19.3 C
Toronto
সোমবার, জুন ২৭, ২০২২

মাঙ্কিপক্স ছড়াতে থাকায় শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার পরামর্শ

- Advertisement -
মাঙ্কিপক্স ছড়াতে থাকায় শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার পরামর্শ
ফাইল ছবি

মাঙ্কিপক্সের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কানাডায় গণ ভ্যাকসিনেশনের পয়োজন নেই বলে জানিয়েছেন উপ-প্রধান জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. হাওয়ার্ড এনজু। তবে ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচতে লোকজনকে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখঅ উচিত বলে মনে কেেরন তিনি।

ডা. হাওয়ার্ড এনজু বৃহস্পতিবার বলেন, যেহেতু ভাইরাসটি আক্রান্ত ব্যক্তির ঘনিষ্ঠ সান্নিধ্যের মাধ্যমে ছড়ায় তাই বাড়ির বাইরে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার মধ্য দিয়ে সক্রমণ এড়ানো সম্ভব। এছাড়া মাস্ক পরা, কাশি ও হাচি ঢেকে রাখা এবং ঘনঘন হাত ধোয়ার অভ্যাসও এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ।
পাবলিক হেলথ এজেন্সি অব কানাডা (পিএইচএসি) বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত ২৬ জন রোগী শনাক্ত করেছে। টরন্টোতে প্রথম রোগী শনাক্ত হয়েছে বৃহস্পতিবার। বাকিদের সবাই কুইবেকের, যেখানে আরও ডজনখানে সন্দেজনক আক্রান্তের ব্যাপারে তদন্ত চলছে।

এনজু বলেন, মাঙ্কিপক্সের সংক্রমণ ঠেকাতে কুইবেকের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে এক হাজার ডোজ স্মলপক্স ভ্যাকসিন সেখানে পাঠানো হয়েছে। প্রয়োজন হলে অন্যান্য প্রদেশে লক্ষ্যভিত্তিক ভ্যাকসিনের কথা ভাবছে পিএইচএসি। প্রাদেশিক স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষগুলোর সঙ্গে এ ব্যাপারে সক্রিয় আলোচনা চলছে।

তিনি বলেন, এই পর্যায়ে আমরা বলছি না যে, এটা গণ ভ্যাকসিনেশন কর্মসূচি হবে। তাদের কি দরকার সে ব্যাপারে বিভিন্ন প্রদেশের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষগুলোর সঙ্গে আমাদের সক্রিয় আলোচনা চলছে। আগেই ভ্যাকসিন পাঠানো হবে নাকি সংক্রমণ ধরা পড়ার পাঠানো হবে সে বিষয়টিতে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। আমাদের উদ্দেশ্য হলো যত দ্রুত সম্ভব প্রদেশগুলোতে ভ্যাকসিন পৌঁছে দেওয়া।

যদিও কানাডার হাতে কৌশলগতভাবে ভ্যাকসিনের ভালো মজুদ রয়েছে, তাই প্রয়োজনে আরও বেশি যাতে সরবরাহ করা যায় তা নিয়ে উৎপাদকদের সঙ্গে আলোচনা চলছে।
কুইবেকের স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা এর আগে বলেন, আক্রান্ত ব্যক্তিদের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের মধ্যে ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হবে। অথবা তাদের মধ্যে প্রয়োগ করা হবে যারা আক্রান্ত ব্যক্তিদের সঙ্গে বসবাস করছেন। শুক্রবার থেকে ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু করার কথা।
তারা বলেন, যারা এরইমধ্যে সংক্রমিত হয়েছেন তাদেরকে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে না। কারণ, এতে কোনো পার্থক্য তৈরি হবে না।

এনজু বলেন, ভ্যাকসিনের পাশাপাশি কুইবেক অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ টেকোভিরিমিটের সরবরাহও পেয়েছে। প্রয়োজন হলে সেগুলো বিতরণ করা হবে।
মাঙ্কিপক্স একটি বিরল রোগ, যার সংক্রমণ স্মলপক্সের জন্য দায়ী একই পরিবারের ভাইরাসের কারণে ঘটে থাকে। ১৯৮০ সালেই স্মলপক্স নির্মূলের ঘোষণা দিয়েছে বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থা। মাঙ্কিপক্স খুব সহজেই মানুষ থেকে মানুষে ছড়াই না। দীর্ঘসময় আক্রান্ত ব্যক্তির ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে থাকলেই কেবল এর সংক্রমণ হয়।
মাঙ্কিপক্স ছড়াতে থাকায় শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার পরামর্শ
শেখ তারেক

