13.1 C
Toronto
বুধবার, মে ২৫, ২০২২

ইউক্রেন যুদ্ধে জড়াচ্ছে ন্যাটো? যেতে পারে ১০ হাজার সেনা

- Advertisement -

ইউক্রেন যুদ্ধে জড়াচ্ছে ন্যাটো? যেতে পারে ১০ হাজার সেনা - The Bengali Times

ইউক্রেনের বেসামরিক স্থাপনা ও নাগরিকদের রুশ বাহিনী থেকে সুরক্ষা নিশ্চিতে শান্তিবাহিনী মোতায়েনের একটি প্রস্তাব ন্যাটোতে তোলার কথা জানিয়েছে পোল্যান্ড। অন্যদিকে শান্তিবাহিনী মোতায়েন হলে সরাসরি সংঘর্ষের হুঁশিয়ারি দিয়েছে রাশিয়া।

- Advertisement -

বুধবার রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সার্গেই ল্যাভরভ জানান, ন্যাটোর পক্ষ থেকে শান্তিবাহিনী মোতায়েন হলে রুশ সেনাদের সঙ্গে সরাসরি সংঘর্ষের সৃষ্টি হবে। এর পরিণতি ভয়াবহ হবে।

পোল্যান্ড ১০ হাজার শান্তিবাহিনীর সদস্য মোতায়েনের গোপন পরিকল্পনা করছে বলে জানিয়েছে দেশটির সংবাদমাধ্যম। ন্যাটোভুক্ত দেশগুলোর সদস্যদের সমন্বয়ে এ বাহিনী গড়ে তোলা হবে। তারা ইউক্রেনে বেসামরিক স্থাপনা ও নাগরিকদের সুরক্ষা নিশ্চিতে কাজ করবে। এ ছাড়া, খাবার-ওষুধ সরবরাহসহ ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা থেকে নাগরিকদের বের করারও চেষ্টা করবে।

এক্ষেত্রে, ইউক্রেনের বিভিন্ন অঞ্চলে নো-ফ্লাই জোন ঘোষণা করতে হবে ন্যাটোকে। আর নো-ফ্লাই জোন কার্যকর করতে হলে রুশ বিমান লক্ষ্য করে সরাসরি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা করতে হবে। ফলে উভয় বাহিনীর মধ্যে সরাসরি সংঘর্ষের সৃষ্টি হবে।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার বেলজিয়ামের ব্রাসেলসে ন্যাটো নেতৃবৃন্দের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনও উপস্থিত থাকবেন। ওই সম্মেলনেই শান্তিবাহিনী মোতায়েনের প্রস্তাব উপস্থাপনের সম্ভাবনা রয়েছে।

তার আগে প্রস্তাবটি ওয়াশিংটনে পাঠানো হবে। হোয়াইট হাউজের পক্ষ থেকে সবুজ সংকেত পেলেই অগ্রসর হবে পোল্যান্ড। সবুজ সংকেতের দেখা না মিললে শান্তিবাহিনী মোতায়েনের পরিকল্পনা থেকে সরে আসবে পোল্যান্ড।

আগামী শুক্রবার পোল্যান্ডে সফর করবেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। সেখানে তিনি মার্কিন সেনাদের সঙ্গে বৈঠকসহ আন্দ্রেই দুদার সঙ্গে বৈঠক করবেন। সেখানেও শান্তিবাহিনী মোতায়েনের বিষয়ে আলোচনা হতে পারে।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরু করে রাশিয়া। প্রাণ বাঁচাতে প্রতিবেশী দেশে আশ্রয় নিয়েছে প্রায় ৩০ লাখ মানুষ। এদের অর্ধেকের বেশি আশ্রয় নিয়েছে পোল্যান্ডে। শরণার্থীর সংখ্যা আরও বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে। তাদের সব অধিকার সুরক্ষায় হিমশিম খেতে হচ্ছে পোল্যান্ডকে।

এ ছাড়া, রাশিয়ার আগ্রাসন ঠেকাতে পোল্যান্ডে সেনা মোতায়েন করেছে যুক্তরাষ্ট্র। মূলত মিত্রদেশগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিতেই সেনা মোতায়েন করেছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের শঙ্কায় ইউক্রেনে সরাসরি সেনা পাঠানোর বিরোধী যুক্তরাষ্ট্র।

সূত্র-রয়টার্স

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles