19.6 C
Toronto
সোমবার, জুন ২৭, ২০২২

শাবি ভিসি ফরিদ সরে দাঁড়ান, নয় সরানো হোক

- Advertisement -
শাবি ভিসি ফরিদ সরে দাঁড়ান, নয় সরানো হোক - The Bengali Times
পীর হাবিবুর রহমান

সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ড. ফরিদ উদ্দিন আহমেদ যেভাবে একজন হল প্রভোস্টের পদত্যাগ আন্দোলনে ঘি ঢেলে নিজের ঘরে আগুন জ্বালিয়ে দিলেন এটা বিস্ময়কর। মনে হচ্ছে ভিসি সাহেব পদ আঁকড়ে থাকতে লজ্জা-শরম হারিয়ে ফেলেছেন। এমন পিতৃহৃদয়হীন নির্দয় ভিসি নিজের ঘরে আগুন লাগিয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের নিয়ে কটূক্তি করেন। ওখানেও আন্দোলন জাগিয়ে তোলেন। এমন মানুষ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি থাকেন কীভাবে! একজন কর্তৃত্ববাদী ভিসি হিসেবে তাঁর পরিচিতি জেনেও তাঁকে দ্বিতীয় মেয়াদের জন্য নিযুক্ত করা হয়েছে। তিনি ছাত্রছাত্রীদের সন্তানের মতো ভাবলে, তাদের সঙ্গে সহৃদয় আলোচনা করে সমাধানের পথ বেছে নিলে আজ তাঁর বাসভবন অন্ধকার হতো না। তিনি রাতের আঁধারে ক্যাম্পাসে পুলিশ ডেকে এনে ছাত্রদের পিটিয়েছেন, সাউন্ড গ্রেনেড বিস্ফোরণে আতঙ্কগ্রস্ত করে আন্দোলনরত ছাত্রছাত্রীদের আরও মারমুখী করেছেন।

ছাত্রছাত্রীদের তাঁর মতোন উগ্রপথে যেতে বাধ্য করেছেন। তাঁর বাসভবনের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে ছাত্রছাত্রীরা যে উগ্রপন্থা বেছে নিয়েছেন তা গ্রহণযোগ্য নয়। আর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন যেখানে ব্যর্থ, আন্দোলন যেখানে অগ্নিগর্ভ সেখানে প্রমাণ হয়েছে আজ সিলেটে রাজনৈতিক নেতৃত্ব কত ব্যর্থ, দেউলিয়া। একযোগে সব দলের নেতারা গিয়ে ভিসি ও আন্দোলনকারী ছাত্রদের সঙ্গে বসে সমাধান করার কোনো উদ্যোগ কেউ দেখেননি। বরং এক নেতা উদ্যোগ নিয়ে অগ্রসর হলেও ১০ নেতা ভ-ুল করতে আড়ালে তৎপর। আরেক পক্ষ আগুন বাড়াতে ইন্ধন জুগিয়েছে কি না প্রশ্ন উঠেছে। সিলেটে মন্ত্রীরা কী করলেন? আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক মন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ কি দেশে? শিক্ষামন্ত্রী আন্দোলন বন্ধ করে ছাত্রনেতাদের ঢাকায় এসে তাঁর সঙ্গে আলোচনা করতে বলেছেন! তাঁর কি সন্ধানীর বাইরে ছাত্র আন্দোলন দেখা হয়নি? তিনি কি ইতিহাসের পাঠ নেননি? সেনাশাসক জিয়ার জমানায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগসহ সব সংগঠন শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী বাতেনকে কি আটকায়নি? শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্যের জবাব সংসদে রাজনীতিবিদ কাজী ফিরোজ রশীদ দিয়েছেন। শাবি ভিসির পরিণতি কী হবে জানি না। জানি না এ ছাত্র আন্দোলনের শেষ কোথায়? তবে শাবি ভিসিকে যেখানে ছাত্রছাত্রীরা চান না আর তাঁর গ্রহণযোগ্যতা যেখানে শেষ সেখানে নিজেরই পদত্যাগ করা উচিত। করোনাক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে পড়ে আছি, সঙ্গে নানা জটিলতা, তবু শাবি নিয়ে লিখতে হলো। বারবার মনে পড়ল এমন ভিসি অতীতে কেউ দেখেনি। আমরাও দেখিনি। সামরিক শাসনামলেও না। একালে এমন ভিসি হামেশাই দেখা যায়। আবার কট্টর আওয়ামী লীগ হয়ে প্রবল জনপ্রিয়তা নিয়ে ড. মিজানুর রহমান কীভাবে আট বছর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি হিসেবে সফল দক্ষ তারও উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত রয়েছে। ড. ফরিদ উদ্দিন নিজে সরে না দাঁড়ালে সরকারের উচিত সরিয়ে শান্তি আনা।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সূত্রপাত ১৩ জানুয়ারি। ওই দিন রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের প্রাধ্যক্ষ জাফরিন আহমেদের বিরুদ্ধে অসদাচরণের অভিযোগ তুলে তাঁর পদত্যাগসহ তিন দফা দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন হলের কয়েক শ ছাত্রী। ছাত্রীদের অভিযোগ, সিরাজুন্নেসা হলের ছাত্রীরা কিছু সমস্যার কথা বলতে প্রাধ্যক্ষ জাফরিন লিজাকে মোবাইল ফোনে কল করেন। এ সময় তিনি ছাত্রীদের সঙ্গে অসদাচরণ করেন। এর প্রতিবাদে ছাত্রীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে হলের সামনে বিক্ষোভ শুরু করলে ছাত্রলীগ ছাত্রীদের আন্দোলনে হামলা চালায়।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলেছেন, আবাসিক হলের পানি, সিট, ইন্টারনেট, খাবারসহ বেশ কিছু সমস্যা নিয়ে শিক্ষার্থীরা হলের রিডিং রুমে আলোচনা করছিলেন। আলোচনার মাঝে হল প্রভোস্ট অধ্যাপক জাফরিন আহমেদ লিজাকে ফোন দিয়ে অল্প সময়ের জন্য হলে আসার জন্য অনুরোধ করা হয়। প্রথমে তিনি অসুস্থতার অজুহাত দেখিয়ে এড়িয়ে যেতে চান। এরপর শিক্ষার্থীরা তাঁর কাছে প্রভোস্ট বডির কাউকে হলে পাঠানোর অনুরোধ জানালে জাফরিন আহমেদ লিজা ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, ‘কেউ তো মরেনি যে তোমাদের দেখতে আসব। আমার এত ঠেকা পড়েনি। ইচ্ছে হলে থাক, নয় তো বেরিয়ে যেতে পারো!’

প্রভোস্টের এ মন্তব্যে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন শিক্ষার্থীরা। তারা বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন শুরু করলে ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা সেখানে হামলা চালান। আন্দোলনরত ছাত্রীরা জানান, ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা এসে কর্মসূচি গুটিয়ে তাদের চলে যেতে বলেন। এ সময় আন্দোলনকারী ছাত্রীদের সঙ্গে ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের বাগ্বিতন্ডা হয়। এরই মধ্যে ছাত্রীদের আন্দোলনে সংহতি জানাতে যাওয়া ১০-১২ জন শিক্ষার্থীকে সেখানে বেধড়ক মারধর করা হয়। হামলাকারীদের হাত থেকে তাদের বাঁচাতে গিয়ে হেনস্তার শিকার হন আন্দোলনরত কয়েকজন ছাত্রী। ক্যাম্পাসের গোলচত্বরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক জহির উদ্দিন আহমেদ এবং প্রক্টর সহযোগী অধ্যাপক ড. আলমগীর কবিরের উপস্থিতিতে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনার পর ‘শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে ছাত্রলীগের হামলা কেন, প্রশাসন জবাব চাই’সহ বিভিন্ন স্লোগান দিয়ে ছাত্রীরা হামলার বিচার ও প্রাধ্যক্ষ জাফরিন আহমেদের পদত্যাগ দাবিতে তাদের কর্মসূচি চালিয়ে যেতে থাকেন। আন্দোলনের একপর্যায়ে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন একাডেমিক ও প্রশাসনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে দেন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি ভবনে উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করেন। তখন শিক্ষার্থীদের লাঠিপেটা ও তাদের লক্ষ্য করে শটগানের গুলি ও সাউন্ড গ্রেনেড ছোড়ে পুলিশ। এতে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হন। পুলিশ ৩০০ জনকে অজ্ঞাত দেখিয়ে শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে মামলা করে।

পরে ১৫ জানুয়ারি রাতে বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ও শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ দেন কর্তৃপক্ষ। এতে আরও বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন শিক্ষার্থীরা। এবার তারা উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন। এরই মধ্যে ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের প্রাধ্যক্ষ জাফরিন আহমেদ লিজা পদত্যাগ করলেও শিক্ষার্থীরা আন্দোলন চালিয়ে যেতে থাকেন। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগ দাবিতে ১৯ জানুয়ারি বিকালে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে ২৪ শিক্ষার্থী আমরণ অনশনে বসেন। পরে তাদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করে বাড়তে থাকে অনশনে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে তৈরি হওয়া অচলাবস্থা নিরসনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ২২ জানুয়ারি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক করেন। পরদিন তিনি আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গেও ভার্চুয়ালি বৈঠকে অংশ নেন। কিন্তু কোনো সমাধানে পৌঁছতে পারেননি। অব্যাহত রয়েছে শিক্ষার্থীদের অনশন। অনশনে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীর অনেকেই অসুস্থ হন। এরই মধ্যে ২০ শিক্ষার্থীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনের বিষয়টি জাতীয় সংসদের আলোচনায় উঠে এসেছে। গত রবিবার এ বিষয়ে জাতীয় সংসদে অনির্ধারিত আলোচনায় অংশ নিয়ে বিরোধী দলের সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ ও পীর ফজলুর রহমান শাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমদকে অবিলম্বে অপসারণের দাবি জানান।

আলোচনায় অংশ নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর উদ্দেশে কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, শিক্ষামন্ত্রী আছেন উনি বলেছিলেন যে তোমাদের দাবি-দাওয়া রেখে ঢাকা আস আমার সঙ্গে আলোচনা করতে। আমরা সবাই ছাত্র আন্দোলন করে এসেছি, আন্দোলনের মাঠ ছেড়ে কখনো কোনো ছাত্র কারও সঙ্গে দেখা করতে ঢাকা আসবে না আমরা জানি। মন্ত্রীর উচিত ছিল ওখানে ডাবল মাস্ক পরে যাওয়া। মোনায়েম খান বহুবার আমাদের বঙ্গভবনে ডেকেছেন। আমরা তখন ছাত্র ছিলাম, আমরা বিয়ের দাওয়াত পেতাম না, আমাদের মিলাদের দাওয়াতও দিত না। কিন্তু বঙ্গভবনের দাওয়াতও কিন্তু আমরা প্রত্যাখ্যান করেছি। আমরা কখনো কোনো আন্দোলন করতে গিয়ে বঙ্গভবনের দাওয়াতে যাইনি। ছাত্ররা কেন আসবে আপনার কাছে। দেশে প্রতিটি ছাত্র আন্দোলন হয়েছে যৌক্তিকভাবে।

তিনি বলেন, আর কোনো তদন্ত রিপোর্ট নয়, কারও সঙ্গে আলাপ-আলোচনা নয়, শিক্ষামন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রী আছেন, ভাইস চ্যান্সেলরকে আজকের মধ্যেই ওখান থেকে প্রত্যাহার করে নিয়ে আসেন, ছাত্রদের ক্লাসে ফিরে যেতে সহায়তা করেন। কয়েক দিন ধরে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ভিসি ও প্রভোস্টের পদত্যাগ দাবিতে তাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন করে যাচ্ছেন। তারা ১১ দিন ধরে অনশনে আছেন, ১৬ জন ইতোমধ্যে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে গেছেন। এতে কারও টনক নড়ছে না।

উপাচার্যকে অপসারণের দাবি জানিয়ে জাপার এমপি পীর ফজলুর রহমান বলেন, শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ে লাগাতার আন্দোলন চলছে। শিক্ষার্থীরা ভিসির সঙ্গে আলাপ করতে গেলে সাউন্ড গ্রেনেড হামলা, লাঠিপেটা করা হয়েছে। ছাত্রদের ওপর আক্রমণ করার কারণেই ভিসির পদত্যাগ দাবিতে তারা আন্দোলন শুরু করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের অভিভাবক হিসেবে ভিসি কোনো আলোচনা না করার কারণে শিক্ষার্থীরা আমরণ অনশনে গিয়েছেন। অনশনে অসুস্থ হয়ে শিক্ষার্থীরা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। কিন্তু ভিসি আত্মসম্মান বিসর্জন দিয়ে নির্লজ্জের মতো পদে আছেন। যে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ভিসিকে চান না কিন্তু তিনি লখিন্দরের বাসার মতো সুরক্ষা নিয়ে নিজের বাসায় বসে আছেন। তিনি পদত্যাগ করবেন না। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলবেন না। স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করতে না চাইলে সরকারের উচিত আজকের মধ্যে তাকে অব্যাহতি দেওয়া।

শাবিপ্রবিতে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের হামলার ঘটনায় নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি গঠন করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। ঢাকা, রাজশাহী, জাহাঙ্গীরনগর, খুলনা, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা শাবি শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করেছেন।

এদিকে শাবির উদ্ভূত পরিস্থিতিতে এক বিবৃতিতে উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগ দাবিতে চলমান আন্দোলনকে চক্রান্ত বলে মনে করছেন ৩৫টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের সংগঠন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে তারা নিজেদের এ অবস্থান জানান। বিবৃতিতে শাবিপ্রবি উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিকে ‘নীতিবহির্ভূত’ উল্লেখ করে তাঁরা বলেছেন, ‘নীতিবহির্ভূতভাবে ভিসির পদত্যাগের দাবিতে ক্রমে যে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করা হচ্ছে তা সমগ্র পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়কে অস্থিতিশীল করে তোলার মাধ্যমে দেশের উচ্চশিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে ফেলার একটি চক্রান্তের অংশ বলেই প্রতিভাত হচ্ছে।’

একালের বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিরা চরম দলকানা, এ কে আজাদ চৌধুরীর মতোন আওয়ামী লীগ কিন্তু স্বাধীন ব্যক্তিত্বে সর্বজনীন ভিসি নন। আর ছাত্রলীগ যেন ঐতিহ্য ধুলোয় লুটিয়ে অনেক ক্যাম্পাসেই প্রশাসনের লাঠিয়ালের মতোন শুরুতেই ঝাঁপ দেয়। এ দেউলিয়াত্ব ছাত্র রাজনীতির। এ লজ্জা কার জানি না। ড. ফরিদ উদ্দিনের গবেষণা কত জানি না তবে শুনেছি শিক্ষকতার পাশে তিনি সফল গার্মেন্ট ব্যবসায়ী। সে যাই হোক, ক্যাম্পাসে শান্তি ফেরাতে তিনি সরে দাঁড়ান, নয় সরিয়ে দেওয়া হোক। লেখক : নির্বাহী সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন।

সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন

 

- Advertisement -

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles