12.5 C
Toronto
রবিবার, মে ২২, ২০২২

ডাক্তার বলেছে বাবা হতে পারবে না, অতঃপর…

- Advertisement -
ডাক্তার বলেছে বাবা হতে পারবে না, অতঃপর… - The Bengali Times
গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তি

চুয়াডাঙ্গায় বিষাক্ত ইনজেকশন পুশ করে আড়াই মাস বয়সী শিশু ইকবাল হোসেনকে হত্যার কথা বাবা ইখলাছ উদ্দিন স্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (৩১ মার্চ) দুপুর ১২টার দিকে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় এক সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আনিসুজ্জামান লালন এ তথ্য নিশ্চিত করেন। এর আগে একই দিন সকালে বাদী হয়ে ইখলাছ উদ্দিনকে আসামি করে মামলা করেছে শিশুটির মা মিতা খাতুন।

- Advertisement -

মামলার এজাহার থেকে জানা গেছে, প্রায় ১২ বছর দাম্পত্য জীবনে কোনো সন্তান হয়নি ইখলাছ উদ্দিন ও তার প্রথম স্ত্রীর। তবে প্রায় ৪ বছর আগে মিতা খাতুনকে বিয়ে করেন তিনি। দ্বিতীয় স্ত্রী ও সন্তানকে নিয়ে চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার মাঝেরপাড়ার একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন ইখলাছ। পরে তাদের কোলজুড়ে আসে এক ছেলেসন্তান। এরপর থেকে দ্বিতীয় স্ত্রী মিতাকে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক নিয়ে সন্দেহ করতে থাকেন তিনি। এক পর্যায়ে ওই ছেলে তার না বলে জানান ইখলাছ। বুধবার (৩০ মার্চ) সকাল ৮টার দিকে বাড়ির কাজ করছিলেন মিতা। তখন ছেলেকে কোলে নেন ইখলাছ। পরে শিশু ইকবালের বাম পায়ে বিষাক্ত ইনজেকশন পুশ করেন তিনি। এ সময় অসুস্থ্য হয়ে পড়লে ইকবালকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন চিকিৎসক। সেখানে নেওয়ার পথে বিকেলে মারা যায় শিশুটি।

নিহত শিশুর মা মিতালী খাতুন বলেন, এর আগে আমার অন্য আর এক জায়গায় বিয়ে হয়েছিল। পারিবারিক কলহের কারণে বিচ্ছেদ হয়। সেই পক্ষের দুই ছেলেসন্তানও আছে, তারা নানাবাড়িতে থাকে। প্রথম স্ত্রীর কোনো সন্তান না হওয়ায় ৪ বছর আগে ইখলাছ আমাকে বিয়ে করেন। পরে আমাদের কোলজুড়ে আসে এক ছেলেসন্তান। তারপর থেকে সে আমাকে বিয়ে-বর্হিভূত সম্পর্ক নিয়ে সন্দেহ করতে থাকে।

তিনি আরও বলেন, প্রায় ১৫ দিন আগে একটি ওষুধের মধ্যে বিষ মিশিয়ে আমার ছেলে ইকবালকে হত্যার চেষ্টা করে সে। এ সময় দ্রুত হাসপাতালে নিলে রক্ষা পায় আমার ছেলে। পরে আমি বাবার বাড়ি চলে যাই এবং আমার ছেলেকে নিয়ে একা থাকার কথা বলি। কিন্তু ওই ধরনের কাজ আর করবে না বলে আমাদের ফিরিয়ে আনে ইখলাছ। বুধবার (৩০ মার্চ) সকালে ইনজেকশনের মধ্যে বিষ মিশিয়ে আমার ছেলেকে হত্যা করে সে। আমি তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

অভিযুক্ত ইখলাছ উদ্দিন বলেন, শারীরিক সমস্যার কারণে সন্তানের বাবা হতে পারব না বলে জানান চিকিৎসক। মিতালীর সঙ্গে ফোনে আমার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। তাকে বিয়ে করি। আড়াই মাস আগে সন্তান হলে আমার সন্দেহ হয়। ওই সন্তান আমার নয় বলে জানাই। ওই সন্তানকে অন্য কারও কাছে দেওয়ার জন্যও বলি। কিন্তু সে কোনো কথা না শুনলে আমি শিশু ইকবালকে হত্যার পরিকল্পনা করি। বুধবার (৩০ মার্চ) সকালে ইনজেকশনের মধ্যে বিষ ঢুকিয়ে তার শরীরে পুশ করি। পরে মারা যায় সে।

সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আনিসুজ্জামান লালন জানান, গ্রেপ্তারকৃত বাবা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বিষ মিশ্রিত ইনজেকশন পুশ করে শিশু ইকবালকে হত্যা করার কথা স্বীকার করেছে। বৃহস্পতিবার (৩০ মার্চ) সকালে বাদী হয়ে স্বামীর নামে মামলা করেন শিশুর মা মিতা খাতুন। ওই মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। দুপুরে তাকে আদালতে তোলা হয়।

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles