বৃহঃস্পতিবার | ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | টরন্টো | কানাডা |

Breaking News:

  • অন্টারিওতে আক্রান্তের সংখ্যা অস্বাভাবিক বেড়ে যেতে পারে
  • সংক্রমণের চতুর্থ ঢেউয়ের আশঙ্কা
মার্সিফুল রিডিমার পারিশ

ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার পরিত্যক্ত একটি আবাসিক স্কুল প্রাঙ্গণে ২১৫টি আদিবাসী শিশুর মরদেহের সন্ধান পাওয়ার পর থেকে অধিকাংশ স্কুল পরিচালনাকারী ক্যাথলিক চার্চকে এ ঘটনায় তাদের ভূমিকার জন্য ক্ষমা চাওয়ার দাবি উঠতে থাকে। সেই সঙ্গে স্কুল সংক্রান্ত সব নথি জনসমক্ষে আনার দাবিও উঠেছে।

কলিন্সসহ বেশ কয়েকজন কানাডিয়ান আর্চবিশপ যা ঘটেছে তাতে চার্চের ভূমিকার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন। এদিকে, আবাসিক স্কুলে ক্যাথোলিক চার্চ যা করেছে তাকে ভালো বলে মন্তব্য করায় তোপের মুখে পড়ে পদত্যাগ করেছেন মিসিসোগার এক ধর্ম যাজক। মার্সিফুল রিডিমার পারিশের পাদ্রি হিসেবে মনসিনর ওয়েন কিনানের পদত্যাগপত্র শুক্রবারই কার্ডিনাল টমাস কলিন্স গ্রহণ করেছেন এবং তাকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ছুটিতে পাঠিয়ে দিয়েছেন।

কানাডার আবাসিক স্কুল ব্যবস্থা নিয়ে বক্তব্যসম্বলিত একটি ক্লিপ এ সপ্তাহের গোড়ার দিকে অনলাইনে ছড়িয়ে পড়ার পর থেকেই তোপের মুখে পড়েন কিনান। ক্লিপে তিনি বলেন, এখানে যে বিয়োগান্তক ঘটনা ঘটেছে তার জন্য দুই-তৃতীয়াংশ মানুষ আমাদের ভালোবাসার প্রতিষ্ঠান চার্চকে দায়ী করছে। তবে আমার ধারণা, স্কুলগুলোর জন্য যা করা হয়েছে সেসব ভালো কাজের জন্য সমসংখ্যক মানুষ চার্চকে ধন্যবাদ দিচ্ছেন। যদিও সেই প্রশ্ন কখনোই তোলা হয়নি এবং স্কুলগুলোতে ভালো কাজও যে হয়েছে আমাদের সেটা বলতে দেওয়া হয় না।

এই বক্তব্যের জন্য পরে ক্ষমা প্রার্থনা করেন কিনান এবং তার এ বক্তব্য যে মানুষের ক্ষোভ ও ব্যথা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে সেটাও স্বীকার করেন।

তিনি বলেন, দেশজুড়ে আবাসিক স্কুলগুলোতে নিপীড়ন, ধ্বংসাত্মক ও ক্ষতির যেসব ঘটনার বিষয় সামনে এসেছে সেজন্য আমি গভীরভাবে দুঃখিত, বিব্রত, লজ্জিত ও মর্মাহত। একজন ক্যাথলিক ধর্মযাজক হিসেবে আবাসিক স্কুল ব্যবস্থাকে আমি সমর্থন করতে পারিনা। ভুক্তভোগীদের সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ হলে আমি তাদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নেবো। 


[email protected] Weekly Bengali Times

-->