মঙ্গলবার | ১১ মে ২০২১ | টরন্টো | কানাডা |

Breaking News:

  • কানাডায় শুরু হয়েছে গণহারে ভ্যাকসিন কার্যক্রম
  • কানাডার বিমানবন্দরে বন্দুকধারীর হামলায় একজন নিহত
ফাইল ছবি

অধিক মাত্রায় সংক্রামক ভ্যারিয়েন্টের কারণে সংক্রমণ দ্রুত বাড়তে থাকায় কানাডার সবচেয়ে জনবসতিপূর্ণ প্রদেশ অন্টারিওর অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। প্রতিবেশী কুইবেকও নতুন বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। পাশাপাশি অধিক সংক্রমিত এলাকাগুলোয় কারফিউ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে আরবিসি ইকোনমিকসের জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ নাথান ইয়ানজেন বলেন, দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় ঘোষিত শাটডাউন থেকে অর্থনৈতিক কর্মকান্ড যে শক্তি নিয়ে ও যে গতিতে ঘুরে দাঁড়িয়েছে তাতে বলা যায়, নিয়ন্ত্রণমূলক ব্যবস্থা শিথিল করার পর দ্রুত কর্মসংস্থান ফিরে আসবে।  অর্থনীতিবিদদের মতে, ভ্যাকসিনেশনে যেহেতু গতি বাড়ানো হয়েছে তাই নতুন ঢেউয়ের বিরুদ্ধে একে কার্যকর প্রমাণ করা গেলে এ বছরের শেষ দিকে শ্রমবাজারে দ্রুত উন্নতি আনতে সক্ষম হবে কানাডা। স্কোশিয়াব্যাংকের পুঁজিবাজার বিষয়ক অর্থনীতির প্রধান ডেরেক হল্ট বলেন, এই গ্রীষ্মের শেষ নাগাদ কর্মসংস্থান পুরোপুরি ফিরিয়ে আনতে পারবে কানাডা। 

এদিকে, কানাডায় গত মার্চে প্রত্যাশার চেয়ে বেশি কর্মসংস্থান হয়েছে। এর ফলে দেশটিতে কর্মসংস্থান মহামারি-পূর্ববর্তী সময়ের ১ দশমিক ৫ শতাংশের মধ্যে চলে এসেছে। তবে চলতি মাসে নতুন করে আরোপিত লকডাউন সাময়িকভাবে এ উন্নতির রাশ টেনে ধরতে পারে।

শুক্রবার প্রকাশিত স্ট্যাটিস্টিকস কানাডার উপাত্ত বলছে, মার্চে কানাডায় ১ লাখ কর্মসংস্থান হতে পারে বলে আশা করেছিলেন বিশ্লেষকরা। যদিও প্রকৃতপক্ষে কর্মসংস্থান হয়েছে তার তিনগুণ অর্থাৎ ৩ লাখ ৩ হাজার ১০০। গত ডিসেম্বের ও জানুয়ারির শাটডাউন থেকে শিল্পগুলো ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করায় কর্মসংস্থানের এ উন্নতি। 

বেকারত্বের হারও প্রত্যাশার চেয়ে বেশি হ্রাস পেয়েছে। মার্চে বেকারত্বের হার ৮ শতাংশে দাঁড়াবে বলে বিশ্লেষকরা ধারণা করলেও প্রকৃতপক্ষে তা নেমে এসেছে ৭ দশমিক ৫ শতাংশে। কোভিড-১৯ মহামারি পূর্ববর্তী সময় থেকে এটা সর্বনি¤œ হার। কানাডায় নতুন করে ১ লাখ ৭৫ হাজার ৫০০ পূর্ণকালীন ও ১ লাখ ২৭ হাজার ৮০০ খ-কালীন কাজের সুযোগ তৈরি হয়েছে।

অ্যাকশন ইকোনমিকসের জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ রায়ান ব্রেকট বলেন, এটা কর্মসংস্থান নিয়ে আরেকটি শক্তিশালী প্রতিবেদন। যদিও আঞ্চলিক লকডাউনের কারণে এপ্রিলে অর্থনৈতিক কর্মকা- ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।


[email protected] Weekly Bengali Times

-->