ষা করে দেখেছেন, সব ক’টিতেই ভাল মাত্রায় ক্যাডমিয়াম ও সীসা আছে। নানা পরীক্ষা করে, দেখা গিয়েছে ২৩টি সংস্থার ডার্ক চকোলেটের মাত্র ২৪ গ্রাম সারা দিনে খেলেই শরীরের মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। মাত্র ৫টি সংস্থার ডার্ক চকোলেট বারেই ক্যাডমিয়াম ও সীসার মাত্রা খাওয়ার যোগ্য।

বিশেষজ্ঞদের মতে, দীর্ঘ দিন ধরে সামান্য মাত্রায় এই সব ধাতু শরীরে ঢুকলে মস্তিষ্কের বিকাশ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়। শিশুদের শরীরে উপর এর প্রভাব মারাত্মক।

কনজিউমার রিপোর্টের খাদ্য সুরক্ষা গবেষক টুন্ডে একিনলে বলেছেন, ‘‘এই সব ডার্ক চকোলেট বার যে কোনও বয়সি মানুষের শরীরেই খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে, প্রাপ্তবয়স্কদের শরীরে বেশি মাত্রায় সীসা জমতে থাকলে স্নায়ুতন্ত্রের সমস্যা, উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাওয়া, কিডনির ক্ষতি এবং গর্ভধারণেও সমস্যাও হতে পারে।’’

কনজিউমার রিপোর্টের গবেষণা অনুযায়ী, হার্শে’জ-এর স্পেশাল ডার্ক মাইল্ডলি সুইট চকোলেটের ২৮ গ্রামে সুরক্ষামাত্রার ২৬৫ শতাংশ বেশি সীসা মিলেছে এবং ট্রেডার জো’স-এর ডার্ক চকোলেট ৭২ শতাংশ বেশি এবং কাকাও-এর চকোলেটে ১৯২ শতাংশ বেশি সীসা মিলেছে।

দীর্ঘ দিন ধরে এই দু’টি যৌগ রক্তে মিশতে থাকলে কিডনি বিকল হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায় অনেক গুণ। এ ছাড়া, শিশু কিংবা অন্তঃসত্ত্বাদের ক্ষতির আশঙ্কা সবচেয়ে বেশি। তাই চিকিৎসকরা বলেন, ডার্ক চকোলেট খেয়ে স্বাস্থ্যের উন্নতির চেয়ে ক্ষতির আশঙ্কাই বেশি। তাই বলে কি একেবারেই চকোলেট খাবেন না? পুষ্টিবিদরা বলছেন, যে সব ডার্ক চকোলেটে কোকোর পরিমাণ ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ, সেই সব চকোলেট খেতে পারেন নির্দ্বিধায়।

শরীর সুস্থ রাখার জন্য প্রতিদিন ৫০-৬০ গ্রাম ডার্ক চকলেট খাওয়া যেতে পারে। তবে ডার্ক চকলেট উচ্চ ক্যালরি সম্পন্ন হওয়ায় বেশি পরিমাণে খাওয়া উচিত নয়। ক্যালরির চাহিদা ডার্ক চকলেটের মাধ্যমে ক্রস করে গেলে তা ওজন বাড়িয়ে স্বাস্থ্যের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। তাই নিজের স্বাস্থ্য ও ডায়েটের কথা মাথায় রেখে চকলেট খাওয়ার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করা উচিত আমাদের সবারই। বেশি পরিমাণে খেলে ডিহাইড্রেশন, ইনসমনিয়া, মাইগ্রেন, হার্টরেট বেড়ে যাওয়া এই সমস্যাগুলো হতে পারে। সীমিত পরিমাণে ডার্ক চকলেট খাওয়া আপনার চকলেট ক্রেভিং মেটানোর পাশাপাশি শরীর ও মন সুস্থ রাখবে।

- Advertisement -

Related Articles

Latest Articles