শনিবার | ১৯ জুন ২০২১ | টরন্টো | কানাডা |

Breaking News:

  • ইসলামোফোবিয়া বন্ধের পরিকল্পনা প্রণয়নের দাবি
  • গ্রীষ্মের শুরুতে কানাডার অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যাশা
ছবি/ লিন্ডসে ওয়াসন, রয়টার




করোনা মহামারির সময়ে কানাডায় হেট ক্রাইম বা ঘৃণাজনিত অপরাধের সংখ্যা বিপুলভাবে বেড়েছে। সবচেয়ে বেশি হেট ক্রাইমের শিকার হতে হয়েছে ইহুদি, কৃষ্ণাঙ্গ, এলজিবিটিকিউটুএসপ্লাস এবং এশিয়ান কমিউনিটির মানুষদের। টরন্টো পুলিশের অন্তবর্তীকালীন প্রধান জেমস রেমার এক বিবৃতিতে বলেছেন, হেট ক্রাইমে একজনই যে ভূক্তভোগী হন তা নয়, ওই কমিউনিটির সবাই এর ভূক্তভোগী হন। আমরা জানি কমিউনিটিতে এর একটা দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব থেকে যায়। নিভৃতবাসের পাশাপাশি বিষন্নতা ও ভঙ্গুরতাও ডেকে আনে এটি। বিশেষায়িত হেট ক্রাইম ইউনিটের তদন্তের মধ্য দিয়ে উদ্বেগজনক হারে বাড়তে থাকা হেট ক্রাইমের বিষয়টি আমরা দেখছি।

টরন্টোতে ২০২০ সালে ২১০টি হেট ক্রাইমের ঘটনা নথিভূক্ত হয়েছে। ২০১৯ সালে যেখানে সংখ্যাটি ছিল ১৩৯। এ হিসাবে এক বছরে টরন্টোতে এ ধরনের ঘটনা বেড়েছে ৫১ শতাংশ। সম্প্রতি প্রকাশিত অ্যানুয়াল হেট ক্রাইম স্ট্যাটিস্টিকস রিপোর্টে এ তথ্য উঠে এসেছে। টরন্টো পুলিশ বলছে, কোভিড-১৯ মহামারি ও জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকান্ড এতে ইন্ধন জুগিয়েছে। প্রতিবেদন অনুযায়ী, টরন্টোতে কৃষ্ণাঙ্গদের উদ্দেশে হেট ক্রাইমের ঘটনা ২০১৯ সালের ১৩টি থেকে বেড়ে ২০২০ সালে ৪৩টিতে দাঁড়িয়েছে। গত বছরের মে মাসে মিনিয়াপোলিসে জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর পর কৃষ্ণাঙ্গ কমিউনিটির বিরুদ্ধে এ ঘটনা বেড়ে গেছে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, এশীয় বিশেষ করে চীনা নাগরিকদের উদ্দেশ্য করে হেট ক্রাইমের ঘটনাও লক্ষ্যণীয় হারে বেড়েছে। তাদের উদ্দেশ্য করে কখনও অপমানসূচক মন্তব্য ছুড়ে দেওয়া হয়েছে, কখনও আঘাত করা হয়েছে, কখনও আবার থুথু ছিটানো হয়েছে। ২০২০ সালে এশীয়দের লক্ষ্য করে হেট ক্রাইমের ঘটনা ঘটেছে ১৫টি। এর মধ্যে পাঁচটিরই শিকার হয়েছেন চীনারা।

পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, টরন্টোতে হেট ক্রাইমের ঘটনা সবচেয়ে বেশি ঘটেছে ধর্মকে ঘিরে। ২০২০ সালে এ ধরনের ৮২টি ঘটনা নথিভূক্ত করেছে পুলিশ। এর মধ্যে ৬৩টি ঘটনাই ছিল ইহুদিদের উদ্দেশ্য করে। মুসলমানদের উদ্দেশ্য করে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে ৯টি।

হেট ক্রাইমের ঘটনা ঘটছে ইন্টারেনেটেও। ২০২০ সালে এ ধরনের ২১টি ঘটনা ঘটেছে। এর ৪২ শতাংশ ছিল ভার্চুয়াল সভাকে বিঘিœত করা।

এ ধরনের ঘটনায় ২০২০ সালে মোট ৪১ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ফৌজদারি আইনে তাদের বিরুদ্ধে ৭৭টি অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। তবে হেট ক্রাইমের অনেক ঘটনাই পুলিশের তালিকায় উঠছে না বলে স্বীকার করেছে তারা। 


[email protected] Weekly Bengali Times

-->