শনিবার | ১৯ জুন ২০২১ | টরন্টো | কানাডা |

Breaking News:

  • ইসলামোফোবিয়া বন্ধের পরিকল্পনা প্রণয়নের দাবি
  • গ্রীষ্মের শুরুতে কানাডার অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যাশা
ছবি বিবিসির সৌজন্যে

কানাডায় এক মুসলিম পরিবারের চার সদস্যকে গাড়িচাপা দিয়ে হত্যা করেছে। নিহতদের মধ্যে নারী-শিশুও রয়েছে। স্থানীয় সময় রবিবার দেশটির অন্টারিও প্রদেশের লন্ডন শহরে এ হামলা চালানো হয়। পুলিশ জানিয়েছে, ইসলামবিদ্বেষ থেকেই পূর্বপরিকল্পিতভাবে পরিবারটির সদস্যদের ওপর এ হামলা চালানো হয়েছে। ২০১৭ সালে কুইবেক শহরের মসজিদে ছয় জনকে হত্যার পর দেশটির মুসলিমদের ওপর এটাই সবচেয়ে ভয়াবহ হামলা। রবিবারের ঘটনায় নিহত চার জনের মধ্যে তিন জনই নারী। তাদের বয়স যথাক্রমে ৭৪, ৪৪ ও ১৫ বছর। নিহত অপর ব্যক্তির বয়স ৪৬ বছর বয়সী। পরিবারের সদস্যদের অনুরোধের প্রেক্ষিতে পুলিশের পক্ষ থেকে তাদের কারও নাম প্রকাশ করা হয়নি।

রোববার পিকআপ ট্রাকটি রাস্তা থেকে লাফ দিয়ে ফুটপাতে উঠে তাদের ওপর দিয়ে চলে যায়। সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে লন্ডন পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের সুপার পল রাইট বলেছেন, এটি একটি পরিকল্পিত, পূর্বপরিকল্পিত কাজ, ঘৃণা থেকে উৎসারিত। বিশ্বাস করা হচ্ছে, তারা মুসলিম বলেই তাদের বেছে নেওয়া হয়েছে।

পুলিশ রোববার সন্দেহভাজন হামলাকারী ২০ বছর বয়সী নাথানিয়েল ভেলটম্যানকে গ্রেপ্তার করছে। প্রত্যক্ষদর্শীদের উদ্ধৃত করে পুলিশ জানিয়েছে, তার গাড়ি হঠাৎ করেই রাস্তা থেকে সরে ফুটপাতের ওপর উঠে ওই পরিবারটিকে আঘাত করে তারপর দ্রুতবেগে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ওই পরিবারের নয় বছর বয়সী একটি বালক শুধু রক্ষা পেয়েছে। গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে আছে সে।

ভেলটম্যান লন্ডনের বাসিন্দা বলে জানানো হয়েছে। তার বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ মাত্রার চারটি হত্যাকাণ্ড ও একটি হত্যাচেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে। সোমবার তাকে রিমান্ডে দেওয়া হয়েছে। রিমান্ড শেষে বৃহস্পতিবার ফের তাকে আদালতে হাজির করা হবে।

পুলিশ জানিয়েছে, ভেলটম্যানের নামে অপরাধের কোনো রেকর্ড নেই, সে কোনো বর্ণবাদী গোষ্ঠীর সদস্য বলেও জানা নেই। কোনো ঘটনা ছাড়াই ঘটনাস্থল থেকে প্রায় ৬৪ কিলোমিটার দূরে একটি মার্কেটের পার্কিং এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারের সময় সে একটি বর্ম ধরনের ভেস্ট পরা ছিল এবং দুষ্কর্মে তার কোনো সহযোগী ছিল বলে কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। টরন্টো থেকে ২০০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমের শহর লন্ডনের মেয়র এড হোল্ডার এ ঘটনাকে তার শহরে ঘটা সবচেয়ে নিকৃষ্ট নির্বিচার হত্যাকাণ্ড বলে অভিহিত করেছেন।



[email protected] Weekly Bengali Times

-->