14.8 C
Toronto
রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২

চীনা ঋণের বিষয়ে সতর্ক করলেন অর্থমন্ত্রী

- Advertisement -

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল উন্নয়নশীল দেশগুলোকে সতর্ক করে বলেছেন, চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোড (বিআরআই) ইনিশিয়েটিভের মাধ্যমে আরও ঋণ নেওয়ার বিষয়ে দু’বার ভাবতে হবে। কারণ বৈশ্বিক মুদ্রাস্ফীতি এবং প্রবৃদ্ধি ঋণগ্রস্ত উদীয়মান বাজারগুলিতে চাপ বাড়ায়।

ফাইন্যান্সিয়াল টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মুস্তফা কামাল আরও বলেন, চীনকে তার ঋণের মূল্যায়নে আরও কঠোর হতে হবে। কারণ দুর্বল ঋণের সিদ্ধান্ত দেশগুলিকে সঙ্কটে ঠেলে দেওয়ার ঝুঁকি তৈরি করে।

বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী শ্রীলঙ্কার দিকে ইঙ্গিত করে বলেন, সেখানে চীনা-সমর্থিত অবকাঠামো প্রকল্পগুলি রিটার্ন জেনারেট করতে ব্যর্থ হয়েছিল এবং দ্বীপরাষ্ট্রটিকে একটি গুরুতর অর্থনৈতিক সঙ্কটের দিকে ঠেলে দিয়েছিল।

মুস্তফা কামালের সতর্কবাণী বিশ্বব্যাপী পরিস্থিতি যাই হোক না কেন, সবাইকে বিআরআই প্রকল্পে সম্মত হওয়ার আগে দু’বার ভাবতে হবে।

তিনি যোগ করেন, সবাই চীনকে দোষারোপ করছে। কিন্তু চীনের থেকে ঋণ নেওয়ার পর তার দায়িত্ব নিজেদেরই নিতে হবে।

মুস্তফা কামালের মতে, শ্রীলঙ্কার সংকট থেকে একটি বিষয় স্পষ্ট যে, কোন প্রকল্পগুলির ক্ষেত্রে ঋণ দেওয়া হবে, সেই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে চীন যথেষ্ট কঠোর ছিল না।

তিনি বলেন, একটি প্রকল্পে ঋণ দেওয়ার আগে সেটিকে ‘পুঙ্খানুপুঙ্খ অধ্যয়ন’ করতে হবে। শ্রীলঙ্কার পর আমরা অনুভব করেছি যে, চীনা কর্তৃপক্ষ এই বিশেষ দিকটির দিকে নজর দিচ্ছে না, যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বিশ্বব্যাংক, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক, এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক এবং জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সিসহ অন্যান্য বহুপাক্ষিক ও দ্বিপাক্ষিক ঋণদাতাদের কাছ থেকে বাংলাদেশ আরও ৪ বিলিয়ন ডলার চেয়েছে। তিনি আশাবাদী যে বাংলাদেশ তাদের কাছ থেকে ঋণ পাবে।

জ্বালানি ঘাটতির কারণে দৈনিক বহু-ঘণ্টা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ায় বাংলাদেশ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দেশের বৈদেশিক রিজার্ভও এক বছর আগের ৪৫ বিলিয়ন ডলার থেকে ৪০ বিলিয়ন ডলারের নিচে নেমে এসেছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, দেশের শক্তিশালী রপ্তানি খাত, বিশেষ করে এর পোশাক বাণিজ্য, সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক ধাক্কা থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করেছে এবং এর রিজার্ভ এখনও প্রায় পাঁচ মাসের মূল্যের আমদানির জন্য যথেষ্ট। তবে মুস্তফা কামাল একটি বিষয়ে আশ্বস্ত করেছেন, ‘বাংলাদেশ চাপের মধ্যে থাকলেও শ্রীলঙ্কার মতো খেলাপি হওয়ার ঝুঁকিতে ছিল না’।

সূত্র : বাংলানিউজ

Related Articles

Latest Articles