মঙ্গলবার | ৩ আগস্ট ২০২১ | টরন্টো | কানাডা |

Breaking News:

  • বিদেশি প্রভাবিত প্রচারণায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে ব্যবহার করা হচ্ছে
  • গ্রিন পার্টির নেতা অনামী পলকে দল থেকে বহিস্কারের কোনো সুযোগ নেই
অন্টারিও প্রিমিয়ারের নিন্দা

কানাডায় পবিত্র ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী হওয়ার কারণে একই পরিবারের চার সদস্যকে ট্রাকচাপা দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। পুলিশও বলছে, সম্ভবত মুসলমান হওয়ার কারণেই পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী তাদেরকে হত্যা করা হয়েছে। কানাডার অন্টারিও প্রদেশের লন্ডন শহরে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে। নিহতেরা পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত। খুনি এই চারজনকে হত্যা করার সময় বুলেটপ্রুফ পোশাক পরা ছিল। হত্যার পর খুনি ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। কিন্তু পুলিশ তাকে একটি ডিপার্টমেন্ট স্টোর থেকে গ্রেপ্তার করে। সোমবার এই ঘটনায় ৭৪ বছর বয়সী কানাডিয়ান এক মহিলা, ৪৬ বছর বয়সী এক পুরুষ, ৪৪ বছর বয়সী অপর মহিলা এবং একটি ১৫ বছর বয়সী কিশোরী নিহত হয়েছেন। এ ছাড়াও ৯ বছর বয়সী একটি বালক গুরুতর আহত হয়েছেন। এই হামলাকে জঘন্য উল্লেখ করে বিবৃতি দিয়েছেন অন্টারিওর প্রিমিয়ার ডগ ফোর্ডও। এক টুইটে তিনি বলেন, অন্টারিওর মাটিতে ঘৃণা ও ইসলামোফোবিয়ার কোনো জায়গা নেই। লন্ডনে বিদ্বেষের যে ভয়ংকর ঘটনা ঘটেছে তার বিচার অবশ্যই হবে। জঘন্য এ হিংসা অবশ্যই বন্ধ করতে হবে। 

লন্ডন পুলিশের প্রধান স্টিফেন উইলিয়ামস সোমবার সাংবাদিকদের বলেছেন, কেবলমাত্র মুসলিম হওয়ার কারণেই রোববার অন্টারিওর লন্ডনে পাঁচ জনকে গাড়ি চাপা দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে ।  লন্ডন পুলিশের ভাষ্য অনুযায়ী, মুসলিম পরিবারটির পাঁচ সদস্য রোববার রাত ৮টা ৪০ মিনিটের দিকে লন্ডনের উত্তর প্রান্তে হাঁটতে বের হন। তারা ক্যারেজ রোডের কাছাকাছি হাইড পার্ক রোড ধরে হাঁটছিলেন। এরপর ইন্টারসেকশনটি পার হওয়ার জন্য যখন তারা অপেক্ষা করছিলেন ঠিক সেই সময় দক্ষিণগামী কালো রঙের একটি পিকআপ ফুটপাতের ওপর উঠে পড়ে এবং তাদেরকে ধাক্কা দেয়।

স্টিফেন উইলিয়ামস এ প্রসঙ্গে বলেন, তদন্তে যেসব তথ্য আমরা জানতে পেরেছি তাতে বলা যায়, এটা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত কাজ। ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী হওয়ার কারণেই তাদেরকে লক্ষ্যবস্তু করা হয়েছে বলে আমাদের বিশ্বাসস। 

রোববারের ওই ঘটনায় পরিবারটির চার সদস্যের মৃত্যু হয়। তাদের মধ্যে রয়েছেন ৭৪ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা, ৪৬ বছর বয়সী এক পুরুষ, ৪৪ বছর বয়সী এক নারী ও ১৫ বছর বয়সী এক বালিকা। এ ঘটনায় বেঁচে যাওয়া ৯ বছরের শিশুটি গুরুতর আঘাত নিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

পুলিশের মতে, হামলাটি পূর্ব-পরিকল্পিত এবং এ ঘটনার সময় চালক ভেস্ট পরা ছিলেন। এ ঘটনার পর চালক গাড়ি নিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগও করে। পরে ঘটনাস্থল থেকে সাত কিলোমিটার দূরে অক্সফোর্ড স্ট্রিটের চেরিহিল ভিলেজ মল থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

২০ বছর বয়সী লন্ডনের ওই চালকের নাম নাথানিয়েল ভেল্টম্যান। তার বিরুদ্ধে ফার্স্ট ডিগ্রি হত্যার চারটি ও হত্যাচেষ্টার একটি অভিযোগ আনা হয়েছে। 

এদিকে ঘৃণা থেকে এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে বলে পুলিশ দাবি করলেও তাদের এ দাবির ভিত্তি কী সে ব্যাপারে কিছু বলেনি। পুলিশ বলছে, বিভিন্ন উৎস থেকে তারা তথ্য সংগ্রহ করেছে এবং ওই চালক পরিবারটিকে চিনতেনও না। ঘটনার আগ পর্যন্তও লন্ডন পুলিশের সঙ্গে চালকের কোনো যোগাযোগও হয়নি।

রয়্যাল মাউন্টেড কানাডিয়ান পুলিশ (আরসিএমপি) এ ঘটনা সব ধরনের সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে এবং পুলিশ চালকের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদের অভিযোগও আনতে যাচ্ছে। 



[email protected] Weekly Bengali Times

-->