মাঙ্কিপক্সের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কানাডায় গণ ভ্যাকসিনেশনের পয়োজন নেই বলে জানিয়েছেন উপ-প্রধান জনস্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. হাওয়ার্ড এনজু। তবে ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচতে লোকজনকে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখঅ উচিত বলে মনে কেেরন তিনি।
ডা. হাওয়ার্ড এনজু বৃহস্পতিবার বলেন, যেহেতু ভাইরাসটি আক্রান্ত ব্যক্তির ঘনিষ্ঠ সান্নিধ্যের মাধ্যমে ছড়ায় তাই বাড়ির বাইরে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার মধ্য দিয়ে সক্রমণ এড়ানো সম্ভব। এছাড়া মাস্ক পরা, কাশি ও হাচি ঢেকে রাখা এবং ঘনঘন হাত ধোয়ার অভ্যাসও এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ।

পাবলিক হেলথ এজেন্সি অব কানাডা (পিএইচএসি) বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত ২৬ জন রোগী শনাক্ত করেছে। টরন্টোতে প্রথম রোগী শনাক্ত হয়েছে বৃহস্পতিবার। বাকিদের সবাই কুইবেকের, যেখানে আরও ডজনখানে সন্দেজনক আক্রান্তের ব্যাপারে তদন্ত চলছে।

এনজু বলেন, মাঙ্কিপক্সের সংক্রমণ ঠেকাতে কুইবেকের অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে এক হাজার ডোজ স্মলপক্স ভ্যাকসিন সেখানে পাঠানো হয়েছে। প্রয়োজন হলে অন্যান্য প্রদেশে লক্ষ্যভিত্তিক ভ্যাকসিনের কথা ভাবছে পিএইচএসি। প্রাদেশিক স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষগুলোর সঙ্গে এ ব্যাপারে সক্রিয় আলোচনা চলছে।

তিনি বলেন, এই পর্যায়ে আমরা বলছি না যে, এটা গণ ভ্যাকসিনেশন কর্মসূচি হবে। তাদের কি দরকার সে ব্যাপারে বিভিন্ন প্রদেশের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষগুলোর সঙ্গে আমাদের সক্রিয় আলোচনা চলছে। আগেই ভ্যাকসিন পাঠানো হবে নাকি সংক্রমণ ধরা পড়ার পাঠানো হবে সে বিষয়টিতে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। আমাদের উদ্দেশ্য হলো যত দ্রুত সম্ভব প্রদেশগুলোতে ভ্যাকসিন পৌঁছে দেওয়া।

যদিও কানাডার হাতে কৌশলগতভাবে ভ্যাকসিনের ভালো মজুদ রয়েছে, তাই প্রয়োজনে আরও বেশি যাতে সরবরাহ করা যায় তা নিয়ে উৎপাদকদের সঙ্গে আলোচনা চলছে।
কুইবেকের স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা এর আগে বলেন, আক্রান্ত ব্যক্তিদের ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের মধ্যে ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হবে। অথবা তাদের মধ্যে প্রয়োগ করা হবে যারা আক্রান্ত ব্যক্তিদের সঙ্গে বসবাস করছেন। শুক্রবার থেকে ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু করার কথা।
তারা বলেন, যারা এরইমধ্যে সংক্রমিত হয়েছেন তাদেরকে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে না। কারণ, এতে কোনো পার্থক্য তৈরি হবে না।

এনজু বলেন, ভ্যাকসিনের পাশাপাশি কুইবেক অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ টেকোভিরিমিটের সরবরাহও পেয়েছে। প্রয়োজন হলে সেগুলো বিতরণ করা হবে।

মাঙ্কিপক্স একটি বিরল রোগ, যার সংক্রমণ স্মলপক্সের জন্য দায়ী একই পরিবারের ভাইরাসের কারণে ঘটে থাকে। ১৯৮০ সালেই স্মলপক্স নির্মূলের ঘোষণা দিয়েছে বিশ^ স্বাস্থ্য সংস্থা। মাঙ্কিপক্স খুব সহজেই মানুষ থেকে মানুষে ছড়াই না। দীর্ঘসময় আক্রান্ত ব্যক্তির ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে থাকলেই কেবল এর সংক্রমণ হয়।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles