img

হায়রে কুশিক্ষিত, অর্বাচীন মেধাবী!

মানুষকে অপমান করার মধ্যে কি নিজের সম্মান বৃদ্ধি হয়? অন্যের মাথা হেঁট করে দিলে কি নিজের মাথার উচ্চতা বৃদ্ধি পায়? বৃদ্ধ একজন মানুষকে অপমান করে তার ছবিও তুলে রাখলেন। এতো কঠিন আপনার ভিতরটা? একদিন কি সব কৃত কর্মের জবাব দিতে হবে না? শেষ বিচারের দিনেও না? সেদিন সৃষ্টিকর্তার সামনে আপনার মাথা কি উঁচু থাকবে? এতো বড় বৈশ্বিক দুর্যোগের সম্মুখে দাঁড়িয়েও....

img

খালেদার মুক্তিতে অন্ধকারে বিএনপি-আওয়ামী লীগ ও ব্যর্থ গণমাধ্যম

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির নেপথ্যে বিএনপির নেতাকর্মীদের নূন্যতম ভূমিকাও নেই। এমনকি সরকারের মন্ত্রী নেতারাও জানতেন না। বিএনপির নেতাদের তো জানার কথাই নয়। যদি কেউ টের পেয়ে থাকেন তবে তিনি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর পেয়ে থাকতে পারেন। তিনি তার দলের নেত্রীর জন্য প্রধানমন্ত্রীর সাথে একটা যোগাযোগ রাখতেন। তাও মুক্তির বিষয়ে কতোটা নিশ্চিত সেটিও সন্দেহের।

এমনকি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তির সিদ্ধান্ত....

img

ধর্মান্ধতা দিয়ে ঠেকানো যাবে না করোনাভাইরাস

ভারতে যা হচ্ছে তা হচ্ছে বলে বিশ্বাস হয় না। করোনা সংক্রমণ ঠেকানোর জন্য গোমূত্র পানের ‘পার্টি’ হচ্ছে। দিল্লিতে গোমূত্র পার্টির আয়োজন করেছিল হিন্দু মহাসভা। করোনার কোনও প্রতিষেধক যেহেতু এখনও আবিষ্কার হয়নি, সেহেতু গোমূত্র পানই নাকি তাদের বাঁচাবে। দিল্লি থেকে কলকাতায় সংক্রামিত হয়েছে এই গোমূত্র পান। কলকাতাতেও গোমাতার পুজো এবং গোমূত্র পানের আসর বসেছে। গোমূত্রের মাধ্যমে ভাইরাস দূর হওয়ার কোনও বৈজ্ঞানিক....

img

এসব কী? কিছুই বুঝতে পারি না

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত তিনজন পাওয়া গেছে। এ যেন সোনার খনি পেয়েছি, হীরার খনিও হতে পারে। সেখানে শ্রেষ্ঠ হীরা কোহিনুর আবিষ্কৃত হয়েছে। এটা কোনো কথা হলো? করোনাভাইরাসের জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠান কাটছাঁট- এটা আমাদের জন্য কত বড় দুর্ভাগ্য। তবে হ্যাঁ, বিদেশি সম্মানিত অতিথিরা আসছেন না, সেখানে মহান ভারতের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শ্রীনরেন্দ্র মোদিও আসছেন না- এটা একটা শাপে বর বলা....

img

পাপিয়া কি শুধু একাই পাপী?

বাংলাদেশের শামীমা নূর পাপিয়া কী ভয়ানক কী কুৎসিত কী বীভৎস সব কীর্তি করেছে। দেহ ব্যবসা, জুয়ো ব্যবসা, মাদক ব্যবসা, অর্থ পাচার ইত্যাদি নানা ধরনের অবৈধ ব্যবসা করে শত কোটি টাকার মালিক হয়েছে। এইসব চুরি জোচ্চুরি বদমায়েশি, এইসব লুটপাট, লোক ঠকানো, অন্যায় অত্যাচার- পুরুষেরাই করে বলে লোকে বিশ্বাস করতো। এখন দেখছে সুযোগ পেলে মেয়েরাও করে এসব।

এই যে গত চার দশক থেকে....

img

সেই বাইজিরা এখন রাজনীতির হেরেমে

এককালে মুঘল হেরেম থেকে রংমহল ও চলচ্চিত্রে বাইজিদের দেখা মিলত। অর্থ-উপঢৌকনের বিনিময়ে তারা নেচে-গেয়ে মনোরঞ্জনে ভাসাতেন বিত্ত ও ক্ষমতাশালী এবং তাদের মেহমানদের। এদের রূপ-যৌবনও ছিল চোখ ধাঁধানো। রূপ-যৌবন সংগীতের সুর ও নাচের মূর্ছনায় অনেকের জীবনকেও তারা তছনছ করে দিতেন। এ নিয়ে অনেক মিথ আছে, ইতিহাস আছে।

বাইজি হিন্দি শব্দ বাই-এর সঙ্গে জি যুক্ত হয়ে বাইজি কথাটি প্রচলিত হয়েছে। বাইজি অর্থ পেশাদার....

img

অনেক কথা বলা যায় না, লেখাও যায় না

সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতাল নিয়ে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ নতুন নয়। তবু বিতর্কিতদের সরানো হয়নি। অথচ আজ যখন একজন সৎ দক্ষ সিভিল সার্জন এসে অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করে মানুষের মনে আশা জাগিয়েছেন তখনই তাকে বদলি!

এ বদলির নেপথ্যে সুনামগঞ্জের বিএমএ নেটওয়ার্ক থেকে উপর মহলের প্রভাবশালী, এমনকি মন্ত্রণালয়ের সিন্ডিকেট কাজ করেছে। এটা জেলার অভিভাবক পরিকল্পনা মন্ত্রীকে দেখতে হবে। অবশ্যই একজন সৎ মানুষ হিসেবে....

img

করোনাভাইরাস কোত্থেকে এলো, যাবে কোথায়

করোনাভাইরাস এখন চীন থেকে অনেক দেশেই ছড়িয়ে গেছে। ৬০৫৬ মানুষ আক্রান্ত, মারা গেছে ১৩২ জন। মৃত্যুগুলো সবই চীনদেশে। কানাডা, যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, ফ্রান্স, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, মালয়েশিয়া, কম্বোডিয়া, ভিয়েতনাম, তাইওয়ান, অস্ট্রেলিয়া, থাইল্যান্ড, শ্রীলঙ্কা, সিঙ্গাপুর, নেপাল ভারত এবং বাংলাদেশে ঢুকে যেতে দেরি হবে বলে আমার মনে হয় না। পশুপাখি থেকে নয়, এই ভাইরাস এখন মানুষ থেকে মানুষে ছড়াচ্ছে। ডব্লুএইচও বলছে, ২০০৩-এ সার্স....

img

কেন আমার মৃত্যু হলো না?

সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে রেডিও-টিভি এবং প্রার্থীরা বড় বেশি উতালা। বিশেষ করে মেয়রপ্রার্থী আওয়ামী লীগ-বিএনপির দুই দুই চারজন সারা শহর চষে বেড়ানোর চেষ্টা করছে। প্রতিশ্রুতির শেষ নেই। দেওয়া প্রতিশ্রুতির একশ ভাগের দশ ভাগও কেউ যদি বাস্তবায়ন করতে পারেন কোনো সমস্যা থাকবে না। জয়ের জন্য নির্বাচনী প্রার্থীরা যত প্রতিশ্রুতিই দেন ঢাকা উত্তর-দক্ষিণ সিটি করপোরেশন মেয়রদের হাতে সেসব সমস্যা সমাধানের কোনো ক্ষমতা....

img

আমার সেই দেশ এখন

২৬ বছর আগে এসবের শুরু। আমার মাথার দাম ঘোষণা করেছিল সিলেটের এক মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল। কারও মাথার দাম ঘোষণা করা, অর্থাৎ জনগণকে বলা- তোমাদের মধ্যে ওর মুন্ডুটা যে ব্যক্তি কেটে নিয়ে আসতে পারবে, অর্থাৎ তাকে হত্যা করতে পারবে, তাকে আমি মোটা অঙ্কের টাকা দেব- নিশ্চয়ই খুব বড় এক অপরাধ। কিন্তু এসব অপরাধীর বিরুদ্ধে তখনকার সরকার কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। মামলা করা, গ্রেফতার....

img

আজহারীকে দেখলে দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর কথা মনে পড়ে

ওয়াজ করা আজহারীকে নিয়ে কেউ জানাবেন সত্যটা? ইউটিউব দেখি এখন ওয়াজ করা হুজুরদের দখলে! ওয়াজেও দেখি নতুন মাত্রা এসেছে। অনেকে বাঙালি সংস্কৃতির বিরুদ্ধে বলতে গিয়ে জেমস, আইয়ুব বাচ্চুকে হার মানিয়ে গানও ধরেন। অনেকে হিন্দি গান করেন। কত ঢং! ধর্মীয় গানও করেন কেউ কেউ। ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য আগের মতো থাকে না, বিনোদন হয়ে ওঠে। কখনো কখনো ওয়াজ মাহফিল থেকে বক্তাকে বিদায়ও করে....

img

হিজাব বা বোরখা নয়, বাঁচাবে পুরুষের নৈতিকতা

একটা সময় ছিল, বাচ্চারা নিজেরাই ইস্কুলে যেত, নিজেরাই ইস্কুল থেকে বাড়ি ফিরতো। অভিভাবকের সাহায্যের দরকার পড়তো না। আমি ছিলাম মধ্যবিত্ত ঘরের মেয়ে। আমাকে বাড়ির কেউ ইস্কুলে নিয়ে যায়নি, ইস্কুল থেকে ফেরতও আনেনি। ইস্কুলে পায়ে হেঁটে অথবা রিক্সায় চড়ে যেতাম। সঙ্গে পাড়ার ইস্কুলযাত্রী ছেলেমেয়ে থাকতো। এখন তো দেখি ইস্কুলের ছেলেমেয়েদের ইস্কুলে দিয়ে আসে অভিভাবকেরা, নিয়েও আসে। এত সাবধানতা, তারপরও শুনি শিশুধর্ষণ....

img

দেশবাসী মন্ত্রীর পদত্যাগ চায়

পুরো এক সপ্তাহ শৈত্যপ্রবাহে সারা দেশ জেরবার। যারা ধনবান, কাপড়-চোপড় আছে, যারা ঘরে বসে কাজ করে তাদের কথা না হয় ছেড়েই দিলাম। কিন্তু বাইরে যাদের কাজ করে খেতে হয় তাদের এ যেন এক মস্ত গজব। আমাদের সখীপুরের নেতা কীর্তনখোলার আবদুস সবুর প্রায় দুই মাস আগে তার মাদ্রাসার ধর্মসভার তারিখ নিয়ে কথা বলেছিল। আমার সঙ্গে কথা বলেই সে তারিখ ঠিক করেছিল।....

img

‘নুর আহত নাকি নিহত ডাজ নট ম্যাটার’-বলেছে রাব্বানী! এটা রাজনীতি?

ডাকসু নির্বাচন চেয়ে অনেক লিখেছি, অনেক টকশোতে বলেছি। এখন আমি আর ছাত্রসংসদ নির্বাচন কোথাও চাইছি না।এককালের সেকেন্ড পার্লামেন্টের করুণ পরিণতি দেখে ব্যথিত লজ্জিত। আমাদের ইতিহাস গৌরব ঐতিহ্য অহংকারের উত্তরাধিকারীত্ব ধুলোয় লুটিয়ে পড়েছে। ডাকসু ভবনের উপর থেকে ফেলে দেয়া ছাত্র এখন মৃত্যুর মুখোমুখি! ডাকসু ভবন এমন কলংকিত কখনো হয়নি।

মেরুদণ্ডহীন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন চা-সমুচা সিঙ্গারা খায়। ছাত্ররা এমনকি ডাকসু ভিপি হামেশা মার খায়।....

img

সৃজিত মিথিলার অর্থবহ মিলন

দু’জন অত্যন্ত প্রতিভাবান ব্যক্তিত্ব বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন একটি বিশেষ দিনে। দিনটি ৬ ডিসেম্বর। ২৭ বছর আগে এই দিনটিতে ভারতের বাবরি মসজিদ ভেঙ্গে গুঁড়ো করে দিয়েছিল হিন্দু মৌলবাদীরা। প্রতিক্রিয়ায় মুসলিম মৌলবাদীরা বাংলাদেশে হিন্দুদের ঘরবাড়ি দোকানপাট মন্দিরে হামলা করে। শত শত হিন্দু পরিবার আশঙ্কায় আর্তনাদ করেছে, মাতৃভূমি ত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছে। এই দিনটিতে সৃজিত মুখোপাধ্যায় এবং রাফিয়াত রশিদ মিথিলার মিলন